Home /News /explained /

Explained: What is Deltacron: নতুন ভ্যারিয়ান্ট না ল্যাবরেটরির ভুল? ডেল্টাক্রন নিয়ে যা জানা দরকার...

Explained: What is Deltacron: নতুন ভ্যারিয়ান্ট না ল্যাবরেটরির ভুল? ডেল্টাক্রন নিয়ে যা জানা দরকার...

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একজন ব্যক্তির করোনাভাইরাসের দুই প্রজাতিতে আক্রান্ত হওয়া বিরল হলেও অসম্ভব নয়

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একজন ব্যক্তির করোনাভাইরাসের দুই প্রজাতিতে আক্রান্ত হওয়া বিরল হলেও অসম্ভব নয়

করোনার দুই স্ট্রেইন ডেল্টা (Delta) ও ওমিক্রন (Omicron) মিলিয়ে নতুন এই স্ট্রেইনের নাম দেওয়া হয়েছে ‘ডেল্টাক্রন’ (Deltacron)।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: সাইপ্রাসে পাওয়া গেল করোনাভাইরাসের নতুন স্ট্রেইন। করোনার দুই স্ট্রেইন ডেল্টা (Delta) ও ওমিক্রন (Omicron) মিলিয়ে নতুন এই স্ট্রেইনের নাম দেওয়া হয়েছে ‘ডেল্টাক্রন’ (Deltacron)। ভূমধ্যসাগরীয় দ্বীপ দেশটিতে এখনও পর্যন্ত ২৫ জন কোভিড রোগী করোনাভাইরাসের নতুন এই প্রজাতি দ্বারা সংক্রমিত। কিন্তু ‘ডেল্টাক্রন’ আদৌ তৈরি হয়েছে কি না এ বিষয়ে এখনও পর্যন্ত নিশ্চিত করে কোনও তথ্য হাতে আসেনি। যারা কোভিড আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি, একমাত্র তাদের মধ্যেই দেখা দিয়েছে এই সংক্রমণ। কিন্তু ‘ডেল্টাক্রন’ বিষয়ে এখনও পর্যন্ত কোনও তথ্য দেয়নি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO)। এমনকী এটি করোনার নতুন প্রজাতি কি না, সে বিষয়েও কিন্তু তারা কোনও কথা বলেনি। যার কারণে উদ্বেগ বাড়ছে। যদিও কয়েকজন বিশেষজ্ঞ বলছেন যে ডেল্টাক্রন আসলে দূষিত নমুনাগুলির সঙ্গে জড়িত একটি ল্যাব ত্রুটির ঘটনা ছাড়া আর কিছুই হতে পারে না।

সাইপ্রাসে কী সনাক্ত করা হয়েছে?

সাইপ্রাস বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবন বিজ্ঞানের অধ্যাপক লিওনডিওস কোস্ট্রিকিস বলেছেন যে তাঁরা এমন একটি স্ট্রেন খুঁজে পেয়েছেন যার ওমিক্রনের মতো জেনেটিক বৈশিষ্ট রয়েছে। বর্তমানে ওমিক্রন এবং ডেল্টা সংক্রমণ ছড়াচ্ছে। নতুন স্ট্রেনটি এই দুইয়ের সংমিশ্রণ। নতুন এই স্ট্রেনের নাম ডেল্টাক্রন রাখা হয়েছে। একজন ব্যক্তির একই সময়ে দুটি ভিন্ন রোগে আক্রান্ত হওয়ার উদাহরণ রয়েছে। যেমন- মরসুমি ফ্লু এবং কোভিড।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একজন ব্যক্তির করোনাভাইরাসের দুই প্রজাতিতে আক্রান্ত হওয়া বিরল হলেও অসম্ভব নয়।

কোস্ট্রিকিস বলেছেন যে তাঁর দল ২৫ কোভিড আক্রান্ত রোগীর নমুনায় ডেলমিক্রন প্রজাতি সনাক্ত করেছে। ২৫ জনের মধ্যে ১১ জন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। বাকি ১৪ জন বাড়িতে আইসোলেশনে রয়েছেন। তিনি উল্লেখ করেছেন যে এই প্রজাতিতে আরও সংক্রমণ সনাক্ত হতে পারে কি না বা মহামারীর গতিপথের উপর এটি কী প্রভাব ফেলতে পারে তা নিয়ে অনুমান করা এখনই সম্ভব নয়।

আরও পড়ুন : ভারতে করোনার কোন কোন প্রজাতি সংক্রমণ ছড়াচ্ছে, তাদের উপসর্গ কী কী?

কোস্ট্রিকিস বলেছেন, আমরা ভবিষ্যতে দেখতে পাব যে এই স্ট্রেনটি কতটা সংক্রামক বা এটি ডেল্টা এবং ওমিক্রনের থেকে বেশি সংক্রামক কি না। যদিও তিনি ব্যক্তিগতভাবে মনে করেন যে অত্যন্ত সংক্রামক ওমিক্রনকে ডেল্টাক্রন ছাড়িয়ে যাবে। উল্লেখ্য যে ডেল্টাক্রন এখনও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) দ্বারা স্বীকৃতি পায়নি বা অন্যান্য দেশের বিশেষজ্ঞদের দ্বারা এটি সনাক্ত করা হয়নি। প্রায় ১.২ মিলিয়ন জনসংখ্যা সহ ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য সাইপ্রাসে এখনও পর্যন্ত ২ লাখ মানুষ কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৭০০ জনের।

সাইপ্রাসের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন যে নতুন প্রজাতি নিয়ে এখনও উদ্বেগের কিছু নেই। কারণ, আগামী দিনে আরও বিশদ ঘোষণা করা হবে।

আরও পড়ুন : ই-পাসপোর্ট কী, কবে ভারতে চালু হতে পারে এই ব্যবস্থা?

বিশেষজ্ঞরা কী বলেছেন?

ডেল্টাক্রনের উত্থান সম্পর্কে প্রতিবেদন ভাইরাল হতেই বেশ কয়েকজন বিজ্ঞানী এবং স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এই দাবি উড়িয়ে দিয়েছেন। তাঁদের দাবি, ডেলমিক্রনের আবিষ্কার সম্ভবত ল্যাব দূষণের ফল। ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের ভাইরোলজিস্ট টম পিকক ট্যুইটারে লিখেছেন যে বড় বড় সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট করা ডেল্টাক্রন বেশ স্পষ্টভাবে দূষিত বলে মনে হচ্ছে। কারণ, নতুন প্রজাতির উত্থান সম্পর্কে যে যে যুক্তি দরকার, তা মোটেই এখানে খাটছে না। আরেকজন সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ও বিশ্ব স্বাস্থ সংস্থার টেকনিক্যাল টিমের সদস্য কৃতিকা কুপ্পাল্লি ডেল্টাক্রনের উত্থানের দাবিকে খারিজ করেছেন। তিনি জোরের সঙ্গে জানিয়েছেন যে ডেলমিক্রন কোনও নতুন প্রজাতি নয়। এটি সম্ভবত ল্যাব দূষণের কারণে সৃষ্টি হয়েছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে স্ক্রিপস রিসার্চ ট্রান্সলজিশনাল ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা এরিক টোপোলের গলাতেও একই সুর শোনা গিয়েছে। তিনি বলেছেন যে ডেল্টাক্রন একটি স্ক্যারিয়ান্ট এবং এটি বাস্তব প্রজাতিও নয়। বোঘুমা কবিসেন টাইটানজিও নামে আরেক বিশেষজ্ঞ নতুন প্রজাতির উত্থানের বিষয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ার বিষয়ে সতর্ক থাকার কথা বলেছেন। ট্যুইটারে তিনি বলেছেন যে সাইপ্রাসের কেসগুলিকে সতর্কতার সঙ্গে ব্যাখ্যা করা উচিত। কারণ বর্তমানে উপলব্ধ তথ্যগুলি একটি নমুনার দূষণের দিকে ইঙ্গিত করছে। কারণ, ডেল্টা এবং ওমিক্রন প্রজাতির সংমিশ্রণ সম্ভব নয়।

আরও পড়ুন : 6G পরিষেবা আনতে কী কী চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে দেশ? পরিকল্পনা কত দিনে বাস্তবায়িত হবে?

ডেলমিক্রন, ফ্লুরোনার মতো শব্দগুলি ওমিক্রন প্রজাতির উত্থানের মধ্যেই ঘোরাফেরা করছে। বিশেষজ্ঞরা অতিমারীর আবহে ছড়িয়ে পড়া গুজব না ছড়ানোর আবেদন করেছেন।

যদিও, ডেল্টাক্রনের উত্থান সম্পর্কে জানানো কোস্ট্রিকিস অন্য বিশেষজ্ঞদের বলা ল্যাব দূষণের দাবি খারিজ করে দিয়েছেন। তিনি পাল্টা বলেছেন যে অনুসন্ধানগুলি ওই সব বিবৃতিগুলিকে অস্বীকার করেছে যে ডেল্টাক্রন একটি প্রযুক্তিগত ত্রুটির ফলাফল। তিনি এক বিবৃতিতে বলেছিলেন, ওমিক্রনের জিন মিউটেশন করে চলেছে। ফলে ডেল্টার কিছু বৈশিষ্ট চাপা পড়ে গিয়েছে। এটা কোনও ভাবেই সংমিশ্রণের ফলাফল নয়, এটা বলা যাবে না। তিনি হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের মধ্যে ডেল্টাক্রনের আবিষ্কারকে প্রমাণ হিসাবে তুলে ধরেছেন, যা দূষণ তত্ত্বকে বাতিল করতে পারে। তিনি আরও বলেন যে ইজরায়েলের অন্তত একটি কেসের ক্ষেত্রে ডেল্টাক্রনের জেনেটিক বৈশিষ্ট্য দেখা গিয়েছে।

জেনেটিক উপাদানের পুনর্মিলন কী?

যদিও ডেল্টাক্রনের অস্তিত্ব নিশ্চিত করার আগে আরও তথ্যের প্রয়োজন রয়েছে। দু'টি পৃথক স্ট্রেন বা ভাইরাসের জেনেটিক কোড একত্রিত হয়ে একটি নতুন ভাইরাস প্রজাতি গঠন হওয়া সাধারণ বিষয়। পুনর্মিলন নামে পরিচিত এই ধরনের ঘটনাটিকে করোনাভাইরাসের জন্য একটি বিবর্তনীয় পরাশক্তি হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে, যেখানে দু'টি ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত ভাইরাস তাদের জিনোমকে সংমিশ্রণ করতে দেয়।

বিশেষজ্ঞরা ডেল্টাক্রোন-এর ভিস-এ-ভিস পুনর্মিলন হাইপোথিসিস নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। পিকক অফ ইম্পেরিয়াল কলেজ এই পর্যায়ে ওমিক্রন এবং ডেল্টার পুনর্মিলনের উপর একটি প্রশ্নবোধক চিহ্ন রেখেছিলেন। তিনি বলেছেন, রিকম্বিন্যান্টগুলিকে সাধারণত একে অপরের চারপাশে ঘুরতে থাকা দুই স্ট্রেইন হিসাবে সপ্তাহ বা মাস পর্যন্ত দেখা যায় না। অবশ্য তিনি এটা উল্লেখ করেছিলেন যে শেষ পর্যন্ত রিকম্বিন্যান্টগুলি পাওয়া যাবে।

অতিমারী শুরু হওয়ার পর থেকে বিজ্ঞানীরা যে কোনও রিকম্বিন্যান্টের উত্থানের উপর নজর রেখেছিলেন। ভাইরাসটি যে সম্পূর্ণ অপ্রত্যাশিতভাবে আচরণ করতে পারে, এমনও পরামর্শ দিয়েছিলেন। অনেকেরই দাবি, করোনাভাইরাস নিজেই আলাদা দুই ভাইরাসের পুনর্মিলনের ফলে সৃষ্টি হতে পারে। এটি মানুষের মধ্যে সংক্রমণের আগে বাদুড়ের শরীরে সংক্রমিত হয়েছিল।

তিনি আরও বলেছিলেন যে "ডেল্টাকে আরও সংক্রামক করে তোলে সে সম্পর্কে আমরা যা বুঝি তার বেশিরভাগই ওমিক্রন ইতিমধ্যেই অধিকার করে ফেলেছে- ওমিক্রন ডেল্টা থেকে কী লাভ করতে পারে তা বর্তমানে আমার কাছে অস্পষ্ট (বর্তমানে আমরা যা অন্তত জানি)।" তিনি আরও বলেছিলেন যে "সার্স-কোভ-২ বিশ্বব্যাপী সর্বকালের উচ্চতায় রয়েছে। এর ট্রান্সমিশন স্তরের সঙ্গে এটির সম্ভবত পুনঃসংযোগ ঘটছে এবং তা এমন স্তরে বাড়তে পারে যে আমাদের এই ঘটনাগুলিকে আরও ঘন ঘন পরখ করতে হতে পারে। যদিও এটি কি আরও বৈচিত্র্যের দিকে যাবে কি না সেই বিষয়ে এখনই কিছু বলা সম্ভব নয়।"

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published:

Tags: Coronavirus, Coronavirus Variants, Delta, Deltacron, Omicron

পরবর্তী খবর