Home /News /explained /

EXPLAINED | Farm Laws Repeal Bill 2021: তিন কৃষি বিল প্রত্যাহার, জানেন কী ভাবে আইন প্রত্যাহার করা হয়? সাংবিধানিক প্রক্রিয়া কী?

EXPLAINED | Farm Laws Repeal Bill 2021: তিন কৃষি বিল প্রত্যাহার, জানেন কী ভাবে আইন প্রত্যাহার করা হয়? সাংবিধানিক প্রক্রিয়া কী?

প্রত্যাহার করা হল তিন কৃষি বিল; জানেন কি কী ভাবে আইন প্রত্যাহার করা হয়, তার সাংবিধানিক প্রক্রিয়া কী?

প্রত্যাহার করা হল তিন কৃষি বিল; জানেন কি কী ভাবে আইন প্রত্যাহার করা হয়, তার সাংবিধানিক প্রক্রিয়া কী?

রাষ্ট্রপতি সই করলেই সরকারি ভাবে বাতিল হয়ে যাবে কেন্দ্রের প্রস্তাবিত তিনটি বিতর্কিত কৃষি আইন। (EXPLAINED | Farm Laws Repeal Bill 2021)

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: শীতকালীন অধিবেশনে পাস হয়েছে কৃষি আইন প্রত্যাহার বিল (Farm Laws Repeal Bill 2021)। আলোচনা ছাড়াই সংসদের (Parliament) দুই কক্ষে ধ্বনি ভোটে পাস হয় এই বিল (EXPLAINED | Farm Laws Repeal Bill 2021)। এর পর রাষ্ট্রপতি সই করলেই সরকারি ভাবে বাতিল হয়ে যাবে কেন্দ্রের প্রস্তাবিত তিনটি বিতর্কিত কৃষি আইন। বিরোধীদের দাবি ছিল, আইন প্রত্যাহার করার বিলটি নিয়ে আলোচনা করতে হবে। বিরোধীদের কথা সরকারকে শুনতে হবে। কিন্তু সেই দাবি মানা হয়নি। লোকসভা ও রাজ্যসভায় বিলটি ধ্বনিভোটে গৃহীত হয় (EXPLAINED | Farm Laws Repeal Bill 2021)। কৃষি আইন প্রত্যাহার বিল পাস হয়ে গেলেও নিজেদের আন্দোলন প্রত্যাহার করছেন না কৃষকরা। কৃষক নেতা রাকেশ টিকায়েত (Rakesh Tikait) জানিয়ে দিয়েছেন, সরকারি ন্যূনতম সহায়ক মূল্য (MSP) নিয়ে আইন না আনা পর্যন্ত আন্দোলন চলবেই। সরকারকে ফের কৃষকদের সঙ্গে আলোচনা শুরু করতে হবে (EXPLAINED | Farm Laws Repeal Bill 2021)।

২০২০ সালে তিনটি কৃষি আইন প্রণয়ন করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi) সরকার। সেগুলি হল- কৃষকদের উৎপাদিত কৃষিপণ্যে ব্যবসা ও বাণিজ্য সংক্রান্ত আইন, অত্যাবশ্যক পণ্য আইন এবং কৃষি পণ্যের মূল্য নির্ধারণ এবং কৃষি পরিষেবা সংক্রান্ত কৃষক চুক্তি আইন। তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে, ২০২০ সালের নভেম্বর থেকে আন্দোলন শুরু করেন কৃষকরা। কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে, ২০২০ সালের নভেম্বর থেকে আন্দোলন শুরু করেন কৃষকরা। চাপে পড়ে দেড় বছরের জন্য তিনটি কৃষি আইন স্থগিত রাখতে রাজি বলেও আশ্বাস দেয় মোদি সরকার। কিন্তু, তাতে চিঁড়ে ভেজেনি। গত মাসে গুরু নানকের জন্মদিন গুরুপরবে তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহার করার কথা ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি বলেন, "হয় তো আমাদের তপস্যায় কিছুর অভাব ছিল, যে কারণে আমরা কৃষকদেরকে এই আইন সম্পর্কে বোঝাতে পারিনি। তবে আজ প্রকাশ পর্ব, কাউকে দোষারোপ করার সময় নয়। আজ আমি দেশকে বলতে চাই যে আমরা তিনটি কৃষি আইন বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।" একটি আইন বাতিল করার সাংবিধানিক প্রক্রিয়া আইন প্রণয়ন করার সাংবিধানিক প্রক্রিয়ার মতোই। কী ভাবে তা হয়, তুলে ধরা হল এই প্রতিবেদনে।

আরও পড়ুন: পুরভোটে যাঁরা টিকিট পেলেন না, তাঁদের ভবিষ্যৎ কী? আশ্বাস সুকান্ত মজুমদারের গলায়

কী ভাবে একটি আইন বাতিল করা হয়?

আইন প্রত্যাহার করার ক্ষমতা ভারতীয় সংসদের হাতে রয়েছে। আর এই ক্ষমতা ভারতীয় সংবিধানের (Indian Constitution) একই বিধান থেকে আসে, যা আইন প্রণয়নের অধিকারকে নিয়ন্ত্রণ করে। ভারতীয় সংবিধানের ২৪৫ অনুচ্ছেদে (Article 245) বলা হয়েছে যে তার বিধানগুলির সাপেক্ষে সংসদ ভারতের সমগ্র অঞ্চল বা যে কোনও অংশের জন্য আইন প্রণয়ন করতে পারে। রাজ্যের ক্ষেত্রে আইন প্রণয়ন ও প্রত্যাহারের ক্ষমতা রয়েছে রাজ্য বিধানসভার কাছে। ২৪৫ ধারা অনুযায়ীই একটি রাজ্যের আইনসভা সেই রাজ্যের সমগ্র বা যে কোনও অংশের জন্য আইন প্রণয়ন করতে পারে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে আইন সাধারণত বিল (Bill) আনা ও তা সংসদের দুই কক্ষে পাস করানোর মধ্য দিয়ে প্রণয়ন করা যায়। তবে জরুরি ক্ষেত্রে অধ্যাদেশ (Ordinance) আনার মাধ্যমেও বর্তমান সরকার আইন আনতে পারে। ঠিক তেমনি একটি আইনকে অধ্যাদেশ বা সংসদীয় প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বাতিল করা যেতে পারে। কোনও বিল পাস করানোর পর যেমন রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের প্রয়োজন হয়, তবেই সংসদে পাস হওয়া বিলটি আইন হিসেবে লাগু হয়। ঠিক তেমনি আইন বাতিলের ক্ষেত্রেও রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের প্রয়োজন।

আরও পড়ুন: করোনার বিরুদ্ধে নাকে দেওয়া স্প্রে-ই কি কোভ্যাক্সিনের বুস্টার ডোজ হিসেবে কাজ করবে? জানুন বিশদে

২০১৬ সালে লোকসভার সচিবালয় (Lok Sabha Secretariat) দ্বারা প্রস্তুত করা একটি 'রেফারেন্স নোট' বলেছিল যে প্রত্যাহার করার অর্থ বিশেষত একটি আইন প্রত্যাহার বা বাতিল করা। যে কোনও আইন সম্পূর্ণ বা আংশিকভাবে আইন বাতিল করা যায়। পূর্বের আইনের বিপরীত এবং অসামঞ্জস্যপূর্ণ হলেই আইন প্রত্যাহার বা বাতিল করা যায়। প্রাক্তন কেন্দ্রীয় আইন সচিব পি কে মালহোত্রা (PK Malhotra) বলেছেন, আইন প্রত্যাহার বা বাতিলের ক্ষেত্রে সংবিধানের অধীনে সংসদের ক্ষমতা একটি আইন প্রণয়নের মতোই। আইন বাতিল করার অন্য কোনও উপায় নেই৷

তিনটি কৃষি আইন গত বছরের সেপ্টেম্বরে সংসদে পাস হয়েছিল। যদিও তার আগে জুন মাসে অধ্যাদেশ হিসাবে পেশ করা হয়েছিল। যদিও এই বছরের জানুয়ারিতে সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court) তিনটি আইন লাগুতে স্থগিতাদেশ জারি করে। তবে, বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে শীর্ষ আদালতের এই স্থগিতাদেশের পরেও আইনগুলির বাস্তবায়ন আটকে রাখা যায় না। কারণ, আইনগুলি রাষ্ট্রপতির সম্মতি পেয়েছে। তাই উপযুক্ত সাংবিধানিক প্রক্রিয়া অনুযায়ী একমাত্র সংসদের দ্বারাই যে কোনও আইন বাতিল করা প্রয়োজন। প্রাক্তন কেন্দ্রীয় আইন সচিব পি কে মালহোত্রা বলেন, যখন একটি প্রত্যাহার বিল পাস হয়, তখন এটি একটি আইনও হয়। বিলে আইন বাতিলের কারণ উল্লেখ করতে পারে সরকার।

একটি আইন বাতিল করার একটি আইন কি নিজেই বাতিল হতে পারে?

লোকসভার সচিবালয় তার নোটে বলেছে যে এমন কিছু করা হলেও এটি মূল আইনকে আর ফেরাবে না। যখন একটি প্রত্যাহারকারী বিধান নিজেই রদ হয়, এটি পূর্বে বাতিল করা কোনও বিধানকে আর ফেরাতে পারবে না, যদি না আবারও লাগু করার অভিপ্রায় স্পষ্ট হয়। যদিও এটি সাধারণ আইন নীতিগুলিকে আবার প্রয়োগের অনুমতি দিতে পারে। এই ভাবে, রদ করার আইনগুলির (Repealing Acts) কোনও আইনি প্রভাব নেই। লোকসভার সচিবালয় আরও উল্লেখ করেছে যে বিদ্যমান আইন অনুযায়ী সংবিধান থেকে একটি আইনের রদ বা বিলুপ্তকরণকে রদ করার অর্থ যেন এটি কখনও পাসই করা হয়নি। যখন একটি আইন বাতিল করা হয় তখন এটিকে এমনভাবে বিবেচনা করতে হবে যেন এটি কখনই ছিল না।

আরও পড়ুন: 'প্রধানমন্ত্রী কে হবেন তার চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ গণতন্ত্র', মুম্বইয়ে বিশিষ্টদের বার্তা মমতার

কেন্দ্র কত আইন বাতিল করেছে?

এই বছরের শুরুতে সংসদে একটি প্রশ্নের উত্তরে, কেন্দ্রীয় আইন মন্ত্রক (Union Law Ministry) বলেছিল যে অপ্রচলিত আইন (Obsolete Legislations) বাতিল করা 'মিনিমাম গর্ভমেন্ট, ম্যাক্সিমাম গভর্ন্যান্স' বৃহত্তর লক্ষ্য অর্জনের জন্য সরকারের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিশ্রুতি। মন্ত্রক জানিয়েছে যে ২০১৪ সালে কেন্দ্রে নরেন্দ্র মোদি সরকার আসার পর থেকে ১ হাজার ৪৮৬টি অপ্রচলিত এবং অপ্রয়োজনীয় আইন বাতিল করা হয়েছে। মন্ত্রক আরও বলেছে যে এই ধরনের আইন বাতিল করা মামলা-মোকদ্দমা কমাতে সাহায্য করে। ২০১৪ সালে গঠিত একটি দুই সদস্যের কমিটি বাতিলের জন্য ১ হাজার ৮২৪টি অপ্রচলিত আইন (২২৯টি রাজ্য আইন সহ) চিহ্নিত করেছে।

এই দুই-সদস্যের রামানুজম কমিটির (Ramanujam Committee) সুপারিশের ভিত্তিতে আনা কিছু রহিত আইনের মধ্যে রয়েছে প্রত্যাহরণ এবং সংশোধনী আইন ২০১৫। এই আইনের বলে সরকার সংবিধান থেকে ৩৫টি আইনকে বাতিল করেছে। এছাডা়ও ২০১৬ সালে আরেকটি সংশোধন আইন এনে ২৯৪টি আইন সরিয়ে দিয়েছে।

Published by:Raima Chakraborty
First published:

Tags: Farm Law, Farm Laws Repeal bill, Farm Laws Repealed

পরবর্তী খবর