Home /News /explained /
Coronavirus: দীর্ঘস্থায়ী কোভিডের লক্ষণ নিয়ে চিন্তিত? চিহ্নিত করার লক্ষণগুলি জেনে নিয়ে সতর্ক হন এখনই!

Coronavirus: দীর্ঘস্থায়ী কোভিডের লক্ষণ নিয়ে চিন্তিত? চিহ্নিত করার লক্ষণগুলি জেনে নিয়ে সতর্ক হন এখনই!

করোনাভাইরাস লক্ষণ নিয়ে সতর্কতা

করোনাভাইরাস লক্ষণ নিয়ে সতর্কতা

Coronavirus: কোভিড থেকে নিরাময় হওয়ার পরেও, অনেক মানুষ এর দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব (Post Covid-19 Symptoms) নিয়ে চিন্তিত।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: কীভাবে দীর্ঘ কোভিড উপসর্গ চিহ্নিত করা যায়, এই প্রশ্ন এখন ভাবিয়ে তুলেছে অনেককেই। আসলে কোভিড (Coronavirus) থেকে নিরাময় হওয়ার পরেও, অনেক মানুষ এর দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব নিয়ে চিন্তিত। কোভিড-১৯-এর দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব ঘন ঘনই হয়, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (World Health Organisation) গত অক্টোবরে কোভিড-১৯-এর দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব সম্পর্কে উদীয়মান প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এমনটাই জানিয়েছিল। কোভিড-১৯-এর পরবর্তী প্রভাবজনিত অবস্থা এমন ব্যক্তিদের মধ্যেই বেশি দেখা যায় যাদের সার্স-কোভ-২ (SARS-CoV-2) সংক্রমণের সম্ভাব্য বা নিশ্চিত কেস হিস্টরি রয়েছে, সাধারণত কোভিড-১৯ শুরু হওয়ার ৩ মাস পর পর্যন্তও উপসর্গ (Post Covid Symptoms) থাকে যা কমপক্ষে ২ মাস পর্যন্ত স্থায়ী হয়, তবে এর কোনও বিকল্প ব্যাখ্যা এখনও পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন : বুস্টার ডোজ হিসেবে দেওয়া হতে পারে কর্বেভ্যাক্স, এই টিকা সম্পর্কে জানুন বিশদে!

বর্তমানে, বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯-এর কেস বেড়ে চলেছে।

বিভিন্ন সরকারী সংস্থা এবং গবেষণা সংস্থার যাচাইকৃত তথ্যের মধ্য দিয়ে যা বোঝা গিয়েছে তা থেকে বলা যেতে পারে যে কোভিড-১৯  (Coronavirus)  এর দীর্ঘমেয়াদী প্রভাবের কারণ করোনাভাইরাসের (Coronavirus) সঙ্গে পজিটিভ শরীরের প্রতিক্রিয়া এবং সংক্রমণ থেকে পুনরুদ্ধারের ক্ষমতার উপর নির্ভর করে। এই ভাইরাস (Post Covid Symptoms) যে কোনও শরীরের অঙ্গকে প্রভাবিত করতে পারে।

প্রায় ১০০টিরও বেশি দীর্ঘস্থায়ী কোভিডের লক্ষণ রয়েছে বলে গবেষণায় দেখা গিয়েছে

ইউনিভার্সিটি অফ ওয়েস্ট অফ স্কটল্যান্ডের (University of the West of Scotland) গবেষকদের করা একটি গবেষণায় কোভিড-পরবর্তী অবস্থার সঙ্গে যুক্ত ১০০টিরও বেশি লক্ষণ পাওয়া গিয়েছে। প্রাথমিকভাবে রোগীদের নামাঙ্কিত দীর্ঘস্থায়ী কোভিডকে  (Coronavirus) লং কোভিড (long COVID) নাম দেওয়া হয়েছে। এই শব্দটিই বর্তমানে রোগীদের অবস্থা বর্ণনা করার জন্য সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত বাক্যাংশে পরিণত হয়েছে। এটি বিস্তৃতভাবে এমন আক্রান্ত ব্যক্তিদের বর্ণনা করে যারা গুরুতর স্তরের কোভিড-১৯ থেকে সেরে উঠেছে, কিন্তু গবেষণায় দেখা গিয়েছে, কোভিড থেকে সেরে ওঠার পরেও তাদের লক্ষণগুলি অনুভূত হচ্ছে বা খুব ধীরে ধীরে রোগীরা সেরে উঠছেন।

আরও পড়ুন : কোভিড পজিটিভ ব্যক্তির সংস্পর্শ ছাড়াই আক্রান্ত হয়েছেন? সংক্রমণ এই কারণগুলিতেও হতে পারে!

কেন দীর্ঘস্থায়ী কোভিড লক্ষণগুলি অলক্ষিত ভাবে থাকে? দীর্ঘস্থায়ী কোভিডের (Coronavirus) লক্ষণগুলির বেশিরভাগই দূরবর্তীভাবে গুরুতর কোভিড কেসের লক্ষণগুলির সঙ্গে সম্পর্কিত। সুতরাং, একটি নির্দিষ্ট লক্ষণ কোভিডের সঙ্গে সম্পর্কিত কি না তা নিশ্চিত করা কঠিন। একবার সংক্রমণ থেকে সেরে ওঠার পরে, পজিটিভ ব্যক্তির মস্তিষ্কে ফগিং-এর মতো পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া হতে পারে। সমীক্ষা বলছে যে, দীর্ঘস্থায়ী কোভিড বিভিন্ন শারীরবৃত্তীয় সিস্টেম জুড়ে উপসর্গের একটি পৃথক পৃথক স্তর গড়ে তোলে, তাই প্রায়শই ভিন্ন ভিন্ন ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে এই ভাইরাস ভিন্ন ভিন্ন অবস্থার সৃষ্টি করতে সক্ষম।

কোভিডের সাধারণ দীর্ঘস্থায়ী লক্ষণগুলি কী কী? গবেষকরা বলছেন, সাধারণ দীর্ঘস্থায়ী কোভিড লক্ষণগুলি অনেকটাই সংবেদনশীল, যেমন শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা, শরীরে ব্যথা এবং শরীরে ক্লান্তির ছাপ ইত্যাদি দেখা যায়। বিভিন্ন সরকার তাদের পরামর্শে প্রকাশিত তথ্যের সঙ্গে তুলনা করলে দেখাও যাচ্ছে যে এই বিবৃতিটি একেবারেই সত্য।। ইউএস সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (US Centres for Disease Control and Prevention) দ্বারা প্রকাশিত লক্ষণগুলির তালিকাটি বিস্তৃতভাবে চারটি বিভাগ তুলে ধরেছে।

সুতরাং, যারা করোনভাইরাস দ্বারা সংক্রামিত বা ইতিমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছে তাদের বোঝা উচিত দীর্ঘস্থায়ী কোভিড লক্ষণগুলি (Post Covid Symptoms) কী, যাতে তারা এই প্রভাবগুলি হ্রাস করতে পারেন।

ক্লান্তি (Fatigue) ডাব্লুএইচও (WHO) মত প্রকাশ করে বলেছে যে, কোভিডের পরে রোগীদের মধ্যে ক্লান্ত লাগা সবচেয়ে ঘন ঘন রিপোর্ট করা সমস্যাগুলির মধ্যে একটি। এতে একজন ব্যক্তি বেশি শারীরিক পরিশ্রম না করেই ক্লান্ত হয়ে পড়তে পারেন।

ক্লান্ত হওয়া প্রায়শই পরিশ্রম-পরবর্তী অসুস্থতার সঙ্গে সম্পর্কিত। ডাব্লুএইচও-এর মতে, ক্লান্ত হওয়া অনেক ব্যক্তিই পরিশ্রম-পরবর্তী অস্বস্তিতে পৌঁছেছেন।

আরও পড়ুন : দেশে সামান্য বাড়ল সংক্রমণ! পজিটিভিটি রেট না কমলেও স্বস্তি দিচ্ছে নিম্নমুখী অ্যাকটিভ কেস...

কীভাবে এই উপসর্গ চেনা যাবে?

সামান্য শারীরিক বা মানসিক ক্রিয়াকলাপের পরেও যখন ব্যক্তির শরীর সম্পূর্ণভাবে ক্লান্ত বোধ করবে তখন আমাদের বোঝা উচিত যে এটি একটি দীর্ঘস্থায়ী কোভিড উপসর্গ এবং এর দ্রুত চিকিৎসা হওয়া উচিত।

মস্তিষ্কের আলস্য সবচেয়ে সাধারণ আরও একটি লক্ষণ যা গবেষকরা ব্যাপকভাবে লক্ষ্য করছেন তা হল কর্মহীনতার প্রবৃত্তি বা মস্তিষ্কে ধোঁয়াশা। এটি তখনই হয় যখন ব্যক্তি কোনও কিছু সম্পর্কে চিন্তা করার সময় অলস বোধ করেন এবং তাঁর যুক্তিবোধ অস্বচ্ছ হয়ে পড়ে।

কীভাবে এই উপসর্গ চেনা যাবে?

চিন্তা করতে হয় এমন কাজের মোকাবিলা করা কঠিন মনে হতে পারে। এটি ব্যক্তির দৈনন্দিন কাজকর্মের উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলবে। ব্যক্তি প্রায়শই বিধ্বস্ত অনুভব করবে এবং এমনকী মাঝে মাঝে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসা তার পক্ষে কঠিন হবে।

শ্বাসযন্ত্রের নানাবিধ লক্ষণ শ্বাসকষ্টের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে শ্বাস নিতে অসুবিধা বোধ করা, দীর্ঘস্থায়ী বুকে ব্যথা, শ্বাসকষ্ট, শ্বাসযন্ত্রের ট্র্যাক্টে ভিড় এবং অন্যান্য। শ্বাসকষ্টের সমস্যা শরীরের স্বাভাবিক কার্যকারিতাকে প্রভাবিত করতে পারে।

কীভাবে এই উপসর্গ চেনা যাবে?

শ্বাসযন্ত্রের সমস্যাগুলি সাধারণত খুব বেশি থাকে না। সুতরাং, যদি ব্যক্তির শ্বাসকষ্টের সমস্যা দীর্ঘদিন ধরে চলতে থাকে, তবে বিস্তারিত চেকআপের প্রয়োজন রয়েছে। পর্যাপ্ত ঘুম না পাওয়াও এর আরও একটি লক্ষণ।

ব্যথা বোধ হওয়া স্নায়ু এবং পেশি ব্যথাও দীর্ঘস্থায়ী কোভিডের সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে একটি। কোভিড থেকে সুস্থ হওয়ার পর পেশিতে ক্রমাগত ব্যথা হওয়াকে হালকাভাবে নেওয়া উচিত নয় (Post Covid Symptoms) এবং এটিকে একটি স্বাভাবিক ঘটনা বলে ধরে নেওয়া উচিত নয়। প্রায়ই দেখা যায় আমরা এই ধরনের যন্ত্রণা সহ্য করি এবং ব্যথা আরও বৃদ্ধি পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করি।

কীভাবে এই উপসর্গ চেনা যাবে?

ব্যক্তির যদি পেশিতে ব্যথার সঙ্গে জড়িত কোনও চিকিৎসা জটিলতার কেস হিস্টরি না থাকে তবে একবার কোভিড-১৯ থেকে সুস্থ হওয়ার পরে এই ধরনের জটিলতা শুরু হলে এটি একেবারেই উপেক্ষা করা উচিত নয় এবং বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে দ্রুত পরামর্শ করা উচিত।

অন্যান্য উপসর্গ কোভিড থেকে সেরে ওঠার পর রোগীদের মধ্যে স্বাদ ও গন্ধ হারানো, মাথাব্যথা, স্নায়ু ও পেশিতে ব্যথা, ঘুমের ব্যাঘাত, চলাফেরার সমস্যাও পাওয়া গিয়েছে। এই লক্ষণগুলি আমাদের কাছে সাধারণ বলে মনে হতে পারে, তবে একবার যদি কেউ এই রকম লক্ষ্য করেন তবে বাড়তে দেওয়া উচিত নয়। এই রোগের বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে যুক্ত ঝুঁকি মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় সতর্কতা এবং প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত। একটি গবেষণা সমীক্ষায় বলা হয়েছে যে, কোভিডের আরও একটি জটিলতা হল যে শুধুমাত্র দীর্ঘস্থায়ী কোভিডের লক্ষণগুলি তীব্র কোভিডের লক্ষণগুলির থেকে আলাদা নয়, শুধু পার্থক্য এটাই এগুলির তীব্রতা প্রাথমিক ভাইরাসে আক্রান্তের সময়কার তীব্র সংক্রমণের থেকে কম।

Published by:Sanjukta Sarkar
First published:

Tags: Coronavirus

পরবর্তী খবর