Home /News /explained /
Coronavirus Positive: কোভিড পজিটিভ ব্যক্তির সংস্পর্শ ছাড়াই আক্রান্ত হয়েছেন? সংক্রমণ এই কারণগুলিতেও হতে পারে!

Coronavirus Positive: কোভিড পজিটিভ ব্যক্তির সংস্পর্শ ছাড়াই আক্রান্ত হয়েছেন? সংক্রমণ এই কারণগুলিতেও হতে পারে!

করোনা সংক্রমণ এই কারণগুলিতেও হতে পারে!

করোনা সংক্রমণ এই কারণগুলিতেও হতে পারে!

Coronavirus Positive: কোনও যোগাযোগের দৃষ্টান্ত ছাড়াই কেন মানুষ কোভিডে আক্রান্ত হচ্ছেন?

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: করোনাভাইরাস (Coronavirus) এবং ওমিক্রনের (Omicron) প্রাদুর্ভাবে সারা দেশ এখন বিপর্যস্ত। এই করোনা পরিস্থিতিতে, মানুষকে বাধ্যতামূলক ভাবে মাস্ক পরতে, সামাজিক দূরত্ব অবলম্বন করতে এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে বলা হচ্ছে। একই সঙ্গে আমাদের দেশের সরকার ও বিভিন্ন রাজ্যের রাজ্য সরকার জনগণকে ঘরে থাকার আহ্বান জানিয়েছে। করোনা পরিস্থিতির (Coronavirus Positive) মোকাবিলায়, বিভিন্ন রাজ্যের পরিস্থিতির নিরিখে সপ্তাহান্তে লকডাউন ও নাইট কারফিউও জারি করা হয়েছে। মানুষ শুধু নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনার জন্য ঘর থেকে বের হওয়ার কথা ভাবছে।

আরও পড়ুন : দেশে সামান্য বাড়ল সংক্রমণ! পজিটিভিটি রেট না কমলেও স্বস্তি দিচ্ছে নিম্নমুখী অ্যাকটিভ কেস...

কোনও যোগাযোগের কেস ছাড়াই কেন মানুষ কোভিডে (Coronavirus Positive) আক্রান্ত হচ্ছেন? কোভিড পরিস্থিতির শুরু থেকেই একটি বিষয় লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে, অনেক সময়ই মানুষ কোনও পজিটিভ ব্যক্তির সংস্পর্শ ছাড়াই কোভিডে আক্রান্ত হচ্ছে। তাই এই বিষয়টি তাদের স্বাভাবিক ভাবেই চিন্তিত করে তোলে, তারা যা জানতে চায় তা হল তারা কীভাবে কোভিড-১৯ সংক্রমণে সংক্রামিত হয়েছিলেন যখন তারা কোনও কোভিড পজিটিভ (Coronavirus Positive) ব্যক্তির সংস্পর্শে কখনওই আসেনি? যদিও এটা সকলেরই জানা যে করোনাভাইরাস সাধারণত এক ব্যক্তি থেকে অন্য ব্যক্তিতে সংক্রমিত হয়। তবে এটাও জানা উচিত যে করোনাভাইরাসটি কাছাকাছি দূরত্বের মধ্যে এক জনের থেকে অন্যজনের মধ্যে প্রসারিত হয় বা যেমনটা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (World Health Organisation) জানিয়েছে, কথোপকথনের (conversational distance) সামান্য দূরত্বেও করোনাভাইরাস সমান সক্রিয়।

সুতরাং এখানে ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার বিভিন্ন কারণগুলি আলোচনা করা হল যা ভাইরাসের দ্রুত বৃদ্ধিতে সহায়তা করে:

পূর্ব-লক্ষণ জাত কোভিডের কেস সাধারণত কোভিড সংক্রমিত ব্যক্তিদের সংক্রমণের লক্ষণগুলি বিকাশের ২-৩ দিন আগে থেকেই সক্রিয় থাকে, ফলে তারা অন্য ব্যক্তির দেহে ভাইরাসের প্রসারণ ঘটাতে পারে। যে অবস্থায় একজন ব্যক্তি প্রথমে ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত হয় এবং পরে উপসর্গ দেখা দেয় তাকে প্রি-সিম্পটোমেটিক (Pre-symptomatic) বলা হয়। নিকটবর্তী এলাকায় একজন প্রাক-লক্ষণযুক্ত ব্যক্তি উপসর্গ সহ সংক্রমিত ব্যক্তির মতোই সংক্রামক এবং সংক্রমণ ছড়াতে সক্ষম।

স্বল্প পরিসরে ভাইরাসের সংক্রমণ কোনও একজন ব্যক্তি যদি অন্য একজন কোভিড সংক্রামিত (Coronavirus Positive) ব্যক্তির স্বল্প পরিসরের মধ্যে থাকেন তবে তিনি সহজেই সংক্রমিত হতে পারেন। করোনাভাইরাস সংক্রামিত ব্যক্তির কাশি, হাঁচি বা অল্প দূরত্বের মধ্যে শ্বাস নেওয়া থেকে বেরিয়ে আসা ভাইরাসের ছোট তরল কণার মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। একবার একজন ব্যক্তি বাতাসে থাকা তরল কণার সংস্পর্শে এলে, ভাইরাসগুলি চোখ, নাক বা মুখের মাধ্যমে অ-সংক্রমিত ব্যক্তির শরীরে প্রবেশ করে। এর ফলে সংক্রমণ হওয়ার সম্ভাবনা বহু গুণে বেড়ে যায়। সে ক্ষেত্রে ভিড়যুক্ত স্থান বা এমন জায়গা যেখানে বায়ু চলাচল দুঃসাধ্য সেখানে কোনও সংক্রমিত ব্যক্তির দেহ থেকে সর্বাধিক পরিমাণে ভাইরাসের নির্গমন এবং অন্যদের শরীরে সেই ভাইরাসের প্রবেশের গতি ত্বরান্বিত হয়।

আরও পড়ুন : বুস্টার ডোজ হিসেবে দেওয়া হতে পারে কর্বেভ্যাক্স, এই টিকা সম্পর্কে জানুন বিশদে!

উপসর্গহীন বাহকের সাহায্য ভাইরাসের সংক্রমণ যে কোনও ব্যক্তি যার কোভিডের উপসর্গ রয়েছে অথচ সেগুলি কোনও ভাবেই বাইরে প্রকাশ্য নয়, এমন সংক্রমিত ব্যক্তিদের উপসর্গহীন কোভিড হয়েছে বলা হয়। এইসব লোকেরা নিজেরাই তাদের মধ্যে ভাইরাস বহন করার বিষয়ে সচেতন নয়। ফলে আমাদের মধ্যে থাকা সুস্থ কোনও ব্যক্তি যদি উপসর্গহীনভাবে ভাইরাস বহনকারী কারও সংস্পর্শে আসেন, তাহলে ওই ব্যক্তিও ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারেন। সে ক্ষেত্রে নতুন সংক্রমিত ব্যক্তির শরীরেও যে ভাইরাসের লক্ষণগুলি প্রকাশ পাবে না এই রকম কোনও বাঁধা-ধরা নিয়ম নেই। সংক্রমণের প্রকাশ ওই ব্যক্তির শরীরে আর পাঁচটি পজিটিভ মানুষের মতোই প্রকাশ্য হতে পারে। কেন না, প্রত্যেকের শরীরের দ্বারা উদ্ভূত রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উপর নির্ভর করবে তাদের উপসর্গ থাকবে কী থাকবে না। উপসর্গবিহীন বাহক থেকে সংক্রমণ পাওয়া অন্যদের উপসর্গহীন করে তুলবে না।

হার্ভার্ড হেলথের (Harvard Health) মতে “কোভিড -১৯ আক্রান্ত একজন ব্যক্তি পজিটিভ হওয়ার লক্ষণগুলি অনুভব করা শুরু করার ৪৮ ঘন্টা আগে সংক্রমিত হতে পারেন। প্রকৃতপক্ষে, উপসর্গহীন লোকেদের সংক্রমণ ছড়ানোর সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি হতে পারে, কারণ তারা বিচ্ছিন্ন হওয়ার জন্য কোনও রকম প্রস্তুতি নেন না বা নেওয়ার সম্ভাবনা কম এবং তার ফলে তারা ভাইরাসের বিস্তার রোধ করার জন্য পরিকল্পনা করা বিভিন্ন নিয়মগুলি গ্রহণ না-ও করতে পারেন। জামা নেটওয়ার্ক ওপেনে প্রকাশিত একটি সমীক্ষার উদ্ধৃতি দিয়ে এটি আরও বলেছে যে প্রতি চারটি সংক্রমণের মধ্যে প্রায় একটি সংক্রমণ উপসর্গবিহীন সংক্রমণে আক্রান্ত ব্যক্তিদের দ্বারা ঘটতে পারে।

কম পরীক্ষার কারণে ভাইরাসের আক্রমণ বেশি যদিও করোনার ক্ষেত্রে ভাইরাসের টেস্টিংই হল একমাত্র পথ তবুও কোভিড-১৯ সংক্রমণ নির্ধারণে অনেক কম পরিমাণে টেস্টিং বা শূন্যের নিচে টেস্টিংয়ের সমীক্ষা রিপোর্ট কিন্তু বেশ উদ্বেগজনক। এতে ভাইরাস হ্রাসের পরিসংখ্যান তৈরি হলেও ভাইরাসের হ্রাস ঘটে না। যেহেতু বেশিরভাগ কোভিড-১৯ লক্ষণগুলি সাধারণ সর্দি-কাশির লক্ষণগুলির সঙ্গে আলাদা ভাবে চেনা দায়, তাই অনেক মানুষই আজকাল পরীক্ষা করা ছেড়ে দিয়েছেন এবং সাধারণ জর-সর্দির চিকিৎসা শুরু করেছেন। এর সঙ্গে সংক্রামিত ব্যক্তির মধ্যে ভাইরাসের সংক্রমণ কমে যাওয়ার সময় ভাইরাসটি ইতিমধ্যে বায়ুতল এবং বায়ুপৃষ্ঠের মাধ্যমে অনেক মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ছে।

উপসর্গহীন বাহকের ক্ষেত্রে, শুধুমাত্র পরীক্ষাগারের পরীক্ষাই তাদের মধ্যে ভাইরাসের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে পারে। সুতরাং, যদি এই ব্যক্তিদের পরীক্ষা করা না হয়, (যদিও এমনটাই হচ্ছে, যেহেতু তাদের মধ্যে লক্ষণ কম) তাহলে পজিটিভ কেস সনাক্ত করা অসম্ভব। এর ফলশ্রুতিতে তারা নীরবে নিয়মিত হারে অন্যদের মধ্যে ভাইরাস ছড়িয়ে দিচ্ছেন।

ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট কোভিড-১৯-এর এই সুপার স্প্রেডার ভ্যারিয়েন্টটি, যার নামকরণ করা হয়েছে ওমিক্রন, আজ সারা বিশ্ব জুড়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। ওমিক্রন ঝড়ে আপাতত কাবু হয়ে পড়েছে অনেক দেশের চিকিৎসাব্যবস্থা। কোনও গুরুতর লক্ষণ না দেখানো এবং কোভিডের অন্যান্য ভ্যারিয়েন্টের মতোই এটিও কিন্তু অনেক ব্যক্তির শরীরে কোনও রকম উপসর্গ ছাড়াই বিরাজ করছে। এই ভাইরাসের আক্রমণাত্মক প্রকৃতি আসলে এর সংখ্যা বৃদ্ধির ক্ষমতায়, তাই বাড়ির বাইরে বের হলেই এই ভ্যারিয়েন্টের থেকে পালানো কঠিন। জানিয়ে রাখা ভালো যে, এখনও অবধি আমাদের দেশ ভারতে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট সম্পর্কিত প্রায় ৯ হাজারটি কোভিডের নতুন কেস রিপোর্ট করা হয়েছে। জামা নেটওয়ার্ক ওপেনে প্রকাশিত একটি গবেষণার সমীক্ষা অনুসারে, ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের সঙ্গে উপসর্গবিহীন সংক্রমণের অনুপাত আরও বেশি হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

Published by:Sanjukta Sarkar
First published:

Tags: Coronavirus, Covid Positive

পরবর্তী খবর