মধ্যপ্রদেশে ধর্ষিতাকে বেঁধে গ্রাম ঘোরানোর ঘটনায় ক্ষোভে ফুঁসছেন সায়নী! জোর আক্রমণ বিজেপিকে

মধ্যপ্রদেশে ধর্ষিতাকে বেঁধে গ্রাম ঘোরানোর ঘটনায় ক্ষোভে ফুঁসছেন সায়নী! জোর আক্রমণ বিজেপিকে

মধ্যপ্রদেশে ধর্ষিতাকে বেঁধে গ্রাম ঘোরানোর ঘটনায় ক্ষোভে ফুঁসছেন সায়নী

ঘটনা মধ্যপ্রদেশের রাজধানী ভোপাল থেকে ৪০০ কিলোমিটার দূরে একটি আদিবাসী অধ্যুষিত আলিরাইপুর গ্রামের। এই ঘটনার নিন্দা হচ্ছে নেট দুনিয়া জুড়ে। ঘটনার নিন্দায় ফেটে পড়লেন অভিনেত্রী তথা তৃণমূল-কংগ্রেস প্রার্থী সায়নী ঘোষ।

  • Share this:

    #ভোপাল: বর্বরতা ও নৃশংসতার সীমা ছাড়াল মধ্যপ্রদেশ। শাস্তি দিতে ধর্ষকের সঙ্গে কিশোরী ধর্ষিতাকেও দড়ি দিয়ে বেঁধে গোটা গ্রাম ঘোরালো গ্রামবাসীরা। যে গ্রামবাসীরা কিশোরীকে বেঁধে ঘোরালো, তাদের মধ্যে রয়েছে কিশোরীর পরিবারেরই এক সদস্য। ঘটনা মধ্যপ্রদেশের রাজধানী ভোপাল থেকে ৪০০ কিলোমিটার দূরে একটি আদিবাসী অধ্যুষিত আলিরাইপুর গ্রামের। এই ঘটনার নিন্দা হচ্ছে নেট দুনিয়া জুড়ে। ঘটনার নিন্দায় ফেটে পড়লেন অভিনেত্রী তথা তৃণমূল-কংগ্রেস প্রার্থী সায়নী ঘোষ।

    পর পর দুটি টুইট করে বিজেপিকে এই ঘটনার জন্য একহাত নিলেন সায়নী। রাজ্যের বাইরে থেকে যে নেতা মন্ত্রীরা বাংলায় ভোটের প্রচারের জন্য আসছেন তাঁদের রাউডি ট্যুরিস্ট গ্যাং বলেও সম্বোধন করেন তিনি। সায়নী লিখেছেন, "রাউডি ট্যুরিস্ট গ্যাং এর জন্য বাংলার তরফ থেকে একটিই বার্তা রয়েছে। যারা নিজের রাজ্যের মেয়েদের সম্মান রক্ষা করতে পারে না তারা বাংলার মানুষের থেকে এক ইঞ্চিও সহানুভূতি পাবে না। আরও একটি ভয়ানক ঘটনা মধ্য়প্রদেশে।"

    মধ্য়প্রদেশের এই ঘটনায় ধর্ষিতাকে যখন দড়ি দিয়ে বেঁধে ঘোরানো হচ্ছে তখন গ্রামবাসীরা ভারত মাতা কি জয় স্লোগানও তোলেন। সায়নী টুইটে লিখেছেন, "এভাবেই বিজেপি নিজের মাতৃভূমির জয়ধ্বনি তোলে। সোনার মধ্যপ্রদেশে ওই মেয়েটির অধিকারের মতোই ভারত মাতারও হাজার বার মৃত্যু হয়ে গিয়েছে। এর পরেও জানতে চান, কেন বিজেপিকে বাংলার চাই না?"

    প্রসঙ্গত মধ্যপ্রদেশের এই ঘটনায় ক্ষোভে ফুঁসছে সারা দেশের মানুষ। নেটদুনিয়া জুড়ে নিন্দার ঝড় উঠেছে। জানা গিয়েছে, ১৬ বছরের এক কিশোরী ধর্ষণের শিকার হয়। ঘটনার কথা জানাজানি হওয়ার পরে চিহ্নিত হয় ধর্ষক। এরপর ধর্ষিতা ওই ১৬ বছরের কিশোরী এবং ধর্ষককে প্রবল মারধর করা হয়। ‌‌

    এরপর একসঙ্গে দড়ি দিয়ে বেঁধে গোটা গ্রাম ঘোরানো হয়। ওঠে 'ভারত মাতা কি জয়' স্লোগান। ভিডিওতে এই গোটা ঘটনার সময় বেশ কয়েকজন তাদের সঙ্গেই গ্রাম ঘুরতে দেখা যায়। পুলিশ তাদের মধ্যে থেকে ছ'জনকে চিহ্নিত করে। সেই ৬ জন এবং ধর্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে। এই গ্রামবাসীদের মধ্যে ছিল নির্যাতিতার পরিবারেও এক সদস্য, সে কিশোরীকে হাঁটতে বাধ্য করে।

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published: