corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘নেগেটিভ চরিত্র আমি ইচ্ছা করেই বেছে নিই, তবে রোম্যান্স করতেও ইচ্ছা করে’, মন খুললেন ‘মন্মথ’

‘নেগেটিভ চরিত্র আমি ইচ্ছা করেই বেছে নিই, তবে রোম্যান্স করতেও ইচ্ছা করে’, মন খুললেন ‘মন্মথ’

‘রাণি রাসমণি’তে আমার যে মা, মানে ‘পদ্মমণি’র সঙ্গে তো আমার একেবারে ‘মা কা বেটা’ রিলেশন। জমিয়ে আড্ডা দিলেন সায়ক ।

  • Share this:

পরপর ১৬ টা সিরিয়ালে কাজ । তবু হিরো হওয়ার বাসনা নেই । প্রধান চরিত্র না পেয়েও খুশি । ‘রাণি রাসমণি’র পাঠ শেষ করে এখন ‘কাদম্বিনী’তে । করোনা পজিটিভ হয়ে আপাতত গৃহবন্দী । তবে ১৪ দিনের শেষে এখন তিনি একেবারে সুস্থ । সুযোগ পেয়ে News18 বাংলার সঙ্গে মন খুলে আড্ডা দিলেন সায়ক চক্রবর্তী

প্র: পর্দায় এত ‘খারাপ লোক’ কেন বলতো তুমি?

উ: কারণ আমি নিজেই নেগেটিভ চরিত্রটা বেছে নিই। (অট্টহাসি)

প্র: রাস্তায় লোকে দেখলে কি তেড়ে মারতে আসে?

উ: ‘রাসমণি’র মহীন’কে দেখলে সবাই ছবি তুলতে আসতো । আর এখন তো রাস্তায় বেরলে কেউ চিনতেই পারে না । মাস্ক পরা থাকে তো ।

প্র: রোম্যান্টিক হিরো হতে ইচ্ছা করে না?

উ: হিরো হতেই ইচ্ছা করে না । তবে রোম্যান্টিক সিন করতে ইচ্ছে তো করেই ।

প্র: ভিলেনের চরিত্র করলে কি ভয় থাকে দর্শকের মনে নেগেটিভ প্রভাব পড়ার?

উ: এখন দর্শক অনেক স্মার্ট । অভিনয় ভাল লাগলে সোশ্যাল মিডিয়ায় মেসেজ করেন তাঁরা । সে খারাপ চরিত্র হোক আর ভাল চরিত্র, যাই হোক না কেন ।

 ‘রাণি রাসমণি’র সেটে সকলের সঙ্গে ।
‘রাণি রাসমণি’র সেটে সকলের সঙ্গে ।

প্র: ব্যাক-টু-ব্যাক জনপ্রিয় ধারাবাহিকে কাজ... রহস্যটা কী?

উ: রহস্য বলতে একটাই...আমার এত বছরের স্ট্রাগল । একটু একটু করে শিখে চলেছি । আরও অনেক দূর যেতে হবে ।

প্র: শূন্য থেকে শুরু করে আজ কলকাতায় নিজের ফ্ল্যাট... এত পরিচিতি.... কেমন ছিল জার্নিটা?

উ: সারাজীবন ভাড়া বাড়িতে কাটিয়েছি । নিজের রোজগারে ফ্ল্যাট কিনে, সেখানে মা’কে নিয়ে থাকা...এটা সত্যি কখনও ভাবিনি । মানুষের ভালভাসা আমার কাছে সত্যিই আশীর্বাদ । ২০০৮ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত মা-দাদা-আমি, সকলে মিলে অনেক পরিশ্রম করেছি । একটাই স্বপ্ন দেখতাম, মা টিভির পর্দায় আমাকে দেখছেন ।

প্র: অভিনয় না করলে কী করতে....

উ: অভিনয় না করলে আর কিছু করার অপশন ছিল না আমার কাছে । কারণ এটাই যে আমার স্বপ্ন ।

প্র: ‘রাসমণি’র সেটে সবচেয়ে বেশি ঝগড়া কার সঙ্গে ছিল?

উ: ‘রাসমণি’তে ঝগড়া করার মতো কাউকে খুঁজেই পেতাম না । সবাই এত ভাল মানুষ...তাঁদের সঙ্গে কাজ করতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করতাম । আর ধারাবাহিকে আমার যে মা, মানে ‘পদ্মমণি’ (দিয়া চক্রবর্তী)-র সঙ্গে তো একেবারে ‘মা কা বেটা’ রিলেশন। (হাসি)

 ‘কাদম্বিনী’র সেটে শ্যুটিংয়ের ফাঁকে ।
‘কাদম্বিনী’র সেটে শ্যুটিংয়ের ফাঁকে ।

প্র: মহেন বা মন্মথ, ব্যক্তি সায়কের থেকে কতটা আলাদা?

উ: একদম আলাদা । আমি সবাইকে যথাসম্ভব সম্মান দিয়ে কথা বলার চেষ্টা করি । আর ‘রাণি রাসমণি’র মহেন বা ‘কাদম্বিনী’র মন্মথ একেবারেই এর উল্টো ।

প্র: দুই চ্যানেলে একই ধারাবাহিক নিয়ে অনেক বিতর্ক হয়েছে... একটা ঐতিহাসিক চরিত্র সম্পূর্ণ আলাদা ভাবে দু’জায়গায় প্রজেক্ট হচ্ছে । তুমি নিজে তার মধ্যে একটি ধারাবাহিকে অভিনয় করছো... এ বিষয়ে তোমার কী মত?

উ: দেখো, দু’টো ধারাবাহিকের সকলেই অক্লান্ত পরিশ্রম করে । দর্শক না দেখলে সত্যিই খুব কষ্ট হয় । আমি চাই দর্শক দু’টোই দেখুন । আমি একটায় কাজ করি বলে অন্যটাকে খারাপ বলবো, এমন মানসিকতা সত্যি আমাদের কারও নেই ।

প্র: পরপর তিনটি চরিত্রই ঐতিহাসিক বা সাহিত্য নির্ভর ধারাবাহিকে... টাইপ কাস্ট হওয়ার ভয় থাকছে কি?

উ: একদমই না । প্রথম ‘সিরাজের বেগম’-এ খঁ হয়েছিলাম । সেটা একটু মেয়েলি চরিত্র ছিল । এরপর মহেন...যে কিনা তাঁর বউ’কে সহ্য করতে পারে না...আবার মন্মথ গোঁড়া হিন্দু ধর্মে বিশ্বাসী । তাঁর দিকে কোনও মেয়ে চোখ তুলে তাকাবে এটা তাঁর পছন্দ নয় । তিনটে তিনরকম, তাই ভয় নেই । (হাসি)

প্র: মেগা তো অনেক ক’টা হল... এ বার কী একটু অন্য মাধ্যমে দেখতে পাব?

উ: আমার কোনও কন্টাক্ট নেই অন্য কোনও মাধ্যমে । সুযোগ পেলে নিশ্চয়ই করব ।

প্র: কোনও ব্যাকআপ ছাড়া ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ পাওয়ার সুযোগ কতটা?

উ: সময় লাগবে । তবে যদি মন থেকে কেউ চায়, আর সৎ পথে থাকে, সুযোগ ঠিক আসবেই ।

 ‘রাণি রাসমণি’র সেটে সকলের সঙ্গে ।
‘রাণি রাসমণি’র সেটে সকলের সঙ্গে ।

প্র: কতগুলো প্রেম আর কতগুলো বিয়ের প্রস্তাব এল?

উ: চারটে প্রেম করেছি । একটাও টেঁকেনি । তবে প্রস্তাব তো প্রায় রোজই আসতেই থাকে । (হো হো করে হাসি)

প্র: প্রেম, বিয়ে নাকি ওয়ান নাইট স্ট্যান্ড?

উ: অবশ্যই প্রেম ।

 করোনা আবহে ‘কপালকুণ্ডলা’র সেটে ।
করোনা আবহে ‘কপালকুণ্ডলা’র সেটে ।

প্র: ভবিষ্যতে নিজেকে কোন জায়গায় দেখলে খুশি হবে?

উ: যদি কোনওদিন আমি বড় অভিনেতা হয়ে যাই, আমার মধ্যে যেন কোনও অহঙ্কার না আসে । আর যেন মায়ের চোখে কোনওদিন জল না আসে । আর দুঃস্থ মানুষদের পাশে যেন নিজের সামর্থ্য নিয়ে সবসময় দাঁড়াতে পারি ।

Published by: Simli Raha
First published: September 15, 2020, 1:15 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर