Dev: 'অসুস্থ বাবার কিছু হলে অনাথ হয়ে যাব', ছোট্ট তিতলির কাতর আবেদন, মুহূর্তে হাত বাড়ালেন দেব...

ফের মানবিক দেব।

ছোট্ট তিতলির কাতর আবেদন। সাহায্য করতে এগিয়ে এলেন সাংসদ-অভিনেতা দেব (Actor Dev)। দেবের কাজে খুশি নেটদুনিয়া।

  • Share this:

#কলকাতাঃ তিতলির কাতর আবেদন। সাহায্য করতে এগিয়ে এলেন সাংসদ-অভিনেতা দেব (Actor Dev)। দেবের কাজে খুশি নেটদুনিয়া। আরও একবার তার মানবিকতার প্রমাণ মিলল।

রবিবার বিকেলে জনৈক নিলঞ্জিত (Nilonjit Gain) নামে এক ব্যক্তি ট্যুইটারে একটি ভিডিও পোস্ট করেন। সেই ভিডিওতে দেখা যায় একটি ১০-১২ বছরের মেয়ে বসে রয়েছে তার অসুস্থ বাবার পাশে৷ বাচ্চাটির নাম তিতলি। চুঁচুড়ার অন্তর বাগানের বাসিন্দা। তার বাবা জটিল রোগে আক্রান্ত। বাবার নাম সন্দীপ দত্ত। প্রতিদিন ওষুধের পাশাপাশি তাদের পরিবারের প্রয়োজন খাবার। অর্থের অভাবে খাবার ও ওষুধের বিপুল খরচ চালানো সম্ভব হচ্ছে না। এমনকি বাচ্চাটিকেও বলতে শোনা যায় সে তার বাবার মেডিকেল রিপোর্ট দেখাতেও রাজি সে। ভিডিওতে শিশুটিকে বলতে শোনা যায়, বাবা ছাড়া তার কেউ নেই। তাই বাবার যদি কিছু হয়ে গেলে অনাথ হয়ে যাবে সে। তাই বাবাকে সুস্থ করে তুলতে সাহায্য চাইছে।

ট্যুইটারে পোস্ট করা এই ভিডিওতে ট্যাগ করা হয়েছিল @KBanerjee_AITC অর্থাৎ সাংসদ কল্যাণ বন্দোপাধ্যায়কে, যিনি শ্রীরামপুরের সাংসদ। ট্যাগ করা হয়েছিল হুগলির দুই মন্ত্রী এবং আর এক প্রাক্তন মন্ত্রী যিনি ওই এলাকার বাসিন্দা, পাশের বিধানসভার বিধায়ক যথাক্রমে র‍ত্না দে নাগ, বেচারাম মান্না ও তপন দাশগুপ্তকেও। কিন্তু সবার প্রথমে সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসেন সাংসদ অভিনেতা দেব। দেব ওই ভিডিও পোস্টটিকে রিট্যুইট করে লিখেছেন, "ইতিমধ্যেই তার টিম যোগাযোগ করেছে তিতলির পরিবারের সঙ্গে।"

যিনি এই ভিডিওটি পোস্ট করেছেন সেই নিলঞ্জিতকেও ধন্যবাদ জানিয়েছেন দেব। দেবের এই তৎপরতা দেখে খুশি নিলঞ্জিত। তিনি জানিয়েছেন, "তোমার ব্যক্তিত্ব বরাবরই আমার খুব প্রিয়। তোমার মতো যেন মানুষের পাশে সব সময়ই থাকতে পারি। আশীর্বাদ করো।" করোনা পরিস্থিতিতে একাধিক মানুষ তথা পরিবারকে সাহায্য করছেন দেব। নিজের সংসদীয় এলাকা ঘাটালে চালু করেছেন কোভিড পজিটিভ রোগীদের খাবার পাঠানোর ব্যবস্থা। একই ব্যবস্থা চালু করেছেন কলকাতাতেও। এবার একটি  বাচ্চার বাবাকে বাঁচানোর কাতর আর্তিতে তিনি এগিয়ে এলেন। নেটিজেনদের কোথায়, দেব শুধু পর্দার নয়, বাস্তবেরও হিরো।

ABIR GHOSHAL

Published by:Shubhagata Dey
First published: