কী কাণ্ড! অন্তরঙ্গ সিনের আগে রাধিকা আপ্তের কাছে শেষে কি না ‘এই কথা’ বলেছিলেন অভিজ্ঞ অভিনেতা!

কী কাণ্ড! সেক্স করার আগে রাধিকা আপ্তের কাছে শেষে কি না এই কথা জানতে চেয়েছিলেন আদিল হুসেন!

আদিলের নিজের একটা খুঁতখুঁতুনি ছিল।

  • Share this:

#মুম্বই: Me Too আন্দোলন যখন বলিউডকে নাড়িয়ে দিয়েছে, যখন নানা অভিনেত্রী জানাচ্ছেন যে যৌনদৃশ্যে অভিনয় করার সময়েও কী ভাবে তাঁদের সঙ্গে অশালীন আচরণ করা হয়েছে, তখন বর্ষীয়ান বলিউড অভিনেতা দলীপ তাহিল (Dalip Tahil) একটা বিস্ফোরক মন্তব্য করেছিলেন! তিনি বলেছিলেন যে যতই অভিনয় হোক না কেন, বিষয়টি স্পর্শকাতর! খলনায়কের চরিত্রে অনেক বার তাঁকে ধর্ষণের দৃশ্যে অভিনয় করতে হয়েছে। তাই এমন দৃশ্যে অভিনয়ের আগে তিনি অভিনেত্রীর লিখিত সম্মতি আদায় করে নিতে ভোলেন না! লীনা যাদবের (Leena Yadav) পার্চড (Parched) ছবির যৌনদৃশ্যে অভিনয় করতে গিয়েও কি এমন কোনও পদক্ষেপ করেছিলেন আদিল হুসেন (Adil Hussain)?

আদিল যা বলছেন, তার থেকে একটা ব্যাপার বেশ স্পষ্ট! তাঁর স্ত্রীর এই স্বামীর যৌনদৃশ্যে অভিনয় নিয়ে কোনও আপত্তি ছিল না। তবে আদিলের নিজের একটা খুঁতখুঁতুনি ছিল। সেটাকে খুঁতখুঁতুনি না বলে বেয়াড়া কৌতূহলও অবশ্য বলা যায়। বা বলা যায় নিছক রসিকতা! যাই হোক, এই নিয়ে তিনি দৃশ্যটি শ্যুট করার আগে ছবির অন্যতম প্রধান অভিনেত্রী রাধিকা আপ্তের (Radhika Apte) সঙ্গে একটা খুচরো আলোচনা সেরে নিতে ভোলেননি। তিনি রাধিকার কাছে জানতে চেয়েছিলেন যে এই দৃশ্য দেখার পরে তাঁর বয়ফ্রেন্ড কী ভাবেন, সেটা নিয়ে রাধিকা ভেবেছেন কি না! রাধিকা এর উত্তরে জানান যে তিনি বিবাহিতা এবং এক প্রশ্ন আদিলের স্ত্রীর বিষয়ে প্রকাশ করেন। এর উত্তরে আদিল জানান যে তাঁর স্ত্রী এই ব্যাপারে অস্বচ্ছন্দবোধ করবেন না!

নিজের মুখেই সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে একথা স্পষ্ট করেছে আদিল। তিনি বলেছেন যে তাঁর স্ত্রী বরং তাঁকে উৎসাহ দিয়েছিলেন, বলেছিলেন যে আদিল যেন জড়তা ঝেড়ে ফেলে ভালো করে অভিনয় করেন। পাশাপাশি, তিনি রাধিকাকেও শিল্পের প্রতি নিবেদিতপ্রাণ এক অভিনেত্রী বলে তকমা দিয়েছেন। জানিয়েছেন যে অভিনেতারা যদি হত্যার দৃশ্যে অভিনয় করতে কুণ্ঠাবোধ না করে, তাহলে যৌনদৃশ্য নিয়েও কোনও ছুঁৎমার্গ থাকা উচিত নয়!

ভুল কিছু বলেননি আদিল! তবে অভিনয়ের আগে আচমকা কেন রাধিকার জীবনের পুরুষ নিয়ে তিনি কৌতূহলী হয়ে পড়লেন, তা বোঝা দায়!

Published by:Debalina Datta
First published: