Retail Shops Timing : বাড়ল খুচরো দোকান খোলা রাখার সময়সীমা, কতক্ষণ চালানো যাবে বিকিকিনি? জানুন...

কতটা বাড়ল সময়সীমা? প্রতীকী ছবি

আজ বণিক সভার সংগঠনগুলির (Chamber Of Commerce and Industries Associations) সঙ্গে বৈঠকের পরে খুচরো দোকান (Retail Shops) খোলার সময়সীমা আরো বাড়াল রাজ্য সরকার। এতদিন তিন ঘণ্টা দোকান খোলা রাখার অনুমতি দিয়েছিল নবান্ন। এবার তা বেড়ে দাঁড়াল চার ঘণ্টা।

  • Share this:

    #কলকাতা : রাজ্যে কার্যত লকডাউনে বিধিনিষেধে আরও খানিক বদল ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। কিছুদিন আগেই খুচরো দোকানের (Retail Shops) সময় বেঁধে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। আজ বণিক সভার সংগঠনগুলির (Chamber Of Commerce and Industries Associations) সঙ্গে বৈঠকের পরে খুচরো দোকান (Retail Shops) খোলার সময়সীমা আরো বাড়াল রাজ্য সরকার। এতদিন তিন ঘণ্টা দোকান খোলা রাখার অনুমতি দিয়েছিল নবান্ন। এবার তা বেড়ে দাঁড়াল চার ঘণ্টা। কখন থেকে কখন পর্যন্ত খুলতে পারবেন দোকান, তা নিজেই জানালেন মমতা।

    বুধবার নবান্নে চেম্বার্স অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশানসের সঙ্গে বৈঠক করছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে দাবি তোলা হয়, এখন যে সময় খুচরো দোকান খোলা হচ্ছে, সেই সময় বেশি বিক্রিবাটা হচ্ছে না। তাই সন্ধ্যায় দোকান খোলা রাখার অনুমতি দিলে সুবিধা হয়। সেই আর্জি মেনেই কার্যত সময়সীমায় কিছুটা ছাড় দেওয়া হয়।

    আগেই খুচরো দোকান খোলার সময়সীমা পরিবর্তনের আর্জি জানানো হয়েছিল। তবে সেই আর্জি পুরোপুরি অনুমোদন দিলেন না মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে খুচরো দোকান খোলার সময়সীমা সামান্য বাড়ানো হল। মমতা জানান, বেলা ১২ টা থেকে বিকেল ৪ টে পর্যন্ত খুচরো দোকান খোলা রাখা যেতে পারে। এতদিন বেলা ১২ টা থেকে দুপুর ৩ টে পর্যন্ত খুচরো দোকান অনুমতি ছিল।

    প্রসঙ্গত, এদিন বিকেল পাঁচটা থেকে আটটা পর্যন্ত রাজ্যের হোটেল-রেস্তোরাঁ খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছেন মমতা। তিনি বলেন, "হোটেল বন্ধ থাকুক এমন আমরা চাই না। তবে সমস্ত হোটেল কর্মীকে ভ্যাকসিন দিতে হবে। আর সেই কাজে রাজ্য বণিক সংস্থাগুলোর সাহায্য চাইছি।" একইসঙ্গে তিনি বলেন, সমস্ত করোনা সংক্রান্ত বিধি নিষেধ মেনেই একমাত্র হোটেল-রেস্তোরাঁ খোলা রাখা যাবে। করোনা বিধি নিষেধ পালনে কোনও খামতি রাখা যাবে না বলেই স্পষ্ট জানিতে দেন মমতা।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: