Antibody Cocktail Therapy in Kolkata: এবার কলকাতাতেও শুরু হল অ্যান্টিবডি ককটেল থেরাপি, কেমন আছেন দুই করোনা রোগী?

এবার কলকাতাতেও শুরু হল অ্যান্টিবডি ককটেল থেরাপি, কেমন আছেন দুই করোনা রোগী?

সুইজারল্যান্ডের মূল সংস্থা দ্বারা পোষিত রোশে ইন্ডিয়া (Roche India) এবং সিপলা লিমিটেড (Cipla Limited) ভারতে নিয়ে এসেছে অ্যান্টিবডি ককটেল (Antibody Cocktail Therapy in Kolkata)।

  • Share this:

#কলকাতা: দেশের বাজারে কিন্তু এর আগেই শুরু হয়ে গিয়েছিল কোভিড ১৯ ভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাহত করার লক্ষ্যে অ্যান্টিবডি ককটেল থেরাপি (Antibody Cocktail Therapy in Kolkata)। দেশের যে সব শহর আপাতত এই পদ্ধতির সাহায্যে দ্রুত সুস্থ করে তুলছে করোনায় আক্রান্তকে, সম্প্রতি সেই তালিকায় এবার নাম লেখাল কলকাতাও। শনিবার নারায়ণ মেমোরিয়ার হসপিটাল (Narayan Memorial Hospital) এক সাংবাদিক বৈঠক মারফত জানিয়েছে যে এই প্রতিষ্ঠানে দুই কোভিড ১৯ সংক্রমিত রোগীর শরীরে অ্যান্টিবডি ককটেল থেরাপি প্রয়োগ করা হয়েছে, তাঁরা একদম সুস্থ আছেন এবং এগিয়ে চলেছেন দ্রুত আরোগ্যের পথে।

চিকিৎসক এবং বিজ্ঞানীদের দেওয়া খবর বলছে যে দেশে করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গ আপাতত এসে দাঁড়িয়েছে শেষের মুখে। কিন্তু শেষের পরে যেমন আরেকটা শুরু থাকে, ঠিক তেমন করেই এবার নাগরিকদের স্বাস্থ্যে থাবা বসাতে চলেছে মারণ এই ভাইরাসের তৃতীয় তরঙ্গ। ফলে, আপাতত দেশ জুড়ে কেবল স্বাস্থ্যব্যবস্থার একটাই লক্ষ্য- ভ্যাকসিনের মাধ্যমে সম্মিলিত রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলা এবং যত দ্রুত সম্ভব রোগীকে সারিয়ে তোলা- তাহলেই ভাইরাসের আক্রমণের সঙ্গে একমাত্র পাল্লা দেওয়া সম্ভব হবে। সেই লক্ষ্যে কিছু দিন আগেই সুইজারল্যান্ডের মূল সংস্থা দ্বারা পোষিত রোশে ইন্ডিয়া (Roche India) এবং সিপলা লিমিটেড (Cipla Limited) ভারতে নিয়ে এসেছে অ্যান্টিবডি ককটেল। এবার তার প্রয়োগ শুরু হল কলকাতায় নারায়ণ মেমোরিয়াল হসপিটালের হাত ধরে।

এই প্রসঙ্গে প্রতিষ্ঠানের সিইও সুপর্ণা সেনগুপ্ত (Suparna Sengupta) জানিয়েছেন যে রোগীর পরিষেবায় তাঁরা সিপলার সহায়তা পেয়ে আপ্লুত। বস্তুত, সিপলার হাত ধরেই অ্যান্টিবডি ককটেলের জোগান পেয়েছে কলকাতা। প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত চিকিৎসক শুভ্রজ্যোতি ভৌমিক (Subhrojyoti Bhowmick) জানিয়েছেন যে মৃদু থেকে মাঝারি উপসর্গযুক্ত প্রাপ্তবয়স্ক এবং ১২ বছরের ঊর্ধ্বে ৪০ কেজির উপরে যাঁদের ওজন, এই উভয় ক্ষেত্রেই অঅযান্টিবডি কটেল প্রয়োগ করা যাবে। এই পদ্ধতি প্রয়োগ করলে রোগীর অক্সিজেনের দরকার পড়বে না।

প্রসঙ্গত, অ্যান্টিবডি ককটেল তৈরি হয়েছে ক্যাসিরিভিম্যাব (Casirivimab) এবং ইমডেভিম্যাব (Imdevimab) নামের দুই অ্যান্টিবডির সংমিশ্রণে। এই দুই অ্যান্টিবডি ল্যাবরেটরিতে একসঙ্গে মিলিয়ে এই ওষুধ তৈরি হয়। প্রয়োগের পর এই যৌথ অ্যান্টিবডি যেমন শরীরে ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করে তাকে নিস্তেজ করে দেয়, তেমনই কোষে ভাইরাস সংক্রমণের পথটিও রোধ করে। জানা গিয়েছে যে এর সিঙ্গল ডোজের খরচ আপাতত দেশে পড়ছে ৫৯,৭৫০ টাকা!

Published by:Raima Chakraborty
First published: