Howrah: ঘরে বসেই পেলেন ভ্যাকসিন, টিকার হাহাকার আর প্রতারণায় ক্ষুব্ধ শতায়ু সনাতন

টিকা নিচ্ছেন সনাতন চট্টোপাধ্যায়৷

হাওড়া (Howrah) পুরসভার ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাম আমলের প্রাক্তন পুরপিতা তথা ভারতীয় রেলের অবসরপ্রাপ্ত কর্মী সনৎ বাবু ৷

  • Share this:

#হাওড়া: বয়স 'মাত্র' ১০০ বছর৷ বাড়িতে বসেই করোনার ভ্যাকসিন নিলেন সনৎ কুমার চট্টোপাধ্যায়৷ কিন্তু নিজে ঘরে বসে ভ্যাকসিন পেলেও টিকা নিয়ে হাহাকার ও প্রতারণার খবরে বেজায় ক্ষুব্ধ শতায়ু এই 'যুবক'৷

হাওড়া পুরসভার ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাম আমলের প্রাক্তন পুরপিতা তথা ভারতীয় রেলের অবসরপ্রাপ্ত কর্মী সনৎ বাবু ৷ তিন ভাই ছিলেন সনৎ বাবুরা, সনৎ বাবুর দাদা ৯২ বছর বয়সেই মারা যান৷ প্রয়াত হয়েছেন ছোট ভাইও৷ বয়স যে শুধুমাত্র একটা সংখ্যা তা সনৎবাবুকে দেখলে বোঝা যায়৷

তিনি লড়েছেন স্বাধীনতা সংগ্রামের লড়াই , লড়াই করেছেন রাজনৈতিক ময়দানেও৷ দেখেছেন জরুরি অবস্থা৷ কিন্তু জীবদ্বশায় এই করোনা মতো রোগের প্রাদুর্ভাব ও সেই কারণে এই বিশ্বজুড়ে লকডাউন দেখবেন তা কোনও দিনই ভাবেননি৷

সনৎ বাবুর কথায়, 'ভ্যাকসিন তো ছোটবেলায় বাবা মার হাত ধরে নিয়েছিলাম একবার৷ আবার জীবদ্বশায় ভ্যাকসিন নিতে হবে তা চিন্তাও করতে পারিনি৷'  এখনও সনৎ বাবু নিয়মিত খবরের কাগজ পড়া থেকে হেঁটে চলে  বেড়ানো সবই করেন অবলীলায়৷ রোগ বলতে বছর কয়েক আগে হৃদযন্ত্রে বসেছে পেসমেকার৷ তবে এখনও নিয়ম করে কোনও ওষুধ খেতে হয় না৷ ঠিক করেছিলেন ভ্যাকসিন নেবেন না৷ কিন্তু সমাজকে করোনা মুক্ত করতেই তার এই পদক্ষেপ৷  আর তার এই ইচ্ছায় পাশে দাঁড়ালো হাওড়া পুরসভা৷

সরকারের দুয়ারে ভ্যাকসিন প্রকল্পে হাওড়া পুরসভার স্বাস্থ্য কর্মীরা সোমবার সকালে হাওড়া সনাতন মিস্ত্রি লেনের বাড়িতে গিয়ে ভ্যাকসিন দিয়ে এলেন | ভ্যাকসিন নিয়ে যেমন খুশি সনৎ বাবু ঠিক একই একই রকম ভাবে খুশি স্বাস্থ্য কর্মী দেবযানী দেবীও | কর্মজীবনে শিশু থেকে বৃদ্ধ সবাইকে ইঞ্জেকশন দিয়েছেন কিন্তু একেবারে শতায়ু কোনও ব্যক্তিকে এই প্রথম টিকা দিলেন তিনি৷ দেবযানী দেবীর কথায়, 'ওনাকে বৃদ্ধ বলব না যুবক বলব বুঝতে পারছি না৷ এমন মানুষের সংস্পর্শে আসতে পেরে আমি সত্যিই গর্বিত৷'

Published by:Debamoy Ghosh
First published: