রাজভবনের সামনে ধর্নায় বসার হুঁশিয়ারি দিলেন কংগ্রেস-জেডিএস বিধায়করা

Sarmita Bhattacharjee | News18 Bangla
Updated:May 16, 2018 07:40 PM IST
রাজভবনের সামনে ধর্নায় বসার হুঁশিয়ারি দিলেন কংগ্রেস-জেডিএস বিধায়করা
Photo: News 18 Hindi
Sarmita Bhattacharjee | News18 Bangla
Updated:May 16, 2018 07:40 PM IST

#বেঙ্গালুরু: আগামিকাল বেঙ্গালুরুতে রাজভবনের বাইরে ধর্নায় বসার হুঁশিয়ারি দিলেন কংগ্রেস এবং জেডি(এস)-র বিধায়করা ৷ রাজ্যপাল বাজুভাই ভালার সঙ্গে সাক্ষাৎ করার আবেদন জানিয়েছেন বিধায়করা ৷ কিন্তু সেই আবেদনেই সাড়া দেননি রাজ্যপাল ৷ এদিকে, আগামিকালই ইয়েদুরাপ্পাকে কর্ণাটকে সরকার গঠনের জন্য ডাকতে পারেন রাজ্যপাল ৷ এতেই দেখা দিয়েছে বিপত্তি ৷ যদি কংগ্রেস-জেডি(এস)-র বিধায়কদের সঙ্গে আগামিকালও সাক্ষাৎ না করেন রাজ্যপাল ৷ তাহলেই রাজভবনের বাইরে ধর্নায় বসবেন বিধায়কেরা ৷

কর্ণাটকে সরকার গঠনের ক্ষেত্রে কে এগিয়ে ? সেই বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক চলছেই ৷ কংগ্রেস-জেডিএস নাকি বিজেপি ? উভয় সরকারই কর্ণাটকে সরকার গঠনের ক্ষেত্রে তৎপর ৷ এক্ষেত্রে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে উঠে এসেছে কুমারস্বামী এবং ইয়েদুরাপ্পার নাম ৷ কিন্তু এক্ষেত্রে বেশ কিছুটা এগিয়ে রয়েছেন ইয়েদুরাপ্পা ৷ সূত্রের খবর, ইয়েদুরাপ্পাকেই সরকার গঠনের জন্য আগামিকাল ডাকতে পারে রাজ্যপাল বাজুভাই ভালা ৷ আর শুক্রবার মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার শপথ গ্রহণ করতে পারেন ইয়েদুরাপ্পা ৷ আর এতেই বিতর্ক চরমে ওঠে ৷

কংগ্রেস নেতা গুলাম নবি আজাদ বলেন, ‘বুধবার সকালে ১২টা নাগাদ রাজ্যপালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করার আবেদন জানিয়েছি ৷ কিন্তু সারাদিন কেটে গেলেও রাজ্যপালের তরফে কোনও প্রত্যুত্তর আসেনি ৷’ একইসঙ্গে তিনি আরও জানিয়েছেন, ‘ রাজ্যপাল সংবিধান বিরোধী কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না ৷ এক্ষেত্রেও আশা করি রাজনীতির আঙিনা থেকে বেরিয়ে এসেই সঠিক সিদ্ধান্ত নেবেন তিনি ৷ আর তা যদি না হয় তাহলে আমরা রাজভবনের সামনে ধর্নায় বসব ৷’

গতকালই কর্ণাটকের বিধানসভা নির্বাচনের গণনা হয়েছে ৷ যেখানে ১০৪টি আসনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে জয়ের আসনে বসেছে বিজেপি ৷ কিন্তু এক্ষেত্রে ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছতে ব্যর্থ হয়েছে বিজেপি আটটি আসনের জন্য ৷ অপরদিকে, কংগ্রেসের ঝুলিতে এসেছে ৭৮ টি আসন এবং জেডি(এস)-র প্রাপ্তি ৩৭ টি আসন ৷ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলেও ম্যাজিক ফিগারে না পৌঁছানোর জন্য সরকার গঠনের ক্ষেত্রে তৎপর রয়েছে জেডি(এস)-ও ৷ তবে, এই সমস্ত বিষয়টিই নির্ভর করছে রাজ্যপালের উপর ৷ সেই আর্জি জানাতেই কংগ্রেস-জেডিএস সমর্থকেরা রাজ্যপালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে শেষ চেষ্টা করবেন বলে মত রাজনৈতিক মহলের ৷

এদিকে, বিজেপিকে কর্ণাটকে সরকার গড়তে দিতে নারাজ কংগ্রেস ৷ আর সেই কারণেই সর্বক্ষণ জেডি(এস)-কে বিজেপির ‘বি-টিম’ বলা স্বত্ত্বেও তাদের সঙ্গেই হাত মিলিয়েছে কংগ্রেস ৷ তাই বিজেপিকে রুখতে মরিয়া কংগ্রেস-জেডি(এস) ৷

এই সমস্ত রাজনৈতিক ডামাডোলের মাঝেই আবার ১০০ কোটি টাকার টোপ দিয়ে বিধায়ক কেনার চেষ্টা করছে বিজেপি ৷ কুমারস্বামীর এমন একটা অভিযোগেও সরগরম হয়ে ওঠে কর্ণাটক রাজনীতি ৷ এইচ ডি কুমারস্বামী এদিন সাংবাদিকদের বলেন, ‘বিধায়ক কেনার চেষ্টা করছে বিজেপি ৷ বিধায়ক ভাঙাতে ১০০ কোটি টাকার টোপ দিচ্ছে ৷ মন্ত্রিত্ব দেওয়ার লোভ দেখাচ্ছে ৷’ যদিও জেডিএস-র এই অভিযোগকে অস্বীকার করেছে বিজেপি ৷

First published: 07:40:31 PM May 16, 2018
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर