Home /News /business /
Price of Rupee Falling: সর্বকালে সর্বনিম্নে এসে ঠেকল টাকার দাম, কিন্তু কেন?

Price of Rupee Falling: সর্বকালে সর্বনিম্নে এসে ঠেকল টাকার দাম, কিন্তু কেন?

Price of Rupee Falling: শুক্রবার বাজার বন্ধের সময় ভারতীয় মুদ্রা টাকা মার্কিন ডলারের বিপরীতে ১ পয়সা কমে ৭৭.৮৫-এ নেমে আসে, যা সর্বকালের সর্বনিম্ন।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: যে কোনও দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার (Economic Condition) একটি প্রধান সূচক হল এর মুদ্রা (Currency)। বৈশ্বিক পরিস্থিতির কারণে গত কয়েক মাস ধরে মার্কিন ডলারের (US Dollar) দাম বাড়ছে এবং ভারতীয় মুদ্রা টাকার (Rupee) দাম কমছে। সোমবার সকালে ডলারের বিপরীতে টাকার দাম ৭৮ -এ নেমে যায়। সোমবার, বাজার খোলার পর টাকার দাম ডলারের তুলনায় দাঁড়িয়েছে ৭৮.১৪। যা শুক্রবার বাজার বন্ধের সময়ের তুলনায় ০.৩৮ শতাংশ কম। ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, আইএফএ গ্লোবাল (IFA Global) রবিবার একটি নোটে বলেছে, "দুর্বল অভ্যন্তরীণ বাজার (Weak Domestic Market,), অপরিশোধিত তেলের (Crude Oil) দাম বৃদ্ধি, ডলার শক্তিশালী হওয়া এবং বিদেশি পুঁজি কমে (Outflow Of Foreign Capital) যাওয়ার কারণে দেশীয় মুদ্রা আগামী সপ্তাহগুলিতে আরও চাপের মধ্যে থাকবে।"

আরও পড়ুন: সপ্তাহের প্রথম দিনেই ১২০০ পয়েন্ট পতনের সঙ্গে খুলল সেনসেক্স!

শুক্রবার বাজার বন্ধের সময় ভারতীয় মুদ্রা টাকা মার্কিন ডলারের বিপরীতে ১ পয়সা কমে ৭৭.৮৫-এ নেমে আসে, যা সর্বকালের সর্বনিম্ন। ট্রেডিং সেশন চলাকালীন টাকার দাম নেমে আসে ৭৭.৯৩-এ, যা এখনও পর্যন্ত সর্বনিম্ন। এই সপ্তাহে ডলারের বিপরীতে টাকার দাম ২১ পয়সা কমেছে। তবে ডলার সূচক ০.২০ শতাংশ বেড়ে ১০৩.৪৩-এ দাঁড়িয়েছে।

আরও পড়ুন: ডেবিট কার্ড ছাড়া ICICI ব্যাঙ্কের এটিএম থেকে তুলতে পারবেন টাকা! দেখে নিন কীভাবে

এখন কারেন্সি মুভমেন্টে (Currency Movement) কী হবে?

বিশ্লেষকরা রবিবার বলেছিলেন যে আগামী কয়েক সেশনে ডলারের বিপরীতে টাকার দাম ৭৮-এর স্তর অতিক্রম করতে পারে। বিশ্লেষকদের অনুমান সত্যি হতে একটি দিনও সময় লাগেনি। সোমবার বাজার খোলার সঙ্গে সঙ্গেই টাকা ৭৮-এর নিচে চলে গিয়েছে। বিশ্লেষকরা বলেছিলেন যে দুর্বল ফান্ডামেন্টালের কারণে আগামী দিনে আরও টাকার পতন হতে পারে। ক্রমবর্ধমান পণ্যের দাম, বিশেষ করে অশোধিত তেলের দাম বৃদ্ধি বাণিজ্য ঘাটতিকে আরও বাড়াতে পারে। যা ইতিমধ্যেই মে মাসে রেকর্ড ২৩.৩ বিলিয়নে পৌঁছে গিয়েছে। এদিকে, ফেডারেল রিজার্ভ হার (Federal Reserve Rate) বৃদ্ধির কারণে বিদেশি তহবিল ভারতীয় বাজার থেকে আরও চলে যেতে পারে, যার ফলে বৃহত্তর পেমেন্ট চক্র ব্যালেন্স হতে পারে।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published:

Tags: Indian Currency, Rupees

পরবর্তী খবর