Home /News /business /

Cryptocurrency: দেশে সুরক্ষিত এবং আইনি ভাবে কী করে চালু রাখা যেতে পারে ক্রিপ্টোকারেন্সি?

Cryptocurrency: দেশে সুরক্ষিত এবং আইনি ভাবে কী করে চালু রাখা যেতে পারে ক্রিপ্টোকারেন্সি?

ব্লকচেন অ্যান্ড ক্রিপ্টো অ্যাসেট কাউন্সিল (BACC) কেন্দ্রীয় সরকারকে জানিয়েছে ক্রিপ্টোকারেন্সির সমস্যা সমাধানের উপায়।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: বিশ্ব জুড়ে প্রবল হারে বেড়েছে ক্রিপ্টোকারেন্সির (Cryptocurrency) বাজার। বর্তমানে প্রায় সকল দেশেই প্রবল জনপ্রিয় ক্রিপ্টোকারেন্সি। ভারতেও ক্রিপ্টোকারেন্সি প্রবল জনপ্রিয়। ভারতে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে ক্রিপ্টোকারেন্সির বাজার। এর ফলে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ক্রিপ্টোকারেন্সির ওপর লাগাতে পারে বিভিন্ন ধরনের বিধিনিষেধ। অনেকে মনে করছে ভারতে বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে ক্রিপ্টোকারেন্সি।

আরও পড়ুন: সুখবর! এই সপ্তাহেই অ্যাকাউন্টে আসতে চলেছে টাকা, দেখে নিন কী করতে হবে

এই জায়গায় দাঁড়িয়ে ভারতের ক্রিপ্টোকারেন্সি ইন্ডাস্ট্রি কেন্দ্রীয় সরকারকে জানিয়েছে এই সমস্যা সমাধানের উপায়। তারা কেন্দ্রীয় সরকারকে জানিয়েছে কী ভাবে ভারতে সুরক্ষিত এবং আইনি ভাবে চালু রাখা যেতে পারে ক্রিপ্টোকারেন্সি। তারা জানিয়েছে যে ভারতে ক্রিপ্টোকারেন্সির ব্যবহারের জন্য লাইসেন্স ব্যবস্থার প্রচলন করতে এবং ভারতে ক্রিপ্টো ট্রেডিংয়ে ব্যবহার করা ফান্ডের ওপর নজর রাখার জন্য বিভিন্ন নিয়ম তৈরি করে ক্রিপ্টোকারেন্সিকে রেগুলেট করতে। মানিকন্ট্রোল মারফত জানা গিয়েছে এই খবর। সেই খবর অনুযায়ী ব্লকচেন অ্যান্ড ক্রিপ্টো অ্যাসেট কাউন্সিল (BACC) কেন্দ্রীয় সরকারকে জানিয়েছে ক্রিপ্টোকারেন্সির সমস্যা সমাধানের উপায়।

আরও পড়ুন: আপনার আধার নম্বর থেকে কতগুলো সিম কার্ড নেওয়া হয়েছে, অনলাইনে এই ভাবে চেক করে নিন....

ভারতের ক্রিপ্টোকারেন্সি সমস্যা সমাধানের উপায়

সংসদীয় স্থায়ী সমিতি ১৫ নভেম্বর ক্রিপ্টো ইন্ডাস্ট্রির সামনে কয়েকটি প্রশ্ন রেখেছিল। এই প্রশ্নের উত্তরেই ব্লকচেন অ্যান্ড ক্রিপ্টো অ্যাসেট কাউন্সিল তাদের উত্তর জানিয়েছে। এর আগে ২৩ নভেম্বর মানিকন্ট্রোল একটি রিপোর্টে জানিয়েছিল যে, বিজেপি সাংসদ জয়ন্ত সিনহার অধ্যক্ষতায় সংসদীয় স্থায়ী সমিতির সামনে ব্লকচেন অ্যান্ড ক্রিপ্টো অ্যাসেট কাউন্সিল লিখিত ভাবে তাদের উত্তর জানাবে।

আরও পড়ুন: সরকারের এই সিদ্ধান্তের জন্য সস্তা হবে হোম লোন, জানুন কেন!

ব্লকচেন অ্যান্ড ক্রিপ্টো অ্যাসেট কাউন্সিল জানিয়েছে যে, ক্রিপ্টোকারেন্সির ট্রেডিং রেগুলেট করার জন্য এবং রিয়েল টাইম ট্রানজাকশন ট্র্যাক করার জন্য কেওয়াইসি (KYC) এবং অ্যান্টি-মানি লন্ডারিং (AML) নিয়মের চালু করতে হবে। এছাড়াও ফরেন এক্সচেঞ্জ ম্যানেজমেন্ট অ্যাক্ট (FEMA) এবং অন্যান্য ট্যাক্স নিয়মের দ্বারা ক্রিপ্টোকারেন্সির স্থিতিতে স্পষ্টতা আনার দাবি জানিয়েছে ব্লকচেন অ্যান্ড ক্রিপ্টো অ্যাসেট কাউন্সিল।

ভারতের আসল কারেন্সিকে চ্যালেঞ্জ করবে না ক্রিপ্টোকারেন্সি

সংসদীয় স্থায়ী সমিতি জানতে চেয়েছিল যে, ক্রিপ্টোকারেন্সির ব্যবহার কি সরকারের নাগালের বাইরে থাকবে! এর উত্তরে ব্লকচেন অ্যান্ড ক্রিপ্টো অ্যাসেট কাউন্সিল স্পষ্টভাবে জানিয়েছে যে, ক্রিপ্টো টেকনোলজির উদ্দেশ্য কোনও দেশের মুদ্রা বা কারেন্সির সঙ্গে প্রতিযোগিতা করা নয়, বরং ক্রিপ্টো টেকনোলজির উদ্দেশ্য হল তাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়া। সূত্র অনুযায়ী জানা যাচ্ছে যে, ব্লকচেন অ্যান্ড ক্রিপ্টো অ্যাসেট কাউন্সিল তাদের উত্তরে জানিয়েছে যে, এখনও পর্যন্ত ভারতের অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে কোনও রকম প্রভাব ফেলেনি ক্রিপ্টোকারেন্সি। কিন্তু ভবিষ্যতের কথা ভেবে ক্রিপ্টোকারেন্সির ওপর নজর দেওয়া দরকার!

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published:

Tags: Cryptocurrency

পরবর্তী খবর