Home /News /business /
Business News: কোটি টাকার মালিক হওয়া মোটেই মুশকিলের কিছু নয়, এই কায়দাটা জানা আছে তো?

Business News: কোটি টাকার মালিক হওয়া মোটেই মুশকিলের কিছু নয়, এই কায়দাটা জানা আছে তো?

প্রতীকী ছবি ৷

প্রতীকী ছবি ৷

পাবলিক প্রভিডেন্ট ফান্ড ক্যালকুলেটররে সাহায্যে দেখে নেওয়া যাক কোথায় বিনিয়োগ করলে ১ কোটি টাকা রিটার্ন পাওয়া সম্ভব।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: বর্তমান সময়ে সবাই চায় এমন জায়গায় বিনিয়োগ করতে যেখানে সুরক্ষিত ভাবে ভালো রিটার্ন পাওয়া সম্ভব। পাবলিক প্রভিডেন্ট ফান্ড ক্যালকুলেটররে সাহায্যে দেখে নেওয়া যাক কোথায় বিনিয়োগ করলে ১ কোটি টাকা রিটার্ন পাওয়া সম্ভব। পাবলিক প্রভিডেন্ট ফান্ড, বা পিপিএফ ভারত সরকার কয়েক বছর আগে ক্ষুদ্র সঞ্চয়কারীদের উপকার করার জন্য চালু করেছিল। এটি ভারতের সবচেয়ে জনপ্রিয় সরকার-সমর্থিত সঞ্চয় প্রকল্পগুলির মধ্যে একটি।

পিপিএফ হল খুব কম স্কিমগুলির মধ্যে একটি যা জনসাধারণকে তার এক্সেম্পট-এক্সেম্পট-এক্সেম্পট (EEE) ফিচারের মাধ্যমে ট্যাক্স বাঁচানোর বিকল্প প্রদান করে। যার অর্থ এটি সম্পূর্ণ একটি করমুক্ত সঞ্চয় বিকল্প। ১৯৬৮ সালে অর্থ মন্ত্রকের ন্যাশনাল সেভিংস ইনস্টিটিউট দ্বারা প্রবর্তিত PPF ভারতীয়দের জন্য একটি শক্তিশালী হাতিয়ার হয়ে উঠেছে, যেখানে তারা কর সুবিধা উপভোগ করতে পারে।

পিপিএফ সুদের হার এবং ম্যাচিওরিটি -

বর্তমানে, PPF বার্ষিক ৭.১ শতাংশ সুদের হার অফার করে এবং সুদ মাসিক ভিত্তিতে গণনা করা হয়। নির্দেশিকা অনুসারে বিনিয়োগকারীরা তাঁদের অর্থ তাঁদের পিপিএফ অ্যাকাউন্টে টানা ১৫ বছরের জন্য বিনিয়োগ করতে পারেন। যদি ১৫ বছরের শেষে কারও টাকার প্রয়োজন না হয়, তাহলে তিনি পিপিএফ অ্যাকাউন্টের মেয়াদ যতটা প্রয়োজন তত বছর বাড়াতে পারেন। এটি একটি PPF অ্যাকাউন্ট এক্সটেনশন ফর্ম জমা দিয়ে পাঁচ বছরের সময়ে করা যেতে পারে। বিনিয়োগকারীরা তাঁদের পিপিএফ অ্যাকাউন্টে প্রতি বছর ৫০০ টাকা এবং প্রতি বছর সর্বোচ্চ ১.৫ লাখ টাকা বিনিয়োগ করতে পারেন।

দিনে ৪১৭ টাকা বিনিয়োগ করে কোটিপতি হওয়া সম্ভব -

ভালো সুদের রিটার্ন, উচ্চ জনপ্রিয়তা, কম ঝুঁকি এবং করমুক্ত স্কিমের মাধ্যমে পিপিএফে বিনিয়োগকারীরা সঠিকভাবে বিনিয়োগ করলে ১ কোটি টাকা জমা হতে পারে খুব সহজেই। এর জন্য বিনিয়োগকারীদের নিচে উল্লেখিত পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে -

কেউ যদি আপনার PPF অ্যাকাউন্টে প্রতিদিন ৪১৭ টাকা বিনিয়োগ করেন, তাহলে মাসিক বিনিয়োগের মূল্য প্রায় ১২,৫০০ টাকা হয়। এর মানে হল প্রতি বছর, তিনি আপনার পাবলিক প্রভিডেন্ট ফান্ড অ্যাকাউন্টে ১,৫০,০০০ টাকার একটু বেশি বিনিয়োগ করছেন, যা সর্বোচ্চ সীমা। ১৫ বছরে, জমা হওয়া মোট পরিমাণ হবে ৪০.৫৮ লক্ষ টাকা এবং তার পরে তাঁকে পাঁচ বছরের ব্লকে দু'বার মেয়াদ বাড়াতে হবে।

বিনিয়োগকারী যদি ২৫ বছর বয়স থেকে ৫০ বছর বয়স পর্যন্ত এটি করতে থাকেন, অর্থাৎ ২৫ বছর পর্যন্ত, ম্যাচিওরিটির সময় তিনি যে পরিমাণ অর্থ পাবেন তা হবে ১.০৩ কোটি টাকার মতো। এই পরিমাণ সম্পূর্ণ করমুক্ত হবে এবং মোট সুদ অর্জিত হবে প্রায় ৬৬ লাখ টাকা। ২৫ বছরে তাঁর জমা করা মোট অর্থের পরিমাণ প্রায় ৩৭ লাখ টাকা হবে।

আরও পড়ুন: Gold Limit: জেনে নিন কত ভরি পর্যন্ত সোনা আপনি কিনতে বা রাখতে পারেন, বেশি থাকলে পড়তে হতে পারে মহা সঙ্কটে.....

এটি অবশ্যই জেনে রাখা উচিত যে বিনিয়োগে উচ্চতর রিটার্ন পাওয়ার সর্বোত্তম উপায় হল প্রতি মাসের ১ থেকে ৫ তারিখের মধ্যে অর্থ জমা করা কারণ সেই সময় সুদের মাসিক হার গণনা করা হয়।

আরও পড়ুন: SBI vs Post Office: স্টেট ব্যাঙ্ক এবং পোস্ট অফিসের বিভিন্ন যোজনায় কোথায় বেশি সুদ পাওয়া যায়? টাকা খাটান বুদ্ধি করে!

যদি এত বিশাল পরিমাণ বিনিয়োগ করা সম্ভব না হয়, তাহলেও চিন্তা নেই। পাবলিক প্রভিডেন্ট ফান্ড বিনিয়োগের ক্ষেত্রে নমনীয় প্রকৃতির, কারণ ব্যক্তিরা তাঁদের অ্যাকাউন্টে প্রতি বছর ৫০০ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগ করতে পারেন।

First published:

Tags: Business News

পরবর্তী খবর