Home /News /business /

RD: নিশ্চিত ও ঝুঁকিহীন বিনিয়োগের অন্যতম রাস্তা রেকারিং, টাকা-পয়সা খরচের আগে ভাবুন, দেখুন, জানুন

RD: নিশ্চিত ও ঝুঁকিহীন বিনিয়োগের অন্যতম রাস্তা রেকারিং, টাকা-পয়সা খরচের আগে ভাবুন, দেখুন, জানুন

প্রতীকী ছবি ৷

প্রতীকী ছবি ৷

কী করবেন কী করবেন না টাকা পয়সা খরচের আগে এক নজরে বুঝে নিন

  • Share this:

    #কলকাতা:  রেকারিং ডিপোজিটের সুদের হার সংক্রান্ত প্রশ্নাবলী (FAQs), না না জানলেই নয় তাই বিনিয়োগ করার আগে ভাল করে জেনে নিন ৷

    ১. রেকারিং ডিপোজিটের (Recurring Deposit) মেয়াদ পূর্ণ হলে টাকা কি সরাসরি আমার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ঢুকে যাবে?

    হ্যাঁ, রেকারিং ডিপোজিট বা RD স্কিমের মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার দিনই সুদ-সহ সমস্ত টাকা বিনিয়োগকারীর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। স্কিমের মেয়াদ শেষ হওয়ার দিনে অ্যাকাউন্টে টাকা না-এলে সে ক্ষেত্রে ব্যাঙ্কের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে। গ্রাহক যদি ব্যাঙ্কে যেতে না-পারেন, তা হলে পরিষেবা কেন্দ্রে ফোন করে নিতে হবে।

    ২. রেকারিং ডিপোজিটে কি TDS কাটা হয়?

    হ্যাঁ, অর্থনৈতিক বিল ২০১৫ অনুযায়ী প্রতি বছর রেকারিং ডিপোজিটে পাওয়া সুদের উপর ট্যাক্স কাটা হবে। এই আইন জুন, ২০১৫ থেকে কার্যকর হয়েছে। গ্রাহকের জমা দেওয়া টাকার উপর ট্যাক্স বসানো হবে না। তবে এক বছরের সঞ্চিত অর্থের উপর গ্রাহক যে পরিমাণ সুদ পাবেন, সেই সুদের টাকার উপর TDS কাটবে সরকার।

    ৩. রেকারিং ডিপোজিটে কি মনোনয়ন/স্বত্বভোগী সুবিধা রয়েছে?

    হ্যাঁ, RD অ্যাকাউন্ট খোলার সময় গ্রাহককে এক জনের নাম নমিনি করতে হবে। কারণ মেয়াদ চলাকালীন গ্রাহকের কোনও দুর্ঘটনা ঘটে গেলে অথবা কিছু হয়ে গেলে মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার পরে ওই নমিনিই সমস্ত টাকা পাবেন। এই মনোনীত ব্যক্তি গ্রাহকের পরিবারের সদস্য, আত্মীয় অথবা বন্ধুও হতে পারেন। আবার গ্রাহক যে কোনও সময় নমিনি পরিবর্তন করে অন্য কাউকেও নমিনি করতে পারবেন।

    ৪. প্রবীণ নাগরিকরা কি অতিরিক্ত কোনও সুবিধা পান?

    হ্যাঁ, ভারত সরকারের নিয়ম অনুযায়ী, প্রবীণ নাগরিকরা অতিরিক্ত সুবিধা পাবেন। রেকারিং ডিপোজিট স্কিমের ক্ষেত্রে প্রবীণ নাগরিকদের অন্যান্যদের তুলনায় বেশি সুদ প্রদান করা হয়। ন্যূনতম ০.৫০% বেশি সুদের সুবিধা পান প্রবীণ নাগরিকরা। সাধারণ সুদের হার যতই কম অথবা বেশি হোক, প্রবীণদের তুলনামূলক ০.৫০% বেশি সুদ দেওয়া হবে। এ ছাড়া অনেক স্কিমে প্রবীণদের জীবন বিমা-সহ আরও বিভিন্ন আকর্ষণীয় অফারও দেওয়া হয়ে থাকে।

    ৫. একটি রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট খুলতে ন্যূনতম কত টাকা জমা দিতে হবে?

    একটি রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট খুলতে সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা জমা রাখতে হবে।

    ৬. কী ভাবে রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য আবেদন করব?

    যে ব্যাঙ্কে রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট খুলতে চাওয়া হচ্ছে, সেই ব্যাঙ্কের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে আবেদন প্রক্রিয়া, বিভিন্ন স্কিম এবং অফার সম্বন্ধে জেনে নিতে হবে। এর পর ‘Apply Now’ অপশনে ক্লিক করতে হবে। আবেদনে এই সুবিধা যে কোনও ব্যাঙ্কের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। গ্রাহকের যে ব্যাঙ্কে আগে থেকেই অ্যাকাউন্ট রয়েছে, সেখানে যদি তিনি রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট খুলতে চান, তবে খুব সহজেই নেট ব্যাঙ্কিং পরিষেবা ব্যবহার করে রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন।

    আরও পড়ুন: 6th Pay Commission|7th Pay Commission: নতুন বছরের আগেই কর্মচারীদের জন্য বিরাট খবর! বেতন বৃদ্ধি হচ্ছে এই সমস্ত সরকারি কর্মীদের

    ৭. আমি কি RD ক্যালকুলেটার ব্যবহার করতে পারি?

    হ্যাঁ, অনেক ব্যাঙ্কের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে রেকারিং ডিপোজিট ক্যালকুলেটরের সুবিধা পাওয়া যায়। গ্রাহক কত টাকা জমা দিয়ে, কত দিনের মেয়াদে, কত টাকা রিটার্ন পাবেন, সেটা এই ক্যালকুলেটর ব্যবহার করে খুব সহজেই নির্ধারণ করা যাবে। গ্রাহক মেয়াদ অথবা জমা টাকার পরিমাণ বাড়িয়ে বা কমিয়ে গণনা করতে পারবেন যে, কোনটি তাঁর জন্য উপযুক্ত স্কিম।

    ৮. সর্বনিম্ন কত দিনের মেয়াদে একটি রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট খোলা যাবে?

    একটি রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট খুলতে ন্যূনতম ৬ মাস মেয়াদের স্কিম বেছে নিতে হবে। এর পর মেয়াদ ত্রৈমাসিক হারে বাড়বে। অর্থাৎ ৯ মাস, ১২ মাস, ১৫ মাস ইত্যাদি। একটি রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট সর্বোচ্চ ১০ বছরের জন্য খোলা যেতে পারে।

    ৯. আমি কি মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার আগে রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্টের টাকা তুলতে পারি?

    আরও পড়ুন: Recurring Deposits: জীবন গুছিয়ে নিতে RD! সুবিধা প্রচুর, অসুবিধাও বিস্তর

    হ্যাঁ, কোনও গ্রাহক চাইলে স্কিমের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই টাকা তুলতে পারবেন, তবে তা শর্তসাপেক্ষে। গ্রাহক যদি মেয়াদের আগেই অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিতে চান, তবে তিনি যে দিন রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্টে টাকা জমা দিতে শুরু করেছিলেন, সেই দিনের সুদের হারেই টাকা তোলার দিন পর্যন্ত সময়ের সুদ গণনা করা হবে। মেয়াদপূর্তির আগে টাকা তোলার ক্ষেত্রে জরিমানা করা হতে পারে অথবা সুদের হার কমতে পারে। সাধারণত উপার্জিত সুদের ১% কাটা হয়। রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট খোলার সময় ব্যাঙ্ক এই সমস্ত শর্তগুলি জানিয়ে দেয়।

    ১০. নাবালকের নামে রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট খোলা যাবে?

    আরও পড়ুন:  Recurring Deposit: রেকারিং ডিপোজিট-এ সুদের হারের উপর কোন কোন বিষয় প্রভাব ফেলতে পারে?

    হ্যাঁ, এক জন নাবালকের নামে রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট খোলা যাবে। এই ক্ষেত্রে অভিভাবককে অ্যাকাউন্টটি পরিচালনা করতে হবে। টাকা জমা, টাকা তোলা থেকে শুরু করে সমস্ত দায়িত্ব থাকবে অভিভাবকের কাছে। প্রায় সমস্ত ব্যাঙ্কেই নাবালকদের শিক্ষার খরচের জন্য সঞ্চয় করতে মাইনরস্ RD স্কিমের সুবিধা রয়েছে। অনেক ব্যাঙ্কে কিছু স্কিম থাকে, যেখানে নাবালক অ্যাকাউন্টে অন্যদের তুলনায় বেশি সুদ দেওয়া হয়।

    ১১. রেকারিং ডিপোজিটে জয়েন্ট অ্যাকাউন্ট খোলা যাবে?

    রেকারিং ডিপোজিটের ক্ষেত্রে দুজন অথবা তিন জনের নামে জয়েন্ট অ্যাকাউন্ট খোলা যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে আবেদন ফর্মে ফার্স্ট ডিপোজিটার বা প্রথম আমানতকারী হিসেবে যাঁর নাম থাকবে, তাঁর সঙ্গেই ব্যাঙ্ক সমস্ত রকম যোগাযোগ করবে। প্রথম আমানতকারীর সঙ্গে কোনও দুর্ঘটনা ঘটে গেলে বাকিরা অ্যাকাউন্টের দায়িত্ব পাবেন।

    Published by:Arjun Neogi
    First published:

    Tags: Business

    পরবর্তী খবর