Home /News /business /
Gold ETF: দু'বছরে কীভাবে খুচরো বিনিয়োগকারীদের প্রিয় হয়ে উঠল গোল্ড ইটিএফ? জানুন বিশেষজ্ঞদের মত

Gold ETF: দু'বছরে কীভাবে খুচরো বিনিয়োগকারীদের প্রিয় হয়ে উঠল গোল্ড ইটিএফ? জানুন বিশেষজ্ঞদের মত

How Gold ETFs became retail investors' favorite in last two years

How Gold ETFs became retail investors' favorite in last two years

কীভাবে গোল্ড ইটিএফগুলো বিনিয়োগ মূল্য ধরে রেখেছে এবং কেন তারা এত জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে?

  • Share this:

#কলকাতা: গত দু'বছরে বিপুল জনপ্রিয় হয়েছে গোল্ড ইটিএফ। ইক্যুইটি এবং ডেবট ফান্ডের বাইরে পোর্টফোলিওতে বৈচিত্র আনতে এই ক্ষেত্রে টাকা ঢালছেন বিনিয়োগকারীরা। করোনা ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে বাজারে অস্থিরতার কারণে সোনার দাম বেড়েছে। তার ফলেই গোল্ড ইটিএফে বিনিয়োগ বাড়ছে। করোনা অতিমারীর জেরে অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ফলে বাজার অস্থিরতার মধ্যে গোল্ড ইটিএফ হয়ে উঠেছে বিনিয়োগকারীদের নিরাপদ আশ্রয়। এখন দেখে নেওয়া যাক কীভাবে গোল্ড ইটিএফগুলো (Gold ETF) বিনিয়োগ মূল্য ধরে রেখেছে এবং কেন তারা এত জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

খুচরো বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বিপুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে গোল্ড ইটিএফ। এতে বিনিয়োগের জন্য ডিম্যাট অ্যাকাউন্টের সংখ্যা দ্রুত এবং ধারাবাহিকভাবে বেড়েছে। গত ২ বছরে প্রায় ৩৭ লাখ খুচরো বিনিয়োগকারীর পোর্টফোলিওতে যুক্ত হয়েছে গোল্ড ইটিএফ।

সভরেইন গোল্ড বন্ডের মাধ্যমে সোনায় বিনিয়োগকে সর্বোত্তম মাধ্যম হিসাবে বিবেচনা করা হয়। কারণ এতে সরকারি গ্যারান্টি থাকে এবং বার্ষিক ২.৫ থেকে ২.৭৫ শতাংশ সুদ পাওয়া নিশ্চিত। কিন্তু তারপরেও গোল্ড ইটিএফে বিপুল বিনিয়োগ হচ্ছে। তার কারণ এতে এসআইপি-র মাধ্যমে বিনিয়োগ করা যায়। যা খুচরো বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করছে।

আরও পড়ুন-আন্দামান সাগরে নিম্নচাপ ঘনীভূত, ঘূর্ণিঝড় নিয়ে কী পূর্বাভাস ? জেনে নিন

গত তিন বছরে সোনা থেকে ভাল রিটার্ন মিলছে। একদিকে ইক্যুইটি বিনিয়োগে অস্থিরতা অন্যদিকে সুদের হারও ক্রমাগত কমছে। ফলে স্থির আয়ের বিনিয়োগক্ষেত্রগুলি থেকে ভাল রিটার্ন পাওয়া মুশকিল হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই অবস্থায় গোল্ড ইটিএফে ঝুঁকছেন বিনিয়োগকারীরা। সোনা সব সময়ে একটি আউটপারফর্মিং সম্পদ শ্রেণী নাও হতে পারে, কিন্তু বাজারের অনিশ্চয়তার বিরুদ্ধে এটা লড়তে পারে এবং পোর্টফোলিওতে বৈচিত্র্য আনে।

কোয়ান্টাম এমএফের অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্টের ফান্ড ম্যানেজার গজল জৈন বলছেন, ‘মহামারী, উচ্চ মূল্যস্ফীতি এবং ভূ-রাজনৈতিক উত্তেজনার কারণে আর্থিক বাজারের অস্থিরতা রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে পোর্টফোলিওয় বৈচিত্র এবং মুদ্রাস্ফীতির বিরুদ্ধে লড়তে গোল্ড ইটিএফে ঝুঁকছেন বিনিয়োগকারীরা। যার ফলে দেশীয় সোনার ইটিএফ এইউএম ২০২০ সালে প্রায় ৮০০০ কোটি টাকা থেকে দ্বিগুণ হয়ে এখন ১৯,০০০ কোটি টাকায় পৌঁছেছে’।

আরও পড়ুন-পছন্দ হল দলীয় অফিস, আগামী দিনে এই অফিসও থাকতে পারে, জল্পনা দলনেত্রীর কথায়

সোনা সব সময়ে একটি আউটপারফর্মিং সম্পদ শ্রেণী নাও হতে পারে, কিন্তু বাজারের অনিশ্চয়তার বিরুদ্ধে এটা লড়তে পারে এবং পোর্টফোলিওতে বৈচিত্র্য আনে। এটা যে কোনও সময় পোর্টফোলিওতে ৫ থেকে ১০ শতাংশ বৃদ্ধি যোগ করতে পারে। এক্ষেত্রে সোনার ইটিএফ বিভাগের আওতায় নিপ্পন ইন্ডিয়া ইটিএফ গোল্ড বিইইএস-এ বিনিয়োগের সুপারিশ করছেন বিশেষজ্ঞরা।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published:

Tags: Gold ETF

পরবর্তী খবর