Home /News /business /
Investment Tips: বিনিয়োগের সময় এই ৪ ভুল খুব হয়, সতর্ক হন বছরের প্রথম দিন থেকেই!

Investment Tips: বিনিয়োগের সময় এই ৪ ভুল খুব হয়, সতর্ক হন বছরের প্রথম দিন থেকেই!

Investment Tips: বিনিয়োগের সময় ৪টি খুব সাধারণ ভুল নিয়ে আলোচনা করা হল, যেগুলি এড়াতেই হবে।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: ভুল মানুষেরই হয়। এবং সেই ভুল থেকে মানুষ শিক্ষা নেয়। কিন্তু বিনিয়োগের ক্ষেত্রে কোনও ভুল হলে তার চড়া মূল্য চোকাতে হয়। কারণ কষ্ট করে উপার্জন করা টাকাটাই জলে যায় যে। তাই আগে-ভাগে সাবধান হতে হবে। তবে ভয়ে হাত গুটিয়ে বসে থাকলে চলবে না। আর্থিক বিশেষজ্ঞ ক্রিস্টফার পাভেস বলেছিলেন, ‘ভুল এবং দূর্বলতাগুলি নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেই বড় বিনিয়োগকারীরা মহান বিনিয়োগকারী হয়ে উঠেছেন’। এখানে বিনিয়োগের সময় ৪টি খুব সাধারণ ভুল নিয়ে আলোচনা করা হল, যেগুলি এড়াতেই হবে।

    আরও পড়ুন: বিপুল মুনাফা দিচ্ছে এই ৪ মাল্টিব্যাগার স্টক! বিশেষজ্ঞরা যা বলছেন, চমকে উঠবেন

    ১। নির্দিষ্ট পরিকল্পনা: এই ভুলটা খুচরো বিনিয়োগকারীরা হামেশাই করেন। কোন সময় বিনিয়োগ করা উচিত, কী উদ্দেশ্যে বা লক্ষ্যে বিনিয়োগ করা হচ্ছে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সে সম্পর্কে কোনও পরিকল্পনা থাকে না। তাঁরা সাধারণত ‘টিপস আর অলওয়েজ হিট’ ফরমুলা অনুসরণ করেন। ফলে প্রতারণার ফাঁদে পড়তে হয়। বিনিয়োগ একটা জার্নি। তাই নির্দিষ্ট পরিকল্পনা জরুরি। কোন বয়স থেকে বিনিয়োগ শুরু করা হচ্ছে, সেটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। বিনিয়োগকারীর বয়স কম হলে ঝুঁকি নেওয়ার ক্ষমতা বেশি থাকে। একজন কমবয়সী ক্রীড়াবিদ ম্যারাথন দৌড়তে পারেন কিন্তু বয়স বেশি হলে আর সেটা সম্ভব নয়। বিনিয়োগের ক্ষেত্রেও কথাটা খাটে। পাশাপাশি, আর্থিক লক্ষ্য, বিনিয়োগের ক্ষেত্র এবং সঠিক মেয়াদ বেছে নেওয়াও সমান গুরুত্বপূর্ণ।

    ২। সব ডিম এক ঝুড়িতে নয়: বিনিয়োগকারীদের মধ্যে দেখা আরও একটা সাধারণ ভুল হল সব ডিম এক ঝুড়িতে রাখা। অর্থাৎ ইক্যুইটি বা সোনার মতো একটি সম্পদ শ্রেণীতে সব অর্থ বিনিয়োগ করা। এতে পোর্টফোলিওর ঝুঁকি মারাত্মক বেড়ে যায়। কারণ যদি লোকসান হয় তাহলে পুরো টাকাটাই জলে যাবে। তাই বিভিন্ন সেক্টরে বিনিয়োগ করতে হয়। যাতে একটা ক্ষেত্রে লোকসান হলেও অন্য ক্ষেত্রগুলি থেকে তা পুষিয়ে দেওয়া যায়।

    আরও পড়ুন: ডিডিএ-র ফ্ল্যাটের জন্য আবেদন করেছেন? বিরাট সুযোগ, ১৮ এপ্রিল লটারি! মিস করবেন না

    ৩। ইতিহাস দেখে বিচলিত হবার কিছু নেই: কোথাও বিনিয়োগ করার আগে সাধারণত সেগুলো আগে কেমন রিটার্ন দিয়েছে তা দেখা হয়। সেটা উচিতও। কিন্তু তা থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়াটা উচিত নয়। জিডিপি, মুদ্রাস্ফীতি, সুদের হার, নিয়ন্ত্রক কাঠামো, কোম্পানির বর্তমান অবস্থা ইত্যাদি সবকিছু দেখে তবেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে। বিনিয়োগকারীদের অবশ্যই পুরো ছবিটার উপর ফোকাস করতে হবে। বুঝতে হবে, ঝুঁকি বেশি মানে লাভও বেশি।

    আরও পড়ুন: সীমান্তে বিরোধ থাকলেও বাণিজ্যে ভাই-ভাই! ভারতের থেকে ৫ গুণ বাড়ল চিনের রফতানি!

    ৪। বাজার এবং সময়: বিনিয়োগকারীদের মনের সবসময় লোভ আর ভয়ের দ্বন্দ্ব চলে। যখন বাজার পড়ে তখন বিনিয়োগকারীরা দাঁতে দাঁত চেপে অপেক্ষা করেন। আর যখন বাজার চাঙ্গা থাকে তখন টাকা ঢালতে ছোটেন। কিন্তু সরলরৈখিক নিয়মে বাজার চলে না। বরং যখন বাজার পড়ছে সাহস করে সেই সময় বিনিয়োগ করতে হয়। কারণ অল্প দামে ভালো শেয়ার কেনার সেটাই উপযুক্ত সময়। আবেগ নয়, এক্ষেত্রে যুক্তি দিয়ে বিবেচনা করতে হবে। তবে কম বয়সে বিনিয়োগ শুরু করলে শেয়ার বাজারের পরিবর্তে মিউচুয়াল ফান্ডের এসআইপি-তে বিনিয়োগ করা উচিত। দীর্ঘ মেয়াদে চক্রবৃদ্ধি হারে উচ্চ রিটার্ন পেতে চাইলে এটা আদর্শ।

    Published by:Dolon Chattopadhyay
    First published:

    Tags: Investments, Mutual Funds

    পরবর্তী খবর