Home /News /business /
Pension Scheme: EPS-এর বিশাল আপডেট পেনশন নিয়ে বিরাট সিদ্ধান্ত? দ্বিগুণ হবে পেনশন! সরবে ১৫ হাজারের বাধা!

Pension Scheme: EPS-এর বিশাল আপডেট পেনশন নিয়ে বিরাট সিদ্ধান্ত? দ্বিগুণ হবে পেনশন! সরবে ১৫ হাজারের বাধা!

প্রতীকী ছবি ৷

প্রতীকী ছবি ৷

Pension Scheme: পেনশন সংক্রান্ত বিষয়ে বড় সিদ্ধান্ত হতে পরে

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: এম্প্লইজ পেনশন স্কিমের (EPS) বিষয়ে খুব তাড়াতাড়ি পর্দা সরতে চলেছে, এই নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে শুনানি চলছে ৷ জানতে পারা যাচ্ছে এই নিয়ে খুব তাড়াতাড়ি একটি সিদ্ধান্ত হতে পারে ৷ বিস্তারিত বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করার আগে জেনে নিতে হবে আসলে বিষয়টি কী? বর্তমানে সর্বাধিক পেনশনযোগ্য বেতন ১৫,০০০ টাকা প্রতি মাসে ৷ আসলে বেতন যতখানি হোক না কেন অর্থাৎ বেতন যত বেশিই হোক না কেন? ১৫,০০০ টাকার নিরিখে পেনশন দেওয়া হবে ৷

    সপ্রিম কোর্টের পক্ষ থেকে গত বছর (২০২১) ১২ অগাস্ট, ভারত সংঘ ও প্রভিডেন্ঠ ফান্ড অর্গানাইজেশনের দায়ের করা মামলায় শুনানি স্থগিত করা হয়েছে ৷ যেখানে কর্মীদের পেনশন ১৫,০০০ টাকা পর্যন্ত সীমিত রাখা যাবেনা এমনটাই জানানো হয়েছে ৷ এই বিষয় নিয়ে শুনানি আদালতে চলছে ৷ যাঁরা সংগঠিত ক্ষেত্রে কাজ করেন তাঁরা সরাসরি ইপিএফের সদস্য হয়ে যান ৷ তাঁদের রোজগারের ১২ শতাংশ প্রভিডেন্ট ফান্ডে জমা পড়ে ৷

    সমসংখ্যক টাকা সংস্থার পক্ষ থেকেও দেওয়া হয় ৷ এখানে এমন এক সংখ্যক টাকা ৮.৩৩ শতাংশ ইপিএসে দেওয়া হয়ে থাকে ৷ বর্তমানে পেনশনযোগ্য বেতন বর্তমানে সর্বাধিক পেনশনযোগ্য বেতন (১৫,০০০ টাকার, ৮.৩৩%), ১,২৫০ টাকা হবে ৷ কর্মীরা যখন অবসর গ্রহণ করেন ঠিক তখনই সর্বাধিক বেতন (১৫,০০০ টাকা হিসাবে মানা হয়) ৷ এই হিসাবেই অবসরের পরে ইপিএস থেকে সর্বাধিক পেনশন পান ৭,৫০০ টাকা ৷

    একটি বিষয়ে বিশেষ করে খেয়াল রাখতে হবে যদি কোনও কর্মী ইপিএসে যোগদান ১ সেপ্টেম্বর ২০১৪ আগে করেছেন সেই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি সর্বাধিক পেনশন ৬,৫০০ টাকা করে পেতে পারেন ৷ ১ সেপ্টেম্হর ২০১৪ পর থেকে ইপিএস সংক্রান্ত সর্বাধিক বেতন ১৫,০০০ টাকা হবে ৷ এবার দেখে নেওয়া যাক এই পেনশন গণনা কীভাবে হতে পারে ৷ মাসিক পেনশন = (মাসিক পেনশনযোগ্য বেতন x EPS যোগদানের বছর)x৭০ ৷

    এই বিষয়টি মানলে দেখতে পাওয়া যাবে ১ সেপ্টেম্বর ২০১৪ সালের পরে ইপিএসে যোগদান শুরু করলে পেনশন ১৫,০০০ টাকায় গণনা হবে ৷ যদি ধরে নেওয়া যায় কেউ ৩০ বছর পর্যন্ত চাকরি করেছেন মাসিক পেনশন =১৫,০০০X৩০/৭০= ৬,৪২৮ টাকা ৷ একটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে কোনও কর্মী ৬ মাস বা তার বেশি কাজ করেন সেক্ষেত্রে সেটি এক বছর হিসাবে ধরা হয় ৷

    আরও পড়ুন: Fixed Deposit: ফিক্সড ডিপোজিটের উপরে সর্বাধিক সুদ; আজই যোগাযোগ করতে পারেন এই ব্যাঙ্কের সঙ্গে

    এর কম হলে গণনা হবেনা ৷ ধরে নেওয়া যাক কোনও কর্মী ১৪ বছর ৭ মাস কাজ করেন সেক্ষেত্রে ১৫ বছর ধরা হবে ৷ কেউ যদি ১৪ বছর ৫ মাস কাজ করেন সেক্ষেত্রে তাঁর কর্ম সময় ১৪ বছর ধরা হবে ৷ ইপিএসের পক্ষ থেকে সর্বনিম্ন পেশন মাসে ১,০০০ টাকা করে ধরা হয় ৷ সর্বাধিক পেনশন ৭,৫০০ টাকা হয়ে থাকে ৷ যদি ১৫ হাজার টাকা সীমা সরে যায় সেক্ষেত্রে যদি বেসিক স্যালারি ২০,০০০ টাকা হিসাবে গণনা করা হয়, সেক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি পেনশন পাবেন (২০,০০০X৩০)/৭০=৮,৫৭১ টাকা ৷

    আরও পড়ুন: Health Tips: প্রতিদিন শরীরের উপরে সীমাহীন অত্যাচার, লিভার ভাল রাখতে দুর্দান্ত টোটকাগুলি দারুণ কাজে লাগবে

    বেশ কিছু শর্ত থেকেই যায় সেগুলি হল ইপিএসের পেনশন পেতে গেলে ইপিএসের সদস্য হতে হবে ৷ নিরবিচ্ছিন্ন ১০ বছর চাকরি করতে হবে ৷ কর্মীদের ৫৮ বছর হলেই তাঁরা পেনশনযোগ্য হবেন ৷ ৫০ বছরের পরেও ৫৮ বছরের আগে পেনশন পাওয়ার বিকল্প আছে ৷ সময়ের আগে পেসন তুললে অল্প সংখ্যক পেনশন পাবেন এর জন্য ১০ডি ফর্ম ফিলাপ করতে হবে ৷ কর্মীদের মৃত্যুর পরে পেনশন পাবেন ৷ কর্মীদের মৃত্যু হলে পরিবার পেনশন পাবেন ৷ ১০ বছরের নিরবিচ্ছিন্ন সার্ভিস থাকলে ৫৮ বছর বয়স থেকে পেনশন পাবেন ৷ তার আগেও পেনশন তোলার বিকল্প রাস্তা আছে ৷

    Published by:Arjun Neogi
    First published:

    Tags: Employee Pension Scheme

    পরবর্তী খবর