• Home
  • »
  • News
  • »
  • business
  • »
  • ন্যাশনাল পেনশন স্কিম না অটল পেনশন যোজনা, এক নজরে জেনে নিন কোনটা সবথেকে ভালো!

ন্যাশনাল পেনশন স্কিম না অটল পেনশন যোজনা, এক নজরে জেনে নিন কোনটা সবথেকে ভালো!

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক এই দু'টি স্কিমে কী ধরনের সুবিধা পাওয়া যেতে পারে।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক এই দু'টি স্কিমে কী ধরনের সুবিধা পাওয়া যেতে পারে।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক এই দু'টি স্কিমে কী ধরনের সুবিধা পাওয়া যেতে পারে।

  • Share this:

#কলকাতা: সরকারি স্কিমে বিনিয়োগ করতে চাইলে ন্যাশনাল পেনশন স্কিম বা অটল পেনশন যোজনায় বিনিয়োগ করা যেতে পারে। এই দু'টি সরকারি স্কিমের মাধ্যমেই বিনিয়োগকারীরা প্রতি মাসে পেনশনের সুবিধা পেতে পারে। এই দু'টি সরকারি স্কিমে কিছু পার্থক্য থাকলেও দু'টি স্কিমের মাধ্যমেই পেনশনের সুবিধা পাওয়া যায়। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক এই দু'টি স্কিমে কী ধরনের সুবিধা পাওয়া যেতে পারে।

আরও পড়ুন: ইনকাম ট্যাক্স জমা করার সময় ভুল করে থাকলেও চিন্তা নেই, জানুন অনলাইনে তা ঠিক করার উপায়!

ন্যাশনাল পেনশন স্কিম (National Pension Scheme)

সরকারি কর্মচারীদের জন্য ২০০৪ সালে ন্যাশনাল পেনশন স্কিম চালু করা হয়। ২০০৯ সালে ন্যাশনাল পেনশন স্কিম সকলের জন্য চালু করা হয়। এই স্কিমে বিনিয়োগ করা টাকার একটি অংশ বিনিয়োগকারীরা একবারে তুলে নিতে পারে এবং বাকি অংশটি রিটায়ারমেন্টের পর নিয়মিত আয়ের মাধ্যম হিসাবে ব্যবহার করতে পারে।

ন্যাশনাল পেনশন স্কিমের যোগ্যতা

ন্যাশনাল পেনশন স্কিমে যে কোনও ভারতীয় নাগরিক যার বয়স ১৮ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে তারাই এই স্কিমে বিনিয়োগ করতে পারে। এই স্কিমে রেসিডেন্ট ইন্ডিয়ানরাও (NRI) বিনিয়োগ করতে পারে।

আরও পড়ুন: এই হেল্থকেয়ারের শেয়ারে বিনিয়োগ করে পাওয়া যেতে পারে দ্বিগুণ রিটার্ন, দেখে নিন এক নজরে!

ন্যাশনাল পেনশন স্কিমের অ্যাকাউন্ট

ন্যাশনাল পেনশন স্কিমে দুই ধরনের অ্যাকাউন্টের খাতা খোলা যায়। একে টায়ার ১ এবং টায়ার ২ বলা হয়। টিায়ার ১-এ ৬০ বছর বয়স না হলে বিনিয়োগকারীরা এই স্কিমের টাকা তুলতে পারে না। অন্য দিকে, টায়ার ২-এ বিনিয়োগকারীরা নিজেদের দরকার অনুযায়ী অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তুলতে পারে।

অটল পেনশন যোজনা (Atal Pension Yojana)

অটল পেনশন যোজনা বিনিয়োগকারীদের বয়সের ভিত্তিতে এবং বিনিয়োগের ভিত্তিতে নির্ধারিত হয়। অটল পেনশন যোজনায় কম করে প্রতি মাসে ১০০০ টাকা, ২০০০ টাকা, ৩০০০ টাকা, ৪০০০ টাকা এবং সর্বাধিক ৫০০০ টাকা পেনশন হিসাবে পাওয়া যেতে পারে। অটল পেনশন যোজনার রেজিস্ট্রেশন করার জন্য বিনিয়োগকারীদের সেভিংস অ্যাকাউন্ট, আধার নম্বর এবং একটি মোবাইল নম্বর থাকা বাধ্যতামুলক।

আরও পড়ুন: অ্যাকাউন্টে আসতে চলেছে ২০০০ টাকা, ঠিক করে নিন এই ভুলগুলো, না হলে আটকে যাবে টাকা

অটল পেনশন যোজনার যোগ্যতা

এই অটল পেনশন যোজনার সুবিধা পাওয়ার জন্য বিনিয়োগকারীদের বয়স ১৮ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে হতে হবে। এই যোজনায় কম করে ২০ বছর পর্যন্ত বিনিয়োগ করতে হবে। এই অটল পেনশন যোজনার মাধ্যমে বিনিয়োগকারীরা ৬০ বছর বয়সের পর পেনশনের সুবিধা পাবে। এই অটল পেনশন যোজনার সুবিধা পাওয়ার জন্য বিনিয়োগকারীদের একটি ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্ট থাকতে হবে এবং সেটি আধারের সঙ্গে সংযুক্ত থাকতে হবে। এই অটল পেনশন যোজনার মাধ্যমে কম টাকা বিনিয়োগ করে প্রতি মাসে পেনশনের সুবিধা পাওয়া যাবে।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: