Home /News /bankura /
Bankura: মর্মান্তিক ঘটনা! বিদ্যুৎ দপ্তরের উদাসীনতায় বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে প্রাণ গেল দুই গ্রামবাসীর

Bankura: মর্মান্তিক ঘটনা! বিদ্যুৎ দপ্তরের উদাসীনতায় বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে প্রাণ গেল দুই গ্রামবাসীর

বাঁকুড়া সদর থানা এলাকার ভূতশহর গ্রামে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হল পাশাপাশি দুই পরিবারের দুই জনের। মৃত ওই ব্যক্তির নাম অনঙ্গ মোহন ঘোষ (৬০) ও এবং মৃত মহিলার নাম পার্বতী ঘোষ (৫৫)।

  • Share this:

    #বাঁকুড়া : বাঁকুড়া সদর থানা এলাকার ভূতশহর গ্রামে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হল পাশাপাশি দুই পরিবারের দুই জনের। মৃত ওই ব্যক্তির নাম অনঙ্গ মোহন ঘোষ (৬০) ও এবং মৃত মহিলার নাম পার্বতী ঘোষ (৫৫)। স্থানীয় সুত্রে জানা যায় শনিবারভোরে বাড়ি থেকে বেরিয়ে বাড়ির বাইরে যাবার পথে পড়ে থাকা ৪৪০ ভোল্টের তারে লেগে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয় তাদের গ্রামের পার্বতী ঘোষ নামে ওই মহিলা। ওই মহিলাকে বাঁচাতে ছুটে আছেন অনঙ্গ মোহন ঘোষ নামে এক ব্যক্তি। তিনিও বিদ্যুৎ তারে শক্ খেয়ে অপর প্রান্তে ছিটকে পড়েন। সেখান থেকেই বিদ্যুতের তারে শক্ খেয়েছে বলে এক ব্যক্তির চিৎকার শোনা যায়। তৎক্ষণাত ঘটনাস্থলে ছুটে যান ওই এলাকার বাসিন্দারা। ওই এলাকার বিদ্যুৎ সংযোগের মেন সুইচ অফ করে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট মহিলা এবং ওই ব্যক্তিকে বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানেই তাদেরকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। খবর দেওয়া হয় পুলিশকে। ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছয় বাঁকুড়া সদর থানার পুলিশ।

    স্থানীয়দের অভিযোগ বিদ্যুৎ দপ্তরের গাফিলতির কারনে বিদ্যুৎবাহী তার প্রায় তাদের এলাকায় ছিঁড়ে পড়ে থাকত। বারংবার বিদ্যুৎ দপ্তরকে জানিয়েও হয়নি কোনো সুরাহা। বিদ্যুৎ দপ্তর একটু তৎপর হলে হয়তো এইভাবে চলে যেত না দুই গ্রামবাসী। ভূতশহর গ্রামের এমন মর্মান্তিক দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন বাঁকুড়া জেলা পরিষদের সদস্য অলক সিংহ। তিনি সরাসরি বিদ্যুৎ দপ্তরের উপর ক্ষোভ উগরে দেন।

    আরও পড়ুনঃ বাঁকুড়ার হ্যামেলিনের বাঁশিওয়ালার  জাদুতে মেতেছে শহরবাসী

    বিদ্যুৎ দপ্তরের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ তুলে বলেন দীর্ঘদিন এই এলাকায় এভাবেই বিদ্যুতের বিভিন্ন তার ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে রয়েছে। নজর দেয়নি বিদ্যুৎ দপ্তর তাই আজ দুটো তাজা প্রাণ চলে গেল। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন ওই এলাকার বিধায়ক অমরনাথ শাখা। তিনি বলেন অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা। একমাত্র বিদ্যুৎ দপ্তরের গাফলাতিতে দিনের পর দিন এমন দুর্ঘটনা ঘটছে।

    আরও পড়ুনঃ মল্লভূমের মাটিতে গড়াল রথের চাকা

    এখন যেহেতু সারা ভারতবর্ষে বিদ্যুৎকেবিল লাইন চালু হয়ে গেছে তাই এই এলাকাতেও যাতে কেবিলের মাধ্যমে বিদ্যুৎ লাইন যেতে পারে তার ব্যবস্থা বিদ্যুৎ দপ্তরকে করতে হবে। সাধারণ মানুষ বারবার ইলেকট্রিক দপ্তরে বিভিন্ন জঞ্জাল পরিষ্কার করার কথা জানালেও তাদের কথা দপ্তর শোনেনি বলেও এদিন অভিযোগ করেন তিনি। এই দুটি পরিবার যাতে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ পায় তার ব্যবস্থা করতে হবে বলে তিনি দাবি করেন।

    Joyjiban Goswami
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Bankura

    পরবর্তী খবর