Home /News /bankura /
Bankura News: সেই আট বছর থেকে তিনি সবুজ সাথী! সারেঙ্গার গাছ দাদু লাগিয়েছেন পাঁচ হাজারের অধিক গাছ

Bankura News: সেই আট বছর থেকে তিনি সবুজ সাথী! সারেঙ্গার গাছ দাদু লাগিয়েছেন পাঁচ হাজারের অধিক গাছ

নিজস্ব

নিজস্ব চিত্র

Bankura News: গ্রাম-সহ বিস্তীর্ণ এলাকা যে কখন সবুজ হয়ে উঠেছিল তা নিজেও বুঝতে পারেননি শ্যামাপ্রসাদ বাবু। আর এই গাছ লাগানোর জন্য প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন বাঁকুড়া জেলাশাসক দ্বারা পুরস্কৃত হন তিনি।

  • Share this:

    #বাঁকুড়া: বাঁকুড়া শহর থেকে প্রায় ৬০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত বাঁকুড়া জেলার প্রত্যন্ত এক গ্রাম সারেঙ্গা। এই দক্ষিণ সারেঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা শ্যামাপ্রসাদ বন্দোপাধ্যায়। ওই এলাকার সবাই তাকে 'গাছ দাদু' নামেই চেনে। বয়সটা তখন মাত্র আট। ওই আট বছর বয়স থেকেই শুরু হয় গাছের প্রতি ভালোবাসা। প্রথমে বাড়ির উঠোনে শুরু করেন গাছের চারা লাগানো। সময় গড়ানোর পাশাপাশি গাছের প্রতি আত্মীয়তা বাড়তে থাকে তাঁর। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পরিবেশ রক্ষার্থে শুরু হয় রাস্তার ধার, সেচ খাল, পুকুর পাড়-সহ সমস্ত জায়গাতে গাছ লাগানো। শুধু গ্রাম নয়, গ্রামের রাস্তার ধারে নিজের হাতে গড়ে তুলেছেন বিশাল আকারের তালগাছ।

    গ্রাম-সহ বিস্তীর্ণ এলাকা যে কখন সবুজ হয়ে উঠেছিল তা নিজেও বুঝতে পারেননি শ্যামাপ্রসাদ বাবু। আর এই গাছ লাগানোর জন্য প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন বাঁকুড়া জেলাশাসক দ্বারা পুরস্কৃত হন তিনি। বয়সটা ৮ পেরিয়ে এখন ৭৫। এখনও গাছের প্রতি ভালবাসা শেষ হয়নি তাঁর। সকাল হলেই বাড়ি থেকে খালি পায়ে কাঁধে কোদাল নিয়ে সঙ্গে একটি গাছের চারা নিয়ে গ্রামের মেঠো রাস্তা ধরে হেঁটে চলেছেন এক বৃদ্ধ। মাথায় বাঁধা পাগড়ি আর পরণে সাদা পোশাক গলায় তুলসীর মালা আর হাতে মস্ত একটি কোদাল। তার পর বিস্তীর্ণ এলাকা ঘুরে প্রতিদিন সংগৃহীত একটি করে গাছ লাগিয়ে চলেছেন তিনি।

    আরও পড়ুন: ফলাফলে খুশি নয়, খাতা পুনর্মূল্যায়ন করতে চায় মাধ্যমিকে নবম সৌরথ দে

    তবে তালগাছ যে তার বড্ড প্রিয়। তাই বিভিন্ন গাছ পোঁতার পাশাপাশি তিনি বেশিরভাগ লাগিয়েছেন তালগাছ। বয়সের ভাঁজ পড়লেও গাছ লাগানোর ক্ষেত্রে কোন আপোষ করেন না তিনি। এটা যে তার রোজকার অভ্যাস। এই অভ্যাস তিনি পাল্টাবেন কি করে। দীর্ঘ সময় ধরে ৫ হাজারেরও বেশি গাছ লাগিয়েছেন তিনি। গোটা গ্রাম তার হাতের ছোঁয়ায় হয়ে উঠেছে সবুজ। তবে এখন রাস্তার ধারে সেই ভাবে সারিবদ্ধ তালগাছ আর নেই। রাস্তা চওড়া হওয়ার কারণে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কেটে দেওয়া হয়েছে বহু তালগাছ। তাঁর কাছে একটি গাছ মানে তার একটি ছেলের সমান। সেই গাছগুলি কেটে ফেলায় গাছ দাদুর মনে বিষন্নতার ছায়া। তবে এই গাছ দাদু তার গাছ লাগানোর অভ্যাসকে ছড়িয়ে দিতে চাইছেন নতুন প্রজন্মের মধ্যেও। গাছ দাদুর গাছ লাগাবার উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে ২০১৭ সালে গাছ দাদুর পাশে এসে দাঁড়িয়েছে বাঁকুড়া সারেঙ্গা গ্রিন ফোর্স। এখন শুধু গাছ দাদু নয় দাদুর সাথে এই সারেঙ্গা গ্রিন ফোর্সও সমানতালে পরিবেশ রক্ষার্থে এগিয়ে এসে লাগিয়ে চলেছে বিভিন্ন গাছ।

    আরও পড়ুন: সোশ্যাল মিডিয়ার প্রচারে ধার দিতে চায় সিপিআইএম, চলছে প্রশিক্ষণের চিন্তাভাবনা

    শ্যামাপদ বাবু বলেন আমার ছোটবেলা থেকেই নেশা গাছ লাগানোর। প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষা করার জন্য গাছের সঙ্গে ভালবাসা আমার। নিজের হাতে প্রায় ৫ হাজারের অধিক গাছ লাগিয়েছেন তিনি। তার সব থেকে প্রিয় গাছ তাল গাছ। এই তালগাছ বজ্রপাত নিবারণে সাহায্য করে। তা ছাড়া গাছ থেকে যেমন মুক্ত অক্সিজেন পাওয়া যায় অপরদিকে এই গাছের ছায়ায় আশ্রয় নেন অনেকে। তিনি আরও বলেন রাস্তা চওড়া হওয়ার কারণে রাস্তার দু-পাশে থাকা বহু তাল গাছ কেটে ফেলেছে প্রশাসন। আর চোখের সামনে তার হাতে লাগানো এই তালগাছ গুলিকে কেটে ফেলা হয়েছে বলে তার মন ভারাক্রান্ত। তিনি আপত্তি জানালেও কাজ হয়নি। তবে কেউ যদি গাছ লাগাবার কথা বলেন তাহলে তিনি ছুটে যান সেখানে।

    সারেঙ্গা গ্রিন ফোর্সের মুখপাত্র স্যামল গরাই বলেন সারেঙ্গার গাছ দাদুকে দেখেই আমাদের এগিয়ে আসা। তারপর সারেঙ্গা গ্রীন ফোর্স নামে একটি সংগঠন তৈরি করি আমরা। ‌সেখানে আমরা সারা বছর ধরেই গাছ লাগাই। গাছ একটা এমন জিনিস পৃথিবীতে যত বিপর্যয় আসছে গাছই একমাত্র পারে সবকিছু রোধ করতে। JOYJIBAN GOSWAMI

    Published by:Uddalak B
    First published:

    Tags: Tree, World Environment Day

    পরবর্তী খবর