Home /News /bankura /
Independence Day: ঠাকুরঘরে রোজ পূজিত হন নেতাজি, এই চেয়ারেই বসেছিলেন সুভাষচন্দ্র বসু! অজানা এক গল্প

Independence Day: ঠাকুরঘরে রোজ পূজিত হন নেতাজি, এই চেয়ারেই বসেছিলেন সুভাষচন্দ্র বসু! অজানা এক গল্প

Independence [object Object]

নেতাজির বসা কাঠের চেয়ারে ছবি রেখে বাঁকুড়ার গঙ্গাজলঘাটিতে রোজ পূজিত হন নেতাজি। (Independence Day)

  • Share this:

    #বাঁকুড়া: ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের মহান যোদ্ধা নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু। তিনি বলেছিলেন, 'তোমরা আমাকে রক্ত দাও, আমি তোমাদের স্বাধীনতা দেব '। 'জয় হিন্দ' এর মতো ধ্বনি তুলেছিলেন মহান দেশপ্রেমিক নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু। ১৯৪০ সালের ২৮ শে এপ্রিল প্রথমবার বাঁকুড়ায় আসেন নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু। বাঁকুড়া পৌঁছে গঙ্গাজলঘাটিতে এক সভায় যোগদান করেন তিনি। সেখানে বেশ কয়েক মিনিট বক্তব্যও রাখেন তিনি।

    সেদিন উদ্যোক্তাদের পক্ষে সভামঞ্চে অন্য নেতাদের জন্য কাঠের সাধারণ চেয়ারের ব্যবস্থা করা হলেও নেতাজির জন্য একেবারে নতুন একটি বিশেষ সোফার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। তবে সেই সোফা দেখেই বিরক্তি প্রকাশ করেন নেতাজি। বরং তিনি ওই সোফা সরিয়ে দিয়ে হাতের কাছে থাকা একটি চেয়ার টেনে নিয়ে বসেছিলেন সেখানে। সেদিন সভামঞ্চে নেতাজি যে চেয়ারটি টেনে বসেছিলেন, সেই চেয়ারটি আনা হয়েছিল ওই এলাকার স্থানীয় চিকিৎসক ডাঃ রামরূপ কর্মকারের চেম্বার থেকে।

    আরও পড়ুন: ক্যাশ-কুইন অর্পিতার কাছে সোনারও পাহাড়, 'গয়নার বাক্স' খুলে আদালতে হিসেব দিল ইডি

    নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু বক্তব্য রেখে ওই সভামঞ্চ ছাড়ার পর সেখান থেকে ফিরে যাওয়ার পর নেতাজির স্পর্শ পাওয়া কাঠের চেয়ার নিজের মাথায় করে তার দেশুড়িয়া গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসেন চিকিৎসক ডাঃ রামরূপ কর্মকার। সেই চেয়ার আজও রামরূপ বাবুর বাড়ির ঠাকুর ঘরে সযত্নে রক্ষিত। সেখানে অন্যান্য দেবতার সঙ্গে ওই চেয়ারে নেতাজির ছবি রেখে নিত্য পূজা করা হয় পরিবারের পক্ষ থেকে।

    আরও পড়ুন: অর্পিতাকে মনে হয় ফাঁসিয়ে দেওয়া হয়েছে: রাকেশ

    জানা যায়, গঙ্গাজলঘাটির সভা শেষে দেশুড়িয়া হয়ে বেলিয়াতোড়ের পথে রওনা দেন নেতাজি। নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু তাঁদের গ্রামের পথ দিয়ে যাবেন এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই স্থানীয় বিড়রা গ্রামের মানুষ তাঁকে একটিবার চোখের দেখা দেখতে ও তাঁর কিছু কথা শুনতে রাস্তার দু'পাশে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে পড়েন। কেউ কেউ আবার শুয়ে পড়েন রাস্তাতেই। এমন অবস্থায় গ্রামের বটতলায় হুডখোলা গাড়ি থেকে নেমে মিনিট পাঁচেক বক্তব্য রাখেন নেতাজি। আর তাতেই যেন মানুষের রক্ত আবেগিত হয়ে ওঠে। আর ঐ ঘটনা তখনকার দিনে নিজের চোখে দেখেন রামহরিপুর রামকৃষ্ণ মিশন বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক ননীগোপাল রায়। তখন তাঁর বয়স ছয় বছর ।

    পুরো ঘটনা বিবরণ না দিতে পারলেও নেতাজিকে দেখার যে অভিজ্ঞতা তার কখনও ভোলার নয় তা অকপটে আমাদের ক্যামেরার মুখোমুখি হয়ে জানালেন। তিনি বলেন তাদের বটতলে দাড়িয়ে নেতাজি বেশ কিছু কথা বলেছিলেন। নেতাজি বলেছিলেন, আমি বাঙালি, আমি ভারতীয়, আমি ভারতের জন্য এসেছি। বাংলার ছেলে বাংলার লোকদের দেখবো। আমাদের স্বাধীন হতে হবে। ততক্ষণে গ্রামের আশেপাশের প্রায় আর দশটি গ্রামের মানুষজন যেখানে জমায়েত হয়েছে শুধু একটিবার নেতাজিকে দেখার জন্য।

    ডাঃ রামরূপ কর্মকারের ছেলে নিরঞ্জন কর্মকার বলেন তার বাবার চেম্বার থেকে যে কাঠের চেয়ারটি নিয়ে যাওয়া হয়েছিল সেখানেই নেতাজি সোফা সরিয়ে সেই কাঠের চেয়ার গ্রহণ করেছিলেন বসার জন্য। নেতাজি চলে যাওয়ার পর তার বাবা মাথায় করে সেই চেয়ার নিয়ে এসে তাদের বাড়ির ঠাকুর ঘরে রাখেন এবং সকলকে নির্দেশ দেন যেন এই চেয়ারে কেউ না বসে। তারপর থেকেই বাড়ির ঠাকুর ঘরে যেমন ঠাকুর পূজিত হয় ঠিক তেমনি তাদের ঠাকুরঘরে নেতাজিও দেবতা রূপে পূজিত হন। নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু বিড়রা গ্রামের যে জায়গায় দাঁড়িয়ে বক্তব্য রেখেছিলেন ঠিক সেই জায়গাতেই রামহরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের সম্পাদক স্বামী রামানন্দ মহারাজের অনুপ্রেরণায় ও গ্রামবাসীদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় তাঁর আবক্ষ মূর্তি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

    জয়জীবন গোস্বামী

    First published:

    Tags: Independence Day 2022, Netaji Subhas Chandra Bose

    পরবর্তী খবর