Home /News /bankura /
Bangla News: লাখ লাখ জাল নোট ছাপা চলছে! বাজারে নতুন কৌশলে রোজগার! বাঁকুড়ায় অবাক কাণ্ড

Bangla News: লাখ লাখ জাল নোট ছাপা চলছে! বাজারে নতুন কৌশলে রোজগার! বাঁকুড়ায় অবাক কাণ্ড

উদ্ধার হওয়া জালনোট সহ বিভিন্ন উপকরণ

উদ্ধার হওয়া জালনোট সহ বিভিন্ন উপকরণ

Bangla News: চোখের সামনে ছাপা হচ্ছে জাল নোট! টের পাননি কেউ! অবশেষে যা ঘটল! জানুন

  • Share this:

    #বাঁকুড়া : বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুর থানার অন্তর্গত বিষ্ণুপুরের সত্যজিৎ স্মরণীর একটি স্টুডিও থেকে উদ্ধার বিপুল পরিমাণ জাল নোট সহ প্রিন্টার এবং কম্পিউটার। আটক এক ব্যক্তি। বিষ্ণুপুরের এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। আচার্য স্টুডিও নামে একটি স্টুডিওর আড়ালে দিব্যি চলছিল জাল নোট ছাপার কারবার। এই স্টুডিওর মধ্যে পাওয়া যেত পেন খাতা থেকে শুরু করে বিভিন্ন জেরক্স। তাই কারোর সন্দেহর কোনও জায়গা ছিল না। আর এই ঘটনার টেরও পাননি আশেপাশের কেউ।

    পুলিশ সূত্রে জানা যায় গুরুপদ আচার্য নামে ওই ব্যাক্তি জাল নোট দিয়ে বিভিন্ন দোকানে কেনাকাটা করে অল্প দাম মিটিয়ে যা ফেরৎ পেত সেটাই হত তার রোজগার। অর্থাৎ ৫০০ টাকার নোট দিয়ে সে ১০০ থেকে ১৫০ টাকা মূল্যের জিনিস কিনত। আর বাকী আসল টাকা যেটা ফিরে পেতও সেটা ছিল তার আয়। এভাবে প্রতিদিন চলত তার ব্যবসা। দিন দিন মোটা টাকার অঙ্কের আয় হত তার। প্রতিদিনের মতো গতকালও একই কায়দায় জয়পুরের গোপালনগর গ্রামে ৫০০ টাকার জাল নোট দিয়ে খেলনা কিনতে গিয়েছিল অভিযুক্ত গুরুপদ আচার্য।

    আরও পড়ুন: "আমার অনুষ্ঠানের ধরণ আর রূপঙ্কের ধরণ এক নয়! অনুমতি ছাড়া নাম জড়ান কেন?" প্রতিবাদে রূপম ইসলাম

    গুরুপদর নোট যে জাল তা টের পেতেই তাকে ঘিরে ফেলে গ্রামের মানুষ।এরপর তার কথায় অসংগতি মেলায় গ্রামের লোকেরা গণপিটুনি শুরু করে দেয়। খবর পেয়ে তড়িঘড়ি জয়পুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাকে উদ্ধার করে বিষ্ণুপুর জেলা হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখান থেকে ফাঁস হয় তার জাল নোটের রহস্য। পুলিশ সূত্রে জানা যায় , বিষ্ণুপুর থানার তালডাংরা বিষ্ণুপুর রোডের কাছে ফরেস্ট অফিস লাগোয়া এলাকার বাদিন্দা গুরুপদ আচার্য (৫৯)। তার বাড়িতে এবং স্টুডিওতে তল্লাশি চালাতেই জাল নোট ছাপার ঘটনা প্রকাশ্যে আসে।

    তার স্টুডিও থেকে উদ্ধার করা হয় প্রিন্টার,স্ক্যানার,নোট ছাপার কাগজ সহ অন্যন্য সামগ্রী। এবং সাথে ছাপানো জাল টাকার বান্ডিলও উদ্ধার হয়। এই উদ্ধার হওয়া জাল নোটের বর্তমান বাজার মূল্য ১লক্ষ ৬৫ হাজার ৫৬০ টাকা। উদ্ধার সমস্ত সামগ্রী বিষ্ণুপুর থানার পুলিশ বাজেয়াপ্ত করে। তবে এই জাল নোট কারবারের সাথে আরও কারা কারা যুক্ত আছে বা এই কারবারে কোন বড় চক্র যুক্ত আছে কিনা তা ইতিমধ্যে খতিয়ে দেখা শুরু করেছে বিষ্ণুপুর থানার পুলিশ। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ভারতীয় সংবিধানের ৪৮৯B/৪৮৯C ধারায় মামলা শুরু করেছে বিষ্ণুপুর থানার পুলিশ।

    JOYJIBAN GOSWAMI

    Published by:Piya Banerjee
    First published:

    Tags: Bangla News, Bankura

    পরবর্তী খবর