Home /News /alipurduar /
Alipurduar: টায়ারে জমছে জল! বাড়ছে মশার লার্ভা, ডেঙ্গু রুখতে চলছে সচেতনতা

Alipurduar: টায়ারে জমছে জল! বাড়ছে মশার লার্ভা, ডেঙ্গু রুখতে চলছে সচেতনতা

title=

ডেঙ্গুর সংক্রমণ রুখতে আগেভাগেই ত‍ৎপর কালচিনি ব্লক প্রশাসন। ব্লকের সবচাইতে বেশি ডেঙ্গুপ্রবণ এলাকা জয়গাঁ ও সংলগ্ন এলাকায় চলছে নজরদারী।

  • Share this:

    #আলিপুরদুয়ার: ডেঙ্গুর সংক্রমণ রুখতে আগেভাগেই ৎপর কালচিনি ব্লক প্রশাসন। ব্লকের সবচাইতে বেশি ডেঙ্গুপ্রবণ এলাকা জয়গাঁ সংলগ্ন এলাকায় চলছে নজরদারী। বিশেষ করে টায়ারের দোকানগুলির ওপর গুরুত্বপূর্ণ নজর রাখছে কালচিনি ব্লক প্রশাসন স্বাস্থ্য দফতর। আলিপুরদুয়ার জেলার মধ্যে ডেঙ্গু প্রবণ এলাকা কালচিনি ব্লক। জুন মাসের শেষের দিকে জয়গাঁ এলাকার এক ব্যক্তি ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হন। ব্লক প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানা গিয়েছে বর্তমানে তিনি সুস্থ রয়েছেন। কালচিনি ব্লক প্রশাসনের পক্ষ থেকে সংক্রমিত এলাকা সহ ব্লকের বিভিন্ন জায়গায় পরিষ্কার স্প্রে করার কাজ শুরু হয়েছে।

     

     

    ডেঙ্গু সম্পর্কিত রিপোর্ট-

     

     

    কালচিনি ব্লক স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে২০১৯ সালে ভয়াবহ আকার ধারণ করে ডেঙ্গু কালচিনি ব্লকে। কালচিনি ব্লকে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২২২৮ জন। জেডিএ (জয়গাঁ ডেভেলপমেন্ট অথরিটিএলাকাতেই ২২০০ জন আক্রান্ত হয়েছিল। দুজনের মৃত্যু হয় জয়গাঁতে। ২০২০ তে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা কমে ২১ জনে। ২০২১ সালে ৬৩ জন ডেঙ্গু আক্রান্তের হদিশ মেলে কালচিনি ব্লকে। ২০২০ সালে জন আক্রান্তের হদিশ মিলেছে।

    আরও পড়ুনঃ নেপালি আদিকবি ভানু ভক্তের ২০৮ তম জন্মজয়ন্তী পালন কালচিনি ব্লকে

     

     

    আক্রান্তের সংখ্যা যাতে বৃদ্ধি না পায় সেদিকে কড়া নজর রাখছে ব্লক প্রশাসন। এছাড়াও রাজ্য সরকারের ভেক্টর কন্ট্রোল প্রোগ্রাম-এর কাজ হয়েছে ব্লকের প্রতিটি প্রান্তে। প্রথমেই জয়গাঁ এলাকার তিনটি গ্রাম পঞ্চায়েতে শুরু হয় ভেক্টর কন্ট্রোল প্রোগ্রাম।গত মার্চ মাস থেকে জুন মাস পর্যন্ত চলে ভেক্টর কন্ট্রোল প্রোগ্রামের কাজ। ১৬ টি রাউন্ডে স্বাস্থ্য দফতরের কর্মীদের নিয়ে চলে কাজ।

     

     

    ডেঙ্গু রুখতে কী কী করবেন-

     

     

    কালচিনি ব্লক প্রশাসনের তরফে ডেঙ্গু রুখতে কিছু নিয়ম মেনে চলার কথা বলা হয়েছে। জল জমতে দেওয়া চলবে না। কোথাও ডেঙ্গু মশার লার্ভার হদিশ পেলে ব্লক কার্যালয়ে খবর দিতে। ঘরের ফুলদানী,বালতির জল প্রতিদিন ফেলে দিতে হবে। বাড়ির পাশে নোংরার স্তূপ হলে তা পরিস্কার করতে হবে। ব্লিচিং ছড়াতে হবে।ঘরের কোনো ব্যক্তি,শিশুদের জ্বর দীর্ঘস্থায়ী হলে নিকটবর্তী স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যোগাযোগ করতে হবে। কালচিনি ব্লক প্রশাসনের তরফে টায়ারের দোকানগুলিতে জল জমা থাকলে তা দেখা হচ্ছে।

    আরও পড়ুনঃ করুণ পরিস্থিতি জয়গাঁর রণবাহাদুরবস্তির রাস্তার, পরিস্থিতি ঘুরে দেখলেন বিডিও

     

     

    কালচিনির বিডিও প্রশান্ত বর্মণ জয়গাঁ সংলগ্ন টায়ারের দোকানগুলিতে গিয়ে সতর্ক করছেন ব্যবসায়ীদের।বৃষ্টিপ্রবণ এলাকা জয়গাঁতে টায়ারের দোকানগুলি থেকে উঠে আসে অসাবধানতার ছবি। কিছু টায়ারের দোকানে জমা জলে মিলেছে এই অভিযোগ শুনেই ছুটে আসেন বিডিও। টায়ারের দোকানগুলি থেকে জল ফেলে দিয়ে সেস্থানে স্প্রে করা হয়।কালচিনির বিডিও প্রশান্ত বর্মণ জানান, \"কালচিনি ব্লকে ডেঙ্গু ভয়াবহ আকার যাতে ধারণ না করে তার জন্য ত‍ৎপর ব্লক প্রশাসন।স্বাস্থ্যকর্মীদের বলা হয়েছে প্রতিটি এলাকায় নজরদারী চালাতে।\"

     

     

     

    Annanya Dey

    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Alipurduar, Kalchini

    পরবর্তী খবর