Home /News /west-bardhaman /
Paschim Bardhaman: মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল দম্পতির! বিক্ষোভ জামুরিয়ায়

Paschim Bardhaman: মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল দম্পতির! বিক্ষোভ জামুরিয়ায়

পুজো দেখে আত্মীয়দের বাড়ি থেকে ফেরার পথে মর্মান্তিক পরিণতি হল এক দম্পতির। ট্রলারের চাকায় পৃষ্ঠ মৃত্যু হয়েছে ওই দম্পতির। দুর্ঘটনাগ্রস্থ একজন দুর্ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারিয়েছেন।

  • Share this:

    #পশ্চিম বর্ধমান : পুজো দেখে আত্মীয়দের বাড়ি থেকে ফেরার পথে মর্মান্তিক পরিণতি হল এক দম্পতির। ট্রলারের চাকায় পৃষ্ঠ মৃত্যু হয়েছে ওই দম্পতির। দুর্ঘটনাগ্রস্থ একজন দুর্ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারিয়েছেন। অপরজনের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে মৃত্যু হয়েছে। জামুরিয়ার একটি বেসরকারি কারখানার সামনে এই দুর্ঘটনা হয়েছে। যা দেখার পর রীতিমতো আঁতকে উঠেছেন ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা। দম্পতির মর্মান্তিক পরিণতি দেখে তারা ওই ট্রলার চালকের বিরুদ্ধে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছিলেন। মালবোঝাই ওই ট্রলারটি কারখানা থেকেই বেরিয়ে আসছিল বলে জানা গিয়েছে। তাই কারখানা কর্তৃপক্ষের কাছে ক্ষতিপূরণের দাবিও উঠেছে।

    জানা গিয়েছে, জামুড়িয়া শিল্পতালুকে অবস্থিত শ্যাম মেটালিক কারখানার দুই নম্বর গেটের সামনে কারখানারই মাল বোঝায় ট্রলারের চাকার নিচে পিষ্ট হয়ে মৃত্যু হয়েছে এক দম্পতির। মৃতদের নাম আস্তিক রুইদাস (৩৪) এবং তার স্ত্রী ললিতা রুইদাস (২৭)। পুলিশ সূত্রের খবর, নিহত দম্পতি জামুড়িয়া থানার নন্ডীগ্রামের বাসিন্দা। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গতকাল আস্তিক রুইদাস ও তার স্ত্রী ললিতা রুইদাস মনসা পুজোর অনুষ্ঠানে যোগ দিতে অন্ডালের খান্দরা গ্রামের এক আত্মীয়ের বাড়ি গিয়েছিলেন।

    আরও পড়ুনঃ তিন মাস ধরে পাচ্ছেন না বেতন! চরম সঙ্কটে ১৫০জন শ্রমিক

    এদিন সকালে বাড়ি ফেরার পথে জামুড়িয়া শিল্পতালকে অবস্থিত শ্যাম মেটালিক কারখানার দু নম্বর গেটে একটি ট্রলার তাদের বাইকে ধাক্কা মারে। কারখানার ভিতরে প্রবেশ করার সময় তাদের বাইকে ধাক্কা মারে ট্রলারটি। সঙ্গে সঙ্গে ছিটকে গাড়ির চাকার মধ্যে পড়ে যান দুজনেই। ঘটনাস্থলেই ললিতা দেবীর মৃত্যু হয় বলে জানা গিয়েছে পুলিশ সূত্রে। অন্যদিকে আস্তিক রুইদাসকে গুরুতর আহত অবস্থায় আসানসোল জেলা হাসপাতাল নিয়ে আশা হলে, কিছুক্ষণ চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় তারও মৃত্যু হয়।

    আরও পড়ুনঃ টানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন দুর্গাপুরের তেতুলতলা কলোনি

    এই দুর্ঘটনার খবর পেয়ে এলাকার মানুষ ঘটনাস্থলে পৌঁছন। ঘটনার পরে জামুড়িয়া হরিপুর যাওয়ার মুখ্য রাস্তা বন্ধ করে ব্যাপক ক্ষোভে ফেটে পড়ে স্থানীয়রা। স্থানীয়দের অভিযোগ, কারখানায় দু নম্বর গেটের সামনে অবৈধভাবে পার্কিং করে রাখার ফলেই এই ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে বিশাল পুলিশ বাহিনী। স্থানীয়রা ক্ষতিপূরণের দাবিতে কারখানার এক নম্বর গেট ঘেরাও করেন। বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। পরে কারখানা কর্তৃপক্ষ মৃতদের পরিবারের লোকজন ও পুলিশের সঙ্গে কথা বলে থানায় মীমাংসার আশ্বাস দিলে, বিক্ষোভ তুলে নেয় স্থানীয় মানুষজন।

    Nayan Ghosh
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Asansol, Paschim bardhaman

    পরবর্তী খবর