অফরোডার-এর শখ? বাজেটের মধ্যে হাজির Hero Xpulse 220T BS6

অফরোডার-এর শখ? বাজেটের মধ্যে হাজির Hero Xpulse 220T BS6

যাঁরা কম বাজেটে অফরোডার পেতে চান, এক্স পালস শুধুমাত্র তাদের জন্যই।

যাঁরা কম বাজেটে অফরোডার পেতে চান, এক্স পালস শুধুমাত্র তাদের জন্যই।

  • Share this:
    #নয়াদিল্লি: স্পোর্টস বাইকে কম্ফোর্টেবল নন! আবার একঘেয়ে কমিউটার চালাতেও আর ভাল লাগছে না! পড়েছেন মহা সমস্যায়! মনে মনে অনেক দিন ধরেই অফারোডার-এর শখ পুষে রেখেছেন! তা হলে আর বেশি ভাবতে হবে না। বাজেটের মধ্যেই চলে এসেছে Hero Xpulse 220T BS6। হয়তো রয়্যায় এনফিল্ড হিমালায়ান-এর মতো পুরোপুরি অফরোডার নয়। কারণ হিরোর এই মডেলে কিছুটা কমিউটারের জিন রয়েছে। তবে লুক ও ফিল একেবারে অফরোডার-এর মতো। আর দামটাও এই সেগমেন্টের অন্য বাইকের থেকে অনেকটা কম। ২০০ বা ২২০ সিসি সেগমেন্টে এমনিতেই ভারতীয় বাজারে মডেল খুব কম। তার উপর এই সেগমেন্টে যদি একটু আলাদা ধরনের মোটরসাইকেল খোঁজেন, তাহলে তো হন্যে হতে হবে। তবে যদি অফারেডার-এর শখ থাকে তাহলে এই মোটরসাইকেল আপনার জন্য আদর্শ। যদিও যাঁরা কম বাজেটে অফরোডার পেতে চান, এক্স পালস শুধুমাত্র তাদের জন্যই। 199.6 সিসি অয়েল কুলড, সিঙ্গেল সিলিন্ডার এফআই ইঞ্জিন। 18.1 বিএইচপি পাওয়ার সাড়ে আট হাজার আরপিএম-এ। 16.15 এন টর্ক সাড়ে ছহাজার আরপিএম-এ। ফাইভ স্পিড গিয়ার বক্স। ফুয়েল ট্যাঙ্ক ক্যাপাচিটি ১৩ লিটার। টেলিস্কোপিক ফ্রন্ট ফর্কস, সেভেন স্টেপ অ্যাডজাস্টেবল রিয়ার মনো-শক থাকায় এই মোটরসাইকেল এবড়ো-খেবড়ো রাস্তাতেও সমস্যায় ফেলবে না আপনাকে। সামনে ২৭৬ এমএম ডিস্ক ব্রেক। পিছনে ২০ এমএম ডিস্ক ব্রেক। গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স ১৭৭ এমএম। ব্লুটুথ কানেক্টেড ইন্সট্রুমেন্ট ক্লাস্টার, এলইডি হেডলাইট ও টেইল ল্যাম্প থাকছে। গ্রামের মেঠো পথ হোক বা পাহাড়ি রাস্তা, এই মোটরসাইকেল সব জায়গাতেই সমান সাবলীল। ম্যাট গোল্ডেন, কালো ও লাল- তিনটি আকর্ষণীয় রঙে পাওয়া যাবে এই মডেল। দাম এক লাখ ১২ হাজার ৮০০ টাকা (এক্স শোরুম, দিল্লি)। বিএস-ফোর-এর থেকে bs6 মডেলের দাম প্রায় সাড়ে  ১৭ হাজার টাকা বেশি।
    Published by:Suman Majumder
    First published: