Home /News /sports /
Yash Dhull coach : দিল্লির হয়ে এবার রঞ্জি দলে খেলবেন অনূর্ধ্ব উনিশ অধিনায়ক ইয়াশ ধুল

Yash Dhull coach : দিল্লির হয়ে এবার রঞ্জি দলে খেলবেন অনূর্ধ্ব উনিশ অধিনায়ক ইয়াশ ধুল

প্রথমবার দিল্লির রঞ্জি দলে সুযোগ পেলেন অনূর্ধ্ব উনিশ অধিনায়ক ইয়াশ ধুল

প্রথমবার দিল্লির রঞ্জি দলে সুযোগ পেলেন অনূর্ধ্ব উনিশ অধিনায়ক ইয়াশ ধুল

U19 captain Yash Dhull has been included in Delhi Ranji Team. প্রথমবার দিল্লির রঞ্জি দলে সুযোগ পেলেন অনূর্ধ্ব উনিশ অধিনায়ক ইয়াশ ধুল

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: বাংলার রঞ্জি ট্রফিতে যেমন সুযোগ পেয়েছেন বাঁহাতি ফাস্ট বোলার রবি কুমার, তেমনই দিল্লির হয়ে রঞ্জি খেলবেন ইয়াশ ধুল। অধিনায়ক প্রদীপ সাঙ্গওয়ান। ছোটো থেকেই তার রোল মডেল বিরাট কোহলি, সাফল্যেও স্পর্শ করলেন তিনি ২০০৮ এর কোহলিকে। অনূর্ধ্ব ১৯ দলের অধিনায়ক ইয়াশ ধুল ইংল্যান্ডকে ফাইনালে হারিয়ে জিতে আনলেন বিশ্বকাপ, ঠিক ১৪ বছর আগে বিরাটের নেতৃত্বে এভাবেই দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে বিশ্বকাপ তুলেছিল অনূর্ধ্ব ১৯ দল। উৎফুল্ল এবং গর্বিত তার ছেলেবেলার কোচ রাজেশ নাগার।

    আরও পড়ুন - IPL Australian cricketers: আইপিএলের থেকে গুরুত্বপূর্ণ পাকিস্তান সফর ! স্পষ্ট বার্তা ওয়ার্নার, কামিন্সদের

    স্কুলে পড়াকালীন ইয়াশের সাথে তার বিভিন্ন স্মৃতি তুলে ধরলেন কোচ রাজেশ নাগার। আমি বিরাট ভাইয়ার মত হয়ে চাই, ইয়াশের মুখে বরাবরই শুনতেন নাগার। রান মেশিন বিরাট ছিল তার রোল মডেল, শুধু তাই নয় কোচ নিজেও তার মধ্যে বিরাটের ছায়া দেখতে পেতেন। তিনি বললেন, ইয়াশের ব্যাটিং আগ্রাসী ছিল, সে শট নিত আগ্রাসন নিয়ে, বিরাটের লালিত্য তার মধ্যে দেখা যেত। এমনকি তার ফিল্ডিংয়ের সময়ও বিরাটের ছায়া দেখতে পান বললেন রাজেশ।

    আরও পড়ুন - Baby AB: কে এই 'বেবি এবি', যাঁকে নিয়ে বিশ্বক্রিকেটে এখন হইচই!

    শুধু বিরাট কোহলি নয়, মহেন্দ্র সিং ধোনির মত নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষমতাও ইয়াশের মধ্যে দেখতে পেয়েছেন তার কোচ। তিনি বললেন, অধিনায়ক হিসেবে ইয়াশ ধোনির মতই ধীরস্থির। তিনি তার সতীর্থদের সমর্থন করেন, তাদের উপদেশ দেন। সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় তিনি ঠান্ডা মাথায় থাকেন। তিনি হলেন বিরাট এবং ধোনির সংমিশ্রণ। অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ ফাইনালের আগে তিনি হেডলাইনে এসেছিলেন সেমি ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ১১০ রান করে।

    এটি ছিল ভারতের বিশ্বকাপ সফরের কঠিনতম ম্যাচ, রান তাড়া করতে নেমে ৩৭ রানেই দুটো উইকেট পরে যায়। তারপর ইয়াশ এবং ভাইস ক্যাপ্টেন শহিক রশিদ মিলে ম্যাচজয়ী ২০৪ রানের পার্টনারশিপ খেলেন। ৯ বছর বয়সী ইয়াশ তার দাদুর সাথে যেতেন একাডেমিতে। সেখানেই তিনি কোচ রাজেশ নাগারের হাতে পড়েন।

    তার দাদু ভারতীয় বিমান বাহিনীতে ছিলেন, হয়তো ইয়াশের লড়াকু মনোভাবের উৎস এখন থেকেই। একাডেমিতে গিয়ে বাকি নতুন শিক্ষার্থীদের মতই রাজেশ তাকে প্যাড পড়তে বলেন এবং বেশ কয়েকটি বল করেন তাকে। তার ব্যাটিং কৌশল এবং দক্ষতা দেখে অবাক হয়ে যান রাজেশ। বয়স কম হলেও ইয়াশ মানসিকভাবে বেশ পরিণত। তিনি শুধু ক্রিকেট খেলতে চান মন দিয়ে। জুনিয়র বিশ্বকাপ জয় তার মাথা ঘুরিয়ে দেবে না, নিশ্চিত কোচ।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published:

    Tags: Ranji Trophy, U19 World Cup 2022, Yash Dhull

    পরবর্তী খবর