Home /News /sports /
Tokyo Olympics : বক্সিংয়ে ভারতের 'রকি বালবোয়া' হতে প্রস্তুত অমিত পাংহাল

Tokyo Olympics : বক্সিংয়ে ভারতের 'রকি বালবোয়া' হতে প্রস্তুত অমিত পাংহাল

৫২ কেজি বিভাগে ভারতকে পদকের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন অমিত

৫২ কেজি বিভাগে ভারতকে পদকের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন অমিত

বিশ্বের এক নম্বর বক্সার হিসেবে টোকিও অলিম্পিকের রিংয়ে নামবেন অমিত পাংহাল। ৫২ কেজির বিভাগে তিনি বর্তমানে বিশ্বের সেরা

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: উচ্চতা পাঁচ ফুট পাঁচ ইঞ্চি। আপাতদৃষ্টিতে নিরীহ একটি ছেলে। মুখেও হিংস্রতার ছাপ নেই। কিন্তু এই ছেলেই বদলে যায় বক্সিং রিংয়ে নামলে। বিশ্বের এক নম্বর বক্সার হিসেবে টোকিও অলিম্পিকের রিংয়ে নামবেন অমিত পাংহাল। ৫২ কেজির বিভাগে তিনি বর্তমানে বিশ্বের সেরা। কিন্ত আকৃতিতে ছোট হওয়া সত্বেও তিনি তা নিয়ে বিশেষ চিন্তিত নন।

    শুধু একটি সমস্যা তার জন্য অপেক্ষা করছে। রিও অলিম্পিকে সোনাজয়ী উজবেক বক্সার সখোবিদিন জৈরভ। তিনবার অমিতের বিরুদ্ধে রিংয়ে নেমে তিনবারই বাউট জেতেন জৈরভ। অমিত একটি ভারতীয় সংবামাধ্যমকে কিছু প্রশ্নের জবাব দিলেন। তিনি জানিয়েছেন তার প্রস্তুতি জোরকদমে চলছে। তার সম্পূর্ন প্রচেষ্টা যাতে তার স্কিল সবার থেকে শক্তিশালী হয়। এটি তার প্রথম অলিম্পিক তাই তিনি একটু হলেও চাপ অনুভব করছেন।

    তিনি জানেন দেশ তার থেকে কী আশা করছে এবং তিনি তার সেরাটা উজাড় করে দেবেন। অমিতকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল করোনা পরিস্থিতি কিভাবে তার মানসিক অবস্থায় প্রভাব ফেলেছে, তার জবাবে তিনি বললেন 'বক্সিং এমন একটি ক্রীড়া যাতে শারীরিক স্পর্শ হয়। গত বছর আমি কারোর সঙ্গে অনুশীলন করতে পারিনি। শেষ পাঁচ ছয় মাসে আমরা ঠিক করে অনুশীলন করতে এবং প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পেরেছি। আমি এখন আগে কী হয়েছে সেটা নিয়ে ভাবছি না। এখন অগ্রাধিকার পাবে আমার শারীরিক এবং মানসিক স্থিতি চূড়ান্ত পর্যায়ে রাখা।'

    সখোবিদিন জৈরভের ব্যাপারে তাকে জিজ্ঞেস করায় তিনি বললেন যে শেষবার এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের বাউট আসলে তিনি জিতেছেন, কিন্ত বিচারকদের ফলাফল জৈরভের পক্ষে যায়। তিনি আরো বললেন যে পুরনো কথা ভুলে তিনি এখন অনেকটা উন্নতি করেছেন। জৈরভের বিরুদ্ধে রণনীতি তৈরি করতে সময় দিয়েছেন আলাদা করে। তিনি তার রণনীতি সংবামাধ্যমকে জানাননি কিন্তু বললেন যে তার প্রচেষ্টা এশিয়ান গেমস এর থেকে অনেকটা বেশি হবে এইবার। উজবেক বক্সারকে সামনে পেলে জবাব দিতে চাইবেন।

    অবসর সময় তিনি খুব একটা পান না, কিন্তু রবিবার তার ফাঁকা থাকে, সেদিন ইন্টারনেটে সিনেমা দেখে এবং মোবাইল ফোনে গেম খেলে সময় কাটান। তার বন্ধু মণীশ এবং সঞ্জিতও তার সঙ্গী হয় তখন। তবে এবার দর্শক থাকবে না টোকিওতে। ফাঁকা গ্যালারিতে মিলবে না কোনও সমর্থন। অমিত মনে করেন বর্তমান পরিস্থিতিতে কিছু করার নেই। দর্শক থাকলে অবশ্যই ভাল হত। কিন্তু দিনের শেষে যখন তেরঙ্গার সম্মান রক্ষার্থে নামবেন, তার চেয়ে বেশি মোটিভেশন আর কী হতে পারে ?

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published:

    Tags: Tokyo Olympics 2020

    পরবর্তী খবর