• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • OTHER SPORTS TOKYO OLYMPICS 2020 LOVLINA BORGOHAIN WAS CORONA POSITIVE AND GOT OUT FROM TEAM DD

করোনা হওয়ায় গতবছর দল থেকে বাদ পড়তে হয়েছিল লাভলিনাকে, দ্বিগুণ পরিশ্রমের ফলেই আজ বক্সিংয়ে পদক জয়

Tokyo Olympics 2020: Lovlina Borgohain was corona positive and got out from team

টোকিও থেকে নিউজ18 বাংলাকে লাভলিনার লড়াইয়ের গল্প জানাচ্ছিলেন জাতীয় দলের মুখ্য প্রশিক্ষক আলি কামার।

  • Share this:

#কলকাতা: গত বছর সেপ্টেম্বরে করোনা হওয়ার ফলে পারফরমেন্সের অনেকটাই ঘাটতি হয়েছিল লভলিনা বরগোঁহাইয়ে। বাদ পড়তে হয় জাতীয় দল থেকে। সেখান থেকে কামব্যাক করে ফিরে আসেন। অলিম্পিক বক্সিংয়ে ব্রোঞ্জ পদক জয়ী অসমের লাভলিনা‌ ফিরে আসার লড়াইটা কতটা কঠিন ছিল। টোকিও থেকে নিউজ18 বাংলাকে লাভলিনার লড়াইয়ের গল্প জানাচ্ছিলেন জাতীয় দলের মুখ্য প্রশিক্ষক আলি কামার। আলি বলেন, "অলিম্পিক গেমস এক বছর পিছিয়ে যাওয়াতে কিছুটা সুবিধা হয়েছিল। লাভলিনার করোনা হওয়ার পর পারফরম্যান্স অনেকটাই কমে যায়। দুটি খেলায় আশানুরূপ ফল করতে পারেননি। সেই সময় ওকে মানসিকভাবে চাঙ্গা করাটাই ছিল সবথেকে কঠিন কাজ। তবে লাভলিনা অত্যন্ত পরিশ্রমী। দ্বিগুণ পরিশ্রম করে নিজের সেরা পারফর্মেন্স আবার ফিরে পেয়েছিল। ইতালিতে অলিম্পিকের আগে ট্রেনিংটা সবথেকে কাজে দিয়েছিল। কঠিন পরিশ্রমের ফল আজ পেয়েছে লাভলিনা।"

দেশের জন্য ব্রোঞ্জ পদক নিয়ে আসলেও কিছুটা মন খারাপ লাভলিনার। আলি বলেন, "দেশের জন্য সোনা জিততে না পারার কারণে ও ক্ষমা চেয়ে নিয়েছে। আসলে অলিম্পিক গেমসে বক্সিং থেকে আগে দুবার ব্রোঞ্জ পদক জিতেছে ভারত। ২০০৮ সালে বিজেন্দ্র সিং ও ২০১২ সালে মেরি কম। তাই লাভলিনা চেয়েছিলেন টোকিও অলিম্পিকে পদকের রং বদলাতে। ফাইনালে ওঠার লক্ষ্যে শেষ ৪ দিন কঠোর পরিশ্রমও করেছিল। প্রতিপক্ষের ভিডিও দেখিয়ে ওকে ট্রেনিং করানো হয়। তবে ম্যাচে কিছুটা পারফরমেন্সে খামতি থেকে গেছে। তবে প্রথমবার অলিম্পিকে গিয়েই দেশকে পদক নিয়ে আসতে পারার কারণে উচ্ছ্বসিত লাভলিনা।" মাত্র ২৩ বছর বয়সেই অলিম্পিকে পদক এনে দেওয়ার লাভলিনা পরবর্তী অলিম্পিকে পদক পেতে পারেন বলে দাবি করেন আলি কামার। ২০০২ সালে ম্যানচেস্টার কমনওয়েলথ গেমসে সোনা জয়ী প্রাক্তন বক্সার আলি কামারের মতে, "একজন সেরা বক্সারের যা যা গুণ থাকা দরকার লাভলিনার মধ্যে সেই সবকিছু রয়েছে। ওর উচ্চতা ওর প্লাস পয়েন্ট। দেশের সেরা বক্সারদের মধ্যে অন্যতম। চলতি অলিম্পিক্সের অভিজ্ঞতা কাজে লাগবে ভবিষ্যতে। মাত্র তিন বছর পরেই আবার অলিম্পিক্স। এখন থেকে পরিশ্রম করলে পরবর্তী অলিম্পিকেও লাভলিনা দেশকে সাফল্য এনে দিতে পারবে।"

বক্সিংয়ের ৬৯ কেজি বিভাগ সেমিফাইনালে লাভলিনার প্রতিপক্ষ ছিল তুরস্কের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ক্রমতালিকায় এক নম্বরে থাকা প্রতিযোগী সুরমেননিল। ৫-০ ব্যবধানে হারতে হয় লাভলিনাকে। ঠিক কোথায় ভুল হলো ভারতীয় বক্সারের? কোচ আলির মতে, "প্রথম রাউন্ডে পরিকল্পনা অনুযায়ী লাভলিনা খেলেছিল। বাকি দুটো রাউন্ডে সেভাবে পাঞ্চ করতে পারেনি। শেষে চারদিন ধরে বিপক্ষের সমস্ত ভিডিও দেখে ও তৈরি হয়েছিল। তবে সব সময় ম্যাচের মুহূর্তে পরিস্থিতি অনেকটা আলাদা হয়। আজকের দিনটা হয়তো লাভলিনার ছিল না। ও সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছে। দেশকে পদক এনে দিয়েছে। ওর সাফল্যে আমরা সবাই খুশি‌।"

ERON ROY BURMAN

Published by:Debalina Datta
First published: