• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • OTHER SPORTS SUSHILA DEVI CAN BE THE DARK HORSE FOR INDIA AS LONE JUDOKA IN TOKYO OLYMPICS RRC

Tokyo Olympics : মেরি কমের রাজ্যের মেয়ে জুডোতে স্বপ্ন দেখাচ্ছেন ভারতকে

টোকিওতে চমক হতে পারেন অখ্যাত সুশীলা দেবী

২০২০ টোকিও অলিম্পিক্স এ তিনিই প্রথম মহিলা জুডোকা যিনি ভারতকে প্রতিনিধিত্ব করবেন। সব বাধা অতিক্রম করে ২৬ বছর বয়সী এই মহিলা ভারতের একমাত্র জুডোকা হতে চলেছেন

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: ২০১৮ - তে হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটের জন্য এশিয়ান গেমস্ থেকে ছিটকে গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু এবার চোট কাটিয়ে অলিম্পিক্স এ পদক আনতে প্রস্তুত তিনি। ছোটবেলা থেকেই তার স্বপ্ন ছিল তিনি তার পরিবারের শ্রেষ্ঠ জুডোকা হবেন। তার কাকা দিনিত সিং আন্তর্জাতিক খেলোয়াড় ছিলেন। অতীতে শিলাক্সি সিং দেশের সর্বোচ্চ প্রতিযোগিতায় সোনা পেয়েছেন।কিন্তু সুশীলা দেবী তারও একধাপ এগিয়ে আছেন।

    ২০২০ টোকিও অলিম্পিক্স এ তিনিই প্রথম মহিলা জুডোকা যিনি ভারতকে প্রতিনিধিত্ব করবেন। সব বাধা অতিক্রম করে ২৬ বছর বয়সী এই মহিলা ভারতের একমাত্র জুডোকা হতে চলেছেন। তার মতে অলিম্পিকে খেলা সব খেলোয়াড়ের স্বপ্ন।পদক জেতার চাপ সবার মধ্যেই থাকে,তাই অনেকে এই সর্বোচ্চ মঞ্চে নিজের সেরাটা দিতে পারেন না। কিন্তু তিনি মনে করেন তার ক্ষেত্রে এরকম কোনো চাপ নেই।

    নিজের সেরা দিতে তিনি সর্বদাই প্রস্তুত। তিনি পদক জেতার ব্যাপারে আশাবাদী। অলিম্পিকের প্রস্তুতের জন্য নিজেকে উজাড় করে দিয়েছেন সুশীলা দেবী। মণিপুরের এই মেয়েটি গ্লাসগোর কমনওয়েলথ গেমসে রূপো পান। এই টুর্নামেন্টের আগে প্রস্তুতির জন্য তিনি ফ্রান্সে অলিম্পিক্স প্রিপ্যারেটরি ক্যাম্পে অংশগ্রহণ করেন। তার মতে এই ক্যাম্পে অংশগ্রহণ করে তিনি অনেক উপকৃত হয়েছেন।

    ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম রাউন্ডেই তিনি ছিটকে যান। মূলত এই প্রস্তুতি ক্যাম্প তাকে মানসিকভাবে প্রস্তুত করেছে অলিম্পিকের আগে।এছাড়াও কোরোনার জন্য প্রস্তুতিতে যে বিঘ্ন ঘটেছে তার আগে এই ক্যাম্প খুব দরকার ছিল বলে তিনি মনে করেন। হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটের কারণে ২০১৮ এশিয়ান গেমস থেকে ছিটকে যান তিনি। তিনি বলেন যে এই কারণে তিনি মানসিকভাবে বিদ্ধস্ত হয়ে পড়েছিলেন। কিন্তু এখন তিনি তা কাটিয়ে উঠে নিজের সেরা দিতে প্রস্তুত।

     পদক  আনবেন বলে তার বিশ্বাস। চোট সারিয়ে খেলার জন্য মুখিয়ে আছেন সুশীলা। তার কোচের ও বিশ্বাস তিনি সাফল্য পাবেনই। তার কোচ, জিভান শর্মার মতে এই টোকিও অলিম্পিক্স এর ডার্ক হর্স সুশীলা। মেয়েটির পরিশ্রম করার ক্ষমতা এবং লড়াকু মানসিকতা প্রশংসা করার মত। মেরি কমের রাজ্যের মেয়ে বলে কথা ! লড়াকু তো হতেই হবে।  তাই জীবন বাজি রেখেও লড়তে প্রস্তুত এই মেয়ে।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: