• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • OTHER SPORTS FATHER OF LOVLINA BORGOHAIN WILL NOT WATCH HER BOUT IN TOKYO OLYMPICS 2020 SEMIFINAL DD

Lovlina Borgohain|| কিছুক্ষণের মধ্যেই রিংয়ে লাভলীনা, ২০ মিনিটের জন্য স্থগিত হবে অসম বিধানসভা, তবে বাবা দেখবেন না মেয়ের ম্যাচ!

Father of Lovlina Borgohain will not watch her bout in Tokyo Olympics 2020 semifinal

অসম বিধানসভা স্থগিত রাখার বিষয়ে জানিয়েছেন মন্ত্রী পীযূষ হজারিকা৷ সমস্ত বিধায়ক যাতে বক্সিং রিংয়ে লাভলীনার লড়াইয়ের সাক্ষী হতে পারেন৷

  • Share this:

    #অসম: টোকিও অলিম্পিক্সের সেমিফাইনালে অসমের ছোট্ট গ্রামের মেয়ে লাভলীনা৷  ইতিহাস তৈরি করে ফেলেছেন পদক নিশ্চিত করে সেমিফাইনালে ওঠার সঙ্গে সঙ্গেই, এবার আরও বড় চ্যালেঞ্জ৷ টোকিও অলিম্পিক্সের (Tokyo Olympics 2020) ৬৯ কেজি বিভাগে তাঁর প্রতিপক্ষ বর্তমানের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন বুসেনাজ সুরমেনেলি (Busenaz Surmeneli)৷ অলিম্পিক্সে পদক নিশ্চিত করা লাভলিনা এই মুহূর্তে প্রতিপক্ষ কে তা নিয়ে ভাবতে চান না, তিনি চাইছেন এই মেগা সেমিফাইনাল জিতে ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করতে৷ ২০০৮ সালে বিজেন্দর সিং . ২০১২ সালে মেরিকম ইতিমধ্যেই বক্সিংয়ে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছেন৷ লাভলীনার পদক ৯ বছরে অলিম্পিক্সের মঞ্চে বক্সিংয়ে ভারতের প্রথম পদক হবে৷ তবে ফাইনালে পৌঁছনোর লক্ষ্য এই অসমিয়া তরুণী দেখছেন যা আজ অবধি কোনও ভারতীয় বক্সার করতে পারেননি৷ এদিকে লাভলীনার ম্যাচের সরাসরি সম্প্রচার দেখতে অসম বিধানসভার কাজ স্থগিত রাখা হবে ২০ মিনিটের জন্য৷

    এদিকে লাভলীনার বাবা জানিয়েছেন তিনি মেয়ের ঐতিহাসিক সেমিফাইনাল ম্যাচ দেখবেন না৷ অসম বিধানসভা স্থগিত রাখার বিষয়ে জানিয়েছেন মন্ত্রী পীযূষ হজারিকা৷ সমস্ত বিধায়ক যাতে বক্সিং রিংয়ে লাভলীনার লড়াইয়ের সাক্ষী হতে পারেন৷ এদিকে এর আগে অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব লাভলীনার সাফল্য কামনায় পুজোর আয়োজন করেছিলেন৷

    পুজো আয়োজিত হয়েছিল নেহেরু স্টেডিয়ামে, প্রদীপ জ্বেলে হয়েছিল পুজো, এছাড়া প্রদেশের বিভিন্ন মন্দির, মসজিদ ও চার্চেও লাভলীনার জন্য প্রার্থনা করা হয়৷  কারণ লাভলীনা অসমের প্রথম ক্রীড়াবিদ হিসেবে পদক জিতবেন৷

    ২৩ বছরের লাভলীনা অলিম্পিক্সে এখনও অবধি নিজের সহজাত খেলা ধরে রেখেই একের পর এক বাধা টপকেছেন৷ তিনি এবছরেই অনুর্ধ্ব ২৩ আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে সোনা জিতেছেন৷

    Published by:Debalina Datta
    First published: