• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • FOOTBALL PREGNANT TEEN MISCARRIAGE AS KICKED ON STOMACH AFTER ENGLAND LOSS IN EURO 2020 FINAL DD

ইউরো ফাইনালের দিন চরম হেনস্তা, পেটে লাথি মেরে নষ্ট করা হল কিশোরীর গর্ভস্থ সন্তান

pregnant teen miscarriage as kicked on stomach after england loss in euro 2020 final- Photo- Representative

দ্য সানে নিজের নক্কারজনক ও ভয়াবহ অভিজ্ঞতা তুলে ধরলেন নিগৃহীতা প্রেগন্যান্ট কিশোরী৷

  • Share this:

    #কেন্ট: গিয়েছিলেন আনন্দ করতে, ফিরলেন একরাশ দুঃখ সঙ্গী করে৷ পাশাপাশি চোকাতে হল জীবনের চরম এক মূল্য৷  ১৮ বছরের বেথ নিউম্যান ইউরো ২০২০ ফাইনালের পর চরম হিংসার শিকার হন ৷ যাঁর জেরে তাঁর গর্ভস্থ সন্তান নষ্ট হয়ে যায়৷ একদল মহিলা কোনও প্ররোচনা ছাড়াই তাঁর পেটে লাথি মেরে তাঁর গর্ভস্থ সন্তানকে নষ্ট করে দেন৷

    রবিবার কেন্টের পিন্ট পট পাবে এই ঘটনা ঘটেছে৷ বেথের ফোনও চুরি হয়ে যায়৷ তিনি নিজের ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে জানিয়েছেন, ‘‘প্রথম মেয়েটিকে পেরিয়ে আমি পাবের দিকে যাচ্ছিলাম সেখানে আমার বন্ধুরা ছিল৷ প্রথম মেয়েটি আমাকে ওপর থেকে নিচ অবধি দেখে৷ ’’

    ‘‘আমিও মেয়েটির দিকে দেখি এতেই সে জ্বলে ওঠে যেন হোয়াট দ্য ****যাতে এরকমভাবে দেখছ ! আমি বলি কী অসুবিধা?’’

    ‘‘আমি হেঁটে চলে যেতে শুরু করি, সে পিছন থেকে এসে আমায় জাপটে ধরে, আর আমার মাথার একদিকে জোরে আঘাত করে৷’’ ‘‘আমি নিজেকে বাঁচানোর চেষ্টা করি, কিন্তু তার আগেই আমার ওপর অনেকে চেপে পড়ে৷ ’’

    বার্থের মা ঘটনা জানতে পেরে সেখানে ছুটে আসেন তিনি দেখেন তাঁর মেয়ে খারাপভাবে আহত অবস্থায় পড়ে রয়েছে৷ তরুণীকে সেখানে নিয়ে যাওয়া হয় যেখানে তাঁর মাথার চোটের চিকিৎসা করা হয়৷ তাঁকে চারদিন ভর্তি থাকতে হয়৷

    অ্যাম্বুলেন্সের মধ্যে তাঁর সারা শরীরে কাঁপুনি ধরছিল৷ অসহ্য যন্ত্রণা কাতর ছিলেন তিনি৷ বেথ আরও যোগ করেন, ‘‘আমি আমার ঘাড় ঘোরাতে পারছিলাম না,  হাঁটতে পারছিলাম না, মাথা থেকে পা অবধি ক্ষতবিক্ষত ছিলাম৷ খুবই জঘন্য পরিস্থিতি৷ ’’

    ঘটনা আরও দুঃখজনক জায়গায় পৌঁছয় যখব তাঁর রক্তক্ষণ শুরু হয় ও তাঁর গর্ভপাত হয়ে যায়৷ বেথ এখন এমআরআই করাবেন কারণ আক্রমণ হওয়ার পর থেকে এখনও নিয়মিত তাঁর কাঁপুনি হচ্ছে৷ তিনি আক্রমণের কারণ সম্পর্কে একেবারেই দিশাহীণ, তাঁকে দেখতে পছন্দ হয়নি বলেই তাঁর ওপর এইরকম আক্রমণ বলে তাঁর মনে হচ্ছে৷ ’’

    বেথ আরও যোগ করেন , ‘‘আমি বাড়ি ছেড়ে বেরোতে ভয় পাই৷ ’’

    ‘‘আমি জানি না এর মতো (অ্যাসল্ট) আরও কিছু হবে কিনা, আমি একা থাকতে চাই না মনে হয় ফিট হয়ে যাবে৷ ’’

    কেন্ট পুলিশ কনফার্ম করেছে এই বিষয়টি তাঁরা তদন্ত করে দেখছে এবং সাক্ষীদের এগিয়ে আসার জন্য আবেদন করেছে৷

    Published by:Debalina Datta
    First published: