• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • FOOTBALL PELE BRAZIL LEGEND UNDERWENT SUCCESSFUL COLON TUMOR SURGERY IN SAO PAULO RRC

Pele Fit : কোলন টিউমার অস্ত্রোপচার করিয়ে কঠিন ম্যাচ জিতলেন পেলে

অস্ত্রোপচার করিয়ে ভাল আছেন পেলে

Pele Brazil legend underwent successful colon tumor surgery. ব্রাজিলের ফুটবল কিংবদন্তি পেলে প্রাণ নাশক টিউমার থেকে রক্ষা পেলেন অস্ত্রপ্রচারের পর। অস্ত্রপ্রচার হওয়ার পর পেলে সোশ্যাল মিডিয়ায় তার সুস্থ হওয়ার কথা জানালেন এবং এই রোগ থেকে মুক্তি পাওয়াকে, বড় জয় বলে সম্বোধন করলেন

  • Share this:

    #রিও ডি জেনেরিও: ব্রাজিলের ফুটবল কিংবদন্তি পেলে প্রাণ নাশক টিউমার থেকে রক্ষা পেলেন অস্ত্রপ্রচারের পর। অস্ত্রপ্রচার হওয়ার পর পেলে সোশ্যাল মিডিয়ায় তার সুস্থ হওয়ার কথা জানালেন এবং এই রোগ থেকে মুক্তি পাওয়াকে, বড় জয় বলে সম্বোধন করলেন।পেলে বললেন তার মলাশয়ের ডানদিকে একটু টিউমার এর সম্ভাবনা দেখা গেছিল। সোমবার ৮০ বছর বয়সী বিশ্বকাপ জয়ী এই ফুটবলারের অস্ত্রপ্রচার হয়। তারপর তিনি হাসপাতালের আই সি ইউতে ছিলেন এবং মঙ্গলবার তাকে সাধারণ বেডে দেওয়া হয়।

    সোমবার সোশ্যাল মিডিয়াতে পেলে জানালেন তার 'বড় জয়ের' কথা। গত সপ্তাহে পেলে তার নিয়মিত শারীরিক পরীক্ষা করাতে গিয়েছিলেন এবং সেখানেই তার টিউমার ধরা পড়ে কোলোনে। হাসপাতাল থেকে জানানো হয়েছে, পেলের হৃদযন্ত্রের পরীক্ষা এবং কিছু ল্যাব টেস্টের সময়ই জানা গেছে তার মলাশয়ের ডানদিকে টিউমারের উপস্থিতি। পেলে জানালেন, তার সুস্থতার জন্য সর্বশক্তিমান ঈশ্বর, ডাক্তার ফাবিও এবং ডাক্তার মিগেলকে ধন্যবাদ জানাতে চান।

    তিনি বললেন, আগের শনিবার আমার একটি অস্ত্রপ্রচার হয়েছে, এবং তাতে আমার মলাশয়ের ডান দিক থেকে একটি সন্দেহজনক টিউমার বাদ দেওয়া হয়েছে। শেষ সপ্তাহে আমি যে পরীক্ষাগুলো করিয়েছিলাম তাতে এই টিউমার ধরা পড়েছে। তিনি নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করেছেন এই রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করে জেতার জন্য। তিনি কৌতুক হিসেবে বললেন এই ম্যাচে তার পাশে তার পরিবার এবং বন্ধুরা থাকবেন। তিনি আশাবাদী হয়ে এবং মুখে হাসি নিয়ে এই যুদ্ধে নেমেছেন।

    তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় আরো কৌতুক করে বলেন "বন্ধুরা আমি অজ্ঞান হয়নি এবং আমি খুব ভালো আছি। আমার নিয়মিত শারীরিক পরীক্ষাতেই ধরা পড়েছে, যেটা মহামারীর জন্য আগে করানো সম্ভব হয়নি"। এডসন আরন্তেস দে নাসিমেনতো, ওরফে পেলে ইতিহাসের সব থেকে বড় প্লেয়ারদের মধ্যে একজন। একমাত্র পুরুষ ফুটবলার হিসেবে তিনবার ব্রাজিলের হয়ে বিশ্বকাপ জয় করেছেন, ১৯৫৮, ১৯৬২ এবং ১৯৭০ সালে।

    ৭৭ গোল নিয়ে ব্রাজিলের সর্বোচ্চ আন্তর্জাতিক গোলদাতা তিনি। ২০১২ সালে ব্যর্থ হিও রিপ্লেসমেন্ট সার্জারির পর তার চলন ক্ষমতা কমে যায়। তারপর তিনি ক্রাচ এবং হুইলচেয়ার ব্যবহার করেন। এছাড়াও কিডনি এবং প্রোস্টেট এর অসুখেও হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: