• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • ISL final: ভিলেন তিরি,অরিন্দম, সবুজ মেরুনকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই সিটি

ISL final: ভিলেন তিরি,অরিন্দম, সবুজ মেরুনকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই সিটি

ফাইনালে নায়ক মুম্বাইয়ের বিপিন সিং photo/ ISL Twitter

ফাইনালে নায়ক মুম্বাইয়ের বিপিন সিং photo/ ISL Twitter

ফাইনালে বাজিমাত মুম্বইয়ের, প্রতিশোধ নেওয়া হল না এটিকে মোহনবাগানের

  • Share this:

    মুম্বাই সিটি- ২ এটিকে মোহনবাগান-১

    #গোয়া: শনিবার আইএসএল ফাইনালে এটিকে মোহনবাগানের কাছে ছিল প্রতিশোধের ম্যাচ। লিগ পর্যায় দুবার হারের মুখ দেখতে হয়েছিল এই মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে। অন্যদিকে মুম্বই সিটির কাছে এই ফাইনালটা ছিল ডবল লটারি জেতার মত। আগেই এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে কোয়ালিফাই করে গিয়েছে দল। এদিন ফাইনালটা জিতলে সোনায় সোহাগার মত ব্যাপার ছিল তাঁদের সামনে। শেষপর্যন্ত তাই হল। ফাইনালে বাজিমাত মুম্বইয়ের, প্রতিশোধ নেওয়া হল না এটিকে মোহনবাগানের। হাবাস তিনবার ফাইনালে উঠে এই প্রথম হারলেন।

    কথায় বলে দিনের শুরুটা দেখে বোঝা যায় গোটা দিনটা কেমন যাবে। কিন্তু সব সময় এই কথা খাটে না। এদিন ম্যাচের আঠারো মিনিটে গোল করে দলকে এগিয়ে দিয়েছিলেন ডেভিড উইলিয়ামস। রয় কৃষ্ণর প্রচেষ্টায় জহুর ভুলে বক্সের ভেতরে বল পেয়ে যান উইলিয়ামস। জোরালো শটে অমরিন্দরকে পরাস্ত করেন তিনি। কিন্তু একটা লং বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে তিরি বল জড়িয়ে দিলেন নিজেদের জালে। অরিন্দম সঠিক পজিশনে ছিলেন না। এরপর ব্যবধান বাড়ানোর আরও দুটো সুযোগ এসেছিল এটিকে মোহনবাগানের সামনে। প্রথমবার জাভি হার্নান্দেজের ফ্রিকিক পোস্টে লেগে বাইরে চলে যায়। আর একবার জাভির শট অমরিন্দর কোনও মতে সেভ করেন।

    মুম্বইয়ের ডিফেন্ডার অময় চোট পেয়ে বেরিয়ে যাওয়ার পর পরিবর্ত ফুটবলার হিসেবে নামেন রকিপ। মুম্বইয়ের হয়ে সহজ সুযোগ হারান হুগো বুমো। আর একবার রকিপের পায়ে লেগে বল মুম্বইয়ের জালে জড়িয়ে গেলেও অফসাইড দেওয়া হয়। এটিকে মোহনবাগান ফুটবলাররা প্রতিবাদ জানিয়ে রেফারি দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। কিন্তু রয় কৃষ্ণ গোলরক্ষকের সামনে ব্লক করেছিলেন বলে গোল দেননি রেফারি।

    এরপর গদার্ড এবংওগবেচেকে নামিয়ে চাপ বাড়ানোর রাস্তায় হাঁটে মুম্বই। নির্ধারিত  সময় শেষ হওয়ার এক মিনিট আগে গোল করে মুম্বইকে জয় এনে দেন বিপিন সিং। এই গোলটার ক্ষেত্রেও দায় এড়াতে পারেন না তিরি এবং অরিন্দম। ওগবেচেকে আটকাতে ব্যর্থ হল তিনজন সবুজ মেরুন ডিফেন্ডার। নাইজেরিয়ান বল পেছনে দিলে বিপিন বাপায়ের শটে বল জড়িয়ে দেন জালে। সন্দেশ চেষ্টা করেও বল আটকাতে পারেননি।

    ম্যাচের শেষ বাঁশি বাজতেই হতাশায় মাঠে শুয়ে পড়লেন রয় কৃষ্ণ, ডেভিড উইলিয়ামস, প্রীতম কোটালরা। একজন কোচিং স্টাফ এসে অরিন্দমকে তুলে ধরলেন। জার্সিতে মুখ ঢেকে চোখের জল ফেলছিলেন বাঙালি গোলরক্ষক। টুর্ণামেন্টে বেশকিছু অনবদ্য সেভ করেছেন তিনি। এবার টুর্নামেন্টের সেরা গোলরক্ষক হিসেবে গোল্ডেন গ্লাভস জিতলেন। কিন্তু আসল সময় দলকে ডোবালেন তিনি। সঙ্গে তিরি।

    ইতিমধ্যেই এই স্প্যানিশ ডিফেন্ডারের সঙ্গে চুক্তি বাড়িয়েছে সবুজ মেরুন। কিন্তু শেষ কয়েকটা ম্যাচে তাঁর পারফরম্যান্স গ্রাফ নীচের দিকে। ম্যাচ শেষে চ্যাম্পিয়ন লেখা কালো টি শার্ট পরে মাঠ প্রদক্ষিণ করছিলেন মুম্বাই ফুটবলাররা। হতাশ চোখে সেদিকে তাকিয়ে ছিলেন কৃষ্ণ, মনবীর, শুভাশিসরা। ফাইনালে এসে একেবারে শেষ লগ্নের গোলে ব্যর্থ হয়ে গেল এতদিনের পরিশ্রম। কিন্তু কিছু করার নেই। হাবাস জানিয়ে গেলেন এটাই ফুটবল। যেমন দেয়, তেমন কেড়ে নেয়। নিজের ছেলেদের নিয়ে গর্বিত তিনি।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: