কালই শেষ দিন, নিয়ম না মেনে আর পথে নামতে পারবে না আনফিট পুলকার

কালই শেষ দিন, নিয়ম না মেনে আর পথে নামতে পারবে না আনফিট পুলকার

পড়ুয়ারা স্কুলে ঢুকে পড়লে স্কুল মাঠে সব গাড়ির ফিটনেস খতিয়ে দেখা হবে। তারপরও রাস্তায় চলার অযোগ্য কোনও পুলকার ধরা পড়লে কঠোর ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন।

  • Share this:

Saradindu Ghosh

#বর্ধমান: মঙ্গলবার শেষ হচ্ছে চূড়ান্ত সময় সীমা। বুধবার থেকেই আনফিট পুল কার পথে নামলেই কড়া ব্যবস্থা নেবে পুলিশ ও প্রশাসন। এ রাজ্যের কোথায় চালু হচ্ছে এই নিয়ম! কীভাবেই বা চিহ্নিত করা হবে রাস্তায় চলার অযোগ্য পুল কার?

পূর্ব বর্ধমান জেলা জুড়েই চালু হচ্ছে এই নিয়ম। মঙ্গলবারের মধ্যে সব পুলকার ঠিক ঠাক করে নেওয়ার সময় দিয়েছে জেলা পুলিশ ও প্রশাসন। তারপর আর কোনও অনুরোধ রেয়াত করা হবে না বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবারের পর যে কোনও দিন স্কুলে যাবে পুলিশ ও মোটর ভেইকেল দফতরের আধিকারিকরা। স্কুল মাঠে সার দিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখতে হবে সব পুলকার। সেসব গাড়ি পরীক্ষা করে দেখে ফিট ঘোষণা করা হলে তবেই মিলবে রাস্তায় নামার সবুজ সংকেত।

বর্ধমান শহরেই বেশ কয়েকটি স্কুলে পুলকার চলে। বর্ধমান টাউন স্কুল, সিএমএস, মিউনিসিপ্যাল গার্লস-সহ অনেক বাংলা মাধ্যম স্কুলে অভিভাবকরাই নিজেদের উদ্যোগে পুলকারের ব্যবস্থা করেছেন। সেই গাড়িগুলির বেশিরভাগই রাস্তায় নামার অযোগ্য। তার না আছে পারমিট, না আছে তার বিমার কাগজ।

বাসিন্দারা বলছেন, রাস্তায় চলার অযোগ্য গাড়িকে পুলকার হিসেবে ভাড়া খাটানোর নামে পড়ুয়াদের বিপদের মুখে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। গাড়িগুলির লুকিং গ্লাস থেকে শুরু করে ব্যাক লাইট অনেক কিছুই নেই। রিসোলিং টায়ার লাগিয়ে গাড়িগুলি ছুটছে। যে কোনও সময় পোলবার মতো বড় দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে।

পুলিশ প্রশাসন জানিয়েছে, অভিভাবকদের উদ্যোগে পথে নামা পুল কারগুলিও পার পাবে না। কোন স্কুলে কটি পুলকার যাতায়াত করছে তার সব তথ্য প্রশাসনের কাছে থাকবে। সেই তালিকা স্কুলগুলিকে জমাও দিতে বলা হয়েছে। সেসব তথ্য জোগাড়ের জন্য ৩ মার্চ পর্যন্ত স্কুলগুলিকে সময় দেওয়া হয়েছে।  তারপর সব পুলকারকেই ফিটনেস পরীক্ষা দিতে হবে। পড়ুয়াদের অসুবিধায় ফেলে মাঝরাস্তায় গাড়ি দাঁড় করিয়ে পরীক্ষা করা হবে না। পড়ুয়ারা স্কুলে ঢুকে পড়লে স্কুল মাঠে সব গাড়ির ফিটনেস খতিয়ে দেখা হবে। তারপরও রাস্তায় চলার অযোগ্য কোনও পুলকার ধরা পড়লে কঠোর ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন।

First published: March 2, 2020, 3:48 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर