corona virus btn
corona virus btn
Loading

আর কোন কোন স্কুলের প্রাথমিকে রয়েছে রেফারেন্স বুক ? খোঁজ নেবে শিক্ষা দফতর

আর কোন কোন স্কুলের প্রাথমিকে রয়েছে রেফারেন্স বুক ? খোঁজ নেবে শিক্ষা দফতর

বর্ধমানের নামী স্কুল মিউনিসিপ্যাল গার্লস স্কুলের প্রি প্রাইমারিতে রেফারেন্স বুকে বর্ণবৈষম্যের পাঠ সামনে আসার পর জেলার অন্যান্য স্কুলগুলির ওপর নজর রাখতে চলেছে শিক্ষা দফতর।

  • Share this:

#বর্ধমান: প্রি প্রাইমারি বা প্রাইমারিতে আর কোন কোন স্কুলে রেফারেন্স বুক পড়ানো হচ্ছে, সেই সব বইয়ে কী কী বিষয় রয়েছে সে ব্যাপারে অনুসন্ধান চালাবে প্রাথমিক শিক্ষা দফতর। বর্ধমানের নামী স্কুল মিউনিসিপ্যাল গার্লস স্কুলের প্রি প্রাইমারিতে রেফারেন্স বুকে বর্ণবৈষম্যের পাঠ সামনে আসার পর জেলার অন্যান্য স্কুলগুলির ওপর নজর রাখতে চলেছে শিক্ষা দফতর। বর্ধমান মিউনিসিপ্যাল গার্লস স্কুলে প্রি প্রাইমারিতে ‘ইউ’ অক্ষরের অর্থ বোঝাতে ‘আগলি’ লেখার পাশাপাশি সেখানে কুৎসিত বোঝাতে কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তির মুখের ছবি দেওয়া হয়েছে। ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এই মুহূর্তে তোলপাড় রাজ্যের শিক্ষা মহল। ইতিমধ্যেই ওই বই স্কুলে পড়ানোর অনুমোদন দেওয়ার অভিযোগে স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা শ্রাবণী মল্লিক ও প্রাথমিকের টিচার ইনচার্জ বর্ণালী ঘোষ কে সাসপেন্ড করেছে শিক্ষা দফতর।

পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রাথমিক স্কুল পরিদর্শক স্বপন কুমার দত্ত বলেন, ‘‘প্রাথমিকে বই নির্বাচনের কোনও অনুমোদন নেই। কারণ প্রাথমিকের জন্য দুটি বই রাজ্য সরকার বিনামূল্যে স্কুলগুলিতে পড়ুয়াদের দেয়। এছাড়া রেফারেন্স বই হিসেবে আলাদা করে কোনও বই পড়ানোর কোনও অনুমোদন নেই। শিক্ষা দফতরকে না জানিয়েই ওই স্কুলে রেফারেন্স বুক পড়ানো হচ্ছিল। আর কোন কোন প্রাথমিক স্কুলে এই ধরনের রেফারেন্স বই পড়ানো হচ্ছে কিনা দেখতে আমরা জেলাজুড়ে স্কুলগুলিতে অনুসন্ধান চালাবো। শিক্ষা দপ্তরকে আড়ালে রেখে কোনও স্কুল যদি এই ধরনের রেফারেন্স বই পাঠ্যসূচির অন্তর্ভুক্ত করে থাকে তবে সেই সব স্কুলের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’’

বর্ধমান মিউনিসিপ্যাল গার্লস স্কুলের প্রি প্রাথমিকে বর্ণবৈষম্যের পাঠকে ঘিরে বিতর্ক দেখা দেওয়ায় আলাদা করে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিজয় ভারতী। তিনি জানান, কিভাবে ওই স্কুলে ওই রেফারেন্স বই নির্বাচন হলো তা তদন্ত করে দেখবে জেলা প্রশাসন। পাশাপাশি অন্য স্কুলে এই বই পড়ানো হচ্ছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হবে।

শরদিন্দু ঘোষ

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: June 13, 2020, 4:06 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर