পা ভেঙেছে ডাক্তারের, সরকারি হাসপাতালে পরিষেবা বন্ধের নোটিস!

পা ভেঙেছে ডাক্তারের, সরকারি হাসপাতালে পরিষেবা বন্ধের নোটিস!

ইনডোর পরিষেবা বন্ধের কারণে বিপাকে পড়েছেন অনেক রোগী ও তাঁদের পরিবারের লোকেরা৷ নোটিস দেখে ক্ষুব্ধ অনেকে৷

  • Share this:

#কাঁথি: পা ভেঙে বিছানায় চিকিৎসক৷ তাই সরকারি হাসপাতালের দেওয়ালে ঝোলানো হল পরিষেবা বন্ধের নোটিস৷ এমনই কাণ্ড পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথি মহকুমার হেঁড়িয়া প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে৷

১১৬বি জাতীয় সড়কের উপর এই প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে৷ দীর্ঘদিন ধরেই চিকিৎসক মাত্র ২ জন৷ তাঁদেরই একজন, হাসপাতাল ইনচার্জ সুভাষচন্দ্র ঢালির পা ভেঙেছে৷ ফলে হাসপাতালের সব দায়িত্ব গিয়ে পড়েছে আরেক চিকিৎসক অয়ন দে'র ঘাড়ে৷ গত রবিবার থেকে একার হাতে সব সামলে চলেছেন৷ তার উপর জাতীয় সড়কের পাশে হওয়ায়, প্রতিদিন ছোট-বড় দুর্ঘটনা লেগেই রয়েছে৷ এই পরিস্থিতিতে একার হাতে ইনডোর ও আউটডোর সামলানো সম্ভব হচ্ছে না৷ তাই বাধ্য হয়েই শুক্রবার সকাল থেকে ইনডোর পরিষেবা বন্ধের নোটিস ঝুলিয়েছেন চিকিৎসক অয়ন দে৷

ইনডোর পরিষেবা বন্ধের কারণে বিপাকে পড়েছেন অনেক রোগী ও তাঁদের পরিবারের লোকেরা৷ নোটিস দেখে ক্ষুব্ধ অনেকে৷ তাঁদের অভিযোগ, হঠাৎ করে পরিষেবা বন্ধের নোটিস দেওয়ায় সমস্য়ায় পড়তে হচ্ছে৷ প্রাথমিক চিকিৎসার জন্যে অন্য জায়গায় রেফার করায় ক্ষুব্ধ এলাকাবাসীর একাংশও৷ স্থানীয়দের দাবি, দ্রুত চিকিৎসক নিয়োগ করে চালু করতে হবে প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ইনডোর পরিষেবা৷

কিন্তু নতুন চিকিৎসক নিয়োগ করা তো সময়সাপেক্ষ ব্যাপার৷ আপাতত কবে পুরোপুরি চালু হবে হেঁড়িয়া প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র? উত্তর নেই স্বাস্থ্যকেন্দ্রের একমাত্র চিকিৎসক অয়ন দে'র কাছে৷

SUJIT BHOWMIK

First published: January 31, 2020, 3:09 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर