corona virus btn
corona virus btn
Loading

গ্রামে গ্রামে মাগুর মাছের চাষ, রোজগারের নতুন দিশা !

গ্রামে গ্রামে মাগুর মাছের চাষ, রোজগারের নতুন দিশা !

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশেই মাগুর মাছ চাষের এই পরিকল্পনাকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে জেলা প্রশাসন।

  • Share this:

#বর্ধমান: ফের বাঙালির ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে আসতে চলেছে জিওল মাছ। এমনই আশার আলো দেখাচ্ছে পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন। পূর্ব বর্ধমান জেলার প্রতিটি গ্রামে জিওল মাছ চাষের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। মূলত মাগুর মাছের চাষ বাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়েছে জেলা প্রশাসন। জেলাশাসক বিজয় ভারতী জানান, 'প্রতিটি গ্রামে অন্তত পাঁচটি করে মাগুর মাছ চাষের জলাধার তৈরির পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এর ফলে একসঙ্গে প্রচুর পরিমাণ মাগুর মাছের চাষ হবে ধরে নেওয়া হচ্ছে'। বাজারে এই মাছের যোগান বাড়লেই দাম কমবে বলে মনে করছে প্রশাসন।

মূলত মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশেই মাগুর মাছ চাষের এই পরিকল্পনাকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে জেলা প্রশাসন। করোনা পরিস্থিতিতে গ্রামের মানুষের হাতে কাজ নেই। উপার্জনও অনেক কমে গিয়েছে। তাই মুখ্যমন্ত্রী একশো দিনের কাজ সহ বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের কাজে জোর দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। চলতি সপ্তাহে জেলা শাসক ও আধিকারিকদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই বৈঠকেই ১০০ দিনের কাজ ছাড়াও জল ধরো জল ভরো প্রকল্পে বিশেষ গুরুত্ব দিতে বলা হয়। সেই প্রকল্পের মধ্যেই প্রতিটি গ্রামে পাঁচটি করে মাগুর মাছ চাষের পরিকাঠামো তৈরির নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

বাজারে এমনিতেই জিওল মাছ মধ্যবিত্তের নাগালের বাইরে। কই মাগুর সিঙির দেখাই পাওয়া যায় না। দেশি মাগুর মাছ আটশো নশো টাকা কেজি। মুখ্যমন্ত্রীর পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে বাজারে সস্তায় জিওল মাছের দেখা মিলবে। সেই সঙ্গে মাগুর মাছ চাষ করে মোটা টাকা আয় করতে পারবেন বাসিন্দারা। জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, জল ধরো জল ভরো প্রকল্পকে একশো দিনের কাজের মধ্যে যুক্ত করা হয়েছে। আগামী জুন মাস পর্যন্ত এই কাজে বিশেষ জোর দেওয়া হবে। এতে গ্রামবাংলায় বাড়তি শ্রম  তৈরি হবে। তেমনই জলাশয়গুলির গভীরতা বাড়বে। সেইসঙ্গে জলাশয় গুলিতে মাছ চাষও বাড়বে।

Saradindu Ghosh

Published by: Ananya Chakraborty
First published: May 15, 2020, 6:42 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर