• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • লকডাউনের সুবিধে নিয়ে চলছিল নাবালিকার বিয়ের আয়োজন! প্রশাসনের নজরে আসতেই উদ্যোগী পুলিশ

লকডাউনের সুবিধে নিয়ে চলছিল নাবালিকার বিয়ের আয়োজন! প্রশাসনের নজরে আসতেই উদ্যোগী পুলিশ

লকডাউনকে উপেক্ষা করে বিয়ের জন্য বাড়িতে আত্মীয় স্বজন থেকে রান্নাবান্না সকল কিছুই তৈরী হয়ে গিয়েছিল।

লকডাউনকে উপেক্ষা করে বিয়ের জন্য বাড়িতে আত্মীয় স্বজন থেকে রান্নাবান্না সকল কিছুই তৈরী হয়ে গিয়েছিল।

লকডাউনকে উপেক্ষা করে বিয়ের জন্য বাড়িতে আত্মীয় স্বজন থেকে রান্নাবান্না সকল কিছুই তৈরী হয়ে গিয়েছিল।

  • Share this:

#মুর্শিদাবাদ: লকডাউনের দিনে চলছিল নাবালিকার বিয়ের আয়োজন। খরগ্রাম থানার জয়পুর গ্রাম পঞ্চায়েতের তেলসুন্ধি গ্রামে এক নাবালিকার বিয়ের ঠিক হয় পাশে গ্রামের এক যুবকের সঙ্গে । পুলিশ ব্লক প্রশাসনের আধিকারিকরা খবর পেয়ে ওই গ্রামে গিয়ে পরিবারের সঙ্গে কথা বলে বিয়ে বন্ধ করে।

দিনমজুর  ষষ্ঠী কোনাই ও জয়ন্তী কোনাইয়ের তৃতীয় মেয়ে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী  বিয়ে ঠিক হয় পাশের গ্রামে নিয়ে এক যুবকের সঙ্গে। বুধবারই ছিল বিয়ের দিন। লকডাউনকে উপেক্ষা করে বিয়ের জন্য বাড়িতে আত্মীয় স্বজন থেকে রান্নাবান্না সকল কিছুই তৈরী হয়ে গিয়েছিল। ইতিমধ্যেই খড়গ্রাম থানার পুলিশ খবর পায় নাবালিকার বিয়ে হচ্ছে। খড়গ্রাম থানার পুলিশ ও ব্লক প্রশাসনের আধিকারিকরা ওই বাড়িতে গিয়ে পৌঁছান। বাড়ির লোকদের বোঝানোর পর বিয়ে বন্ধ করতে সম্মত হয় পরিবারের লোকেরা।

মা জয়ন্তী কোনাই বলেন, গরিব মানুষ ,বড় হয়ে গেছে মেয়ে ।সেই কারণেই বিয়ে দিয়ে দিচ্ছিলাম। আমরা আইনের কিছু জানি না। ছোট করে অনুষ্ঠান হচ্ছিল। তবে বাবুরা আসায় মেয়ের বিয়ে বন্ধ করে দিলাম। খরগ্রাম ব্লকের যুগ্ম বিডিও অর্ণব চক্রবর্তী বলেন, আমাদের কাজের খবর এসেছিল নাবালিকা বিয়ে হচ্ছে। সেই খবর পেয়ে ওই বাড়িতে গিয়ে পরিবারের লোকদের বোঝাই। মেয়ের বয়স ১৮  বছর না হলে বিয়ে দিতে নিষেধ করেছি। তাতে ওনারা সম্মত হয়েছেন।ওই ছাত্রী পড়াশোনা করবে বলে জানায়।

Pranab Kumar Banerjee

Published by:Elina Datta
First published: