West Bengal Election 2021: 'বামেরাই বিজেপিকে আটকেছে ৩৪ বছর', মহারণের নন্দীগ্রামে আব্বাস

West Bengal Election 2021: 'বামেরাই বিজেপিকে আটকেছে ৩৪ বছর', মহারণের নন্দীগ্রামে আব্বাস

আব্বাসের আবেদন

নন্দীগ্রামের সিপিএম প্রার্থী মীনাক্ষী মুখোপাধ্যায়ের সমর্থনে জনসভা করতে গিয়ে আব্বাস সিদ্দিকি বলছেন, '৩৪ বছর কিন্তু এ রাজ্যে বিজেপিকে আটকেছে বামেরাই। তাই বিজেপিকে আটকাতে হলে নন্দীগ্রামে সিপিএম আর বাকি জায়গাগুলিতে সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থীদের ভোট দিন।'

  • Share this:

    #নন্দীগ্রাম: বঙ্গভোটের এপিসেন্টার এখন একটাই কেন্দ্র- নন্দীগ্রাম। যুযুধান দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও শুভেন্দু অধিকারী। রাজনৈতিক মহলের মতে, নন্দীগ্রামের লড়াই মূলত তৃণমূল বনাম বিজেপির। কিন্তু সেই কঠিন কেন্দ্র নন্দীগ্রামে 'এক্স ফ্যাক্টর' হতে চাইছে বাম তথা সংযুক্ত মোর্চা। সেই সূত্রেই নন্দীগ্রামের সিপিএম প্রার্থী মীনাক্ষী মুখোপাধ্যায়ের সমর্থনে জনসভা করতে গিয়ে আব্বাস সিদ্দিকি বলছেন, '৩৪ বছর কিন্তু এ রাজ্যে বিজেপিকে আটকেছে বামেরাই। তাই বিজেপিকে আটকাতে হলে নন্দীগ্রামে সিপিএম আর বাকি জায়গাগুলিতে সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থীদের ভোট দিন।'

    শুক্রবার নন্দীগ্রাম স্টেট ব্যাংকের মাঠে সংযুক্ত মোর্চার পক্ষ থেকে জোট প্রার্থীর সমর্থনে আয়োজিত জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে সংখ্যালঘুদের উদ্দেশে আব্বাসের আহ্বান, 'আমাদের প্রলোভন দেখিয়ে গোলাম করে রাখা হয়েছে। আমরা গোলামি চাই না, অধিকার চাই।'

    প্রসঙ্গত, জোটের আসন বণ্টনে বাম শরিক সিপিআইয়ের ভাগে থাকা নন্দীগ্রাম আসনটি প্রথম দিকে দাবি করেছিলেন আব্বাস নিজেই। তবে পরিবর্তীত পরিস্থিতিতে শেষ পর্যন্ত ওই আসনে প্রার্থী হয়েছেন বামফ্রন্টের বড় শরিক সিপিএম প্রার্থী মীনাক্ষী মুখোপাধ্যায়। আর তাঁর সমর্থনেই আব্বাসকে প্রচারে নিয়ে গেলে নন্দীগ্রামে খেলা ঘোরানোর চেষ্টা চালাল বামেরা।

    ১ এবং ২ নম্বর ব্লক নিয়ে নন্দীগ্রাম বিধানসভা। নন্দীগ্রাম-২ ব্লকের সাতটি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় হিন্দু ভোটের আধিক্য রয়েছে। বৃহস্পতিবারই সেখানকার তেখালির মাঠে বিজেপি-র তরফে জনসভা করে গিয়েছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। উসকে দিয়েছেন গো হত্যা, বাংলার পুজো-পার্বন নিয়ে নানান কথা। আর ঠিক তার পরদিনই নন্দীগ্রামে হাজির হয়ে 'ভাইজান' বামেদের 'ধর্মনিরপেক্ষতা' ও ৩৪ বছর ধরে সেই উগ্র ধর্মীয় উসকানি রুখে দেওয়ার জন্য প্রশংসা করেন।

    Published by:Suman Biswas
    First published:

    লেটেস্ট খবর