• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • Mamata Banerjee mocks Public Works Department: 'হেলদোল দফতর!' রেগে গিয়ে কেন পূর্ত দফতরের নতুন নাম দিলেন মমতা?

Mamata Banerjee mocks Public Works Department: 'হেলদোল দফতর!' রেগে গিয়ে কেন পূর্ত দফতরের নতুন নাম দিলেন মমতা?

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

শুধু পূর্ত দফতর নয়, এ দিন পুরসভাগুলির কাজ নিয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)৷

  • Share this:

    #মধ্যমগ্রাম: প্রশাসনিক বৈঠকে পূর্ত দফতরের কাজ নিয়ে তীব্র কটাক্ষ করলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)৷ মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, পুূর্ত দফতরের (Mamata Banerjee mocks PWD) নাম হওয়া উচিত হেলদোল দফতর৷ কারণ তারা সব কাজই ধীর গতিতে করে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন মমতা৷ এ দিন উত্তর চব্বিশ পরগণার মধ্যমগ্রামে জেলার প্রশাসনিক বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী৷ সেখানেই এই মন্তব্য করেন তিনি৷

    শুধু পূর্ত দফতর নয়, এ দিন পুরসভাগুলির কাজ নিয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তাঁর অভিযোগ, পুরসভাগুলি ঠিক মতো মানুষকে পরিষেবা দিচ্ছে না৷ প্রতিটি পুরসভায় একজন করে পর্যবেক্ষক নিয়োগেরও নির্দেশ দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

    আরও পড়ুন: বিধানসভায় শোরগোল ফেললেন দিলীপ ঘোষ! সব নজর ঘুরে গেল ফিরহাদ-মলয়ের ঘরের দিকে

    প্রথা মতোই এ দিন উত্তর চব্বিশ পরগণার বিভিন্ন প্রকল্পের বিষয়ে খোঁজ খবর নিচ্ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তখনই চাকলা এবং কচুয়ায় লোকনাথ মন্দিরের কাজ নিয়ে খোঁজ খবর নেন তিনি৷ তখনই তাঁকে জানানো হয়, কাজ এগোচ্ছে ধীর গতিতে৷ এতেই ক্ষুব্ধ হন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

    তিনি পাল্টা প্রশ্ন করেন, 'অল্প অল্প করে কেন করছে? টাকা তো দিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ কাজটা পর্যটন দফতর করছে কি?' মুখ্যমন্ত্রীকে জানানো হয়, কাজ করছে পূর্ত দফতর৷ তা শুনেই কটাক্ষের সুরে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, 'পূর্ত দফতর তো ওরকমই হেলেদুলে চলে৷ ওদের নাম দেওয়া হয়েছে হেলদোল দফতর৷ টাকা দিয়ে দিয়েছি কাজ হবে না কেন?'

    আরও পড়ুন: বড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের, ১ জানুয়ারি রাজ্যের ছাত্রছাত্রীদের জন্য বিশেষ দিন!

    শুধু পূর্ত দফতর নয়, এ দিন পুরসভাগুলির কাজ নিয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তাঁর অভিযোগ, পুরসভার দায়িত্বে থাকা প্রশাসক বা চেয়ারম্যানরা নিজেদের এলাকায় যাচ্ছেন না৷ পুর প্রকল্পগুলিও ঠিক মতো এগোচ্ছে না৷ সমস্যা সমাধানে অবিলম্বে প্রতিটি পুরসভায় একজন করে পর্যবেক্ষক নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ যে পুরসভাগুলি ভাল কাজ করবে, তাদের পুরস্কৃত করার কথাও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

    পাশাপাশি ২০২৪ সালের মধ্যে প্রত্যেকটি বাড়িতে যাতে পরিস্রুত পানীয় জল পৌঁছে দেওয়া হয়, এ দিন প্রশাসনিক বৈঠকে সেই নির্দেশও দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: