নিজের বিয়ে রুখে সাহসিকতার পুরস্কার পেল মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী

শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে বউমার সম্পর্কের উন্নতি ঘটাতে পুরস্কার দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে হরিয়ানা একটি ছোট্ট গ্রাম ৷ কখনও বৃদ্ধ শ্বশুর-শাশুড়িকে অবহেলার অভিযোগ ওঠে তো কখনও দৈহিক ও মানসিক অত্যাচারের অভিযোগ ৷ এমন অবস্থার উন্নতি ঘটাতেই পুরস্কার দেওয়ার চল শুরু করল হরিয়ানার হিসার জেলার হানসি মহকুমার জগ্গা বররা গ্রাম ৷photo: representational image

  • Share this:

    #বেলডাঙা: নিজের বিয়ে নিজেই রুখলো মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী।  বেলডাঙা মির্জাপুর হাজী সলেমান চৌধূরী স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্রী রুবিনা খাতুনকে সাহসিকতার পুরষ্কার দেওয়ার ঘোষনা করেছেন বিডিও।

    সোমবার দুপুর ১ টা নাগাদ ব্লক অফিসে হাজির হয় মেয়েটি। অভি্যোগ জানায়, জোর করে তার বাড়ি থেকে বিয়ে দিতে চাইছে। আগামী ৬ ফেব্রুয়ারী বিয়ে ঠিক হয়েছে বলে সে জানায়। পরিবার বিয়ে ঠিক করেছে পাশের মহ্যমপুর গ্রামের এক চুল ব্যবসায়ীর ছেলের সঙ্গে।

    বিডিও মেয়েটির সঙ্গে কথা বলে ডাক পাঠান পরিবারের লোকজনদের। মেয়েটির বাবা মানিজুল সেখ হন্তদন্ত হয়ে দৌড়ে আসেন ব্লকে। বিডিও মেয়েটির অল্প বয়সে বিয়ে দেওয়ার কারণ জানতে চান তার কাছে। মানিজুল সেখ জানান, তার অভাবের সংসারে ভাল ছেলের সন্ধান পাওয়ায় এই বিয়ের প্রস্তাবে রাজি হন।

    বিডিও তার পিতাকে অল্প বয়সে বিয়ের কুফলগুলি বুঝিয়ে বললে তিনি নিজের ভুল বুঝতে পারেন এবং ১৮ বছরের আগে মেয়ের বিয়ে না দেওয়ার মুচলেকা দেন।

    First published: