দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য মসজিদেই হল কোয়ারেন্টাইন সেন্টার, সিদ্ধান্ত মসজিদ কমিটির

পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য মসজিদেই হল কোয়ারেন্টাইন সেন্টার, সিদ্ধান্ত মসজিদ কমিটির
Representative Image

শান্তিপুর পৌরসভার তিন নম্বর ওয়ার্ডের এই পুরাতন মসজিদ এলাকাতে প্রায় হাজার খানেক মানুষের বসবাস। এদের অধিকাংশই মুসলিম সম্প্রদায়ের। পরিযায়ী শ্রমিকদের কথা মাথায় রেখেই এগিয়ে আসেন এই মসজিদ কমিটি।

  • Share this:

#নদিয়া: রাজ্যের প্রতিটি জায়গায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দিনে দিনে বেড়েই চলেছে। হিসেবে অনুযায়ী পরিযায়ী শ্রমিকরা আক্রান্ত হচ্ছেন বেশি। যার ফলে সংক্রমণের আশঙ্কা দিনে দিনে বাড়ছে। নদিয়ার শান্তিপুরের বিভিন্ন এলাকাতে ইতিমধ্যে কয়েকজনের করোনা ধরা পরায় বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ সকলের। কয়ারেন্টাইন সেন্টার খোলার প্রতিবাদে কোথাও কোথাও স্থানীয় বাসিন্দারা বিক্ষোভও দেখাচ্ছেন। কেউ কেউ পথ অবরোধ পর্যন্ত করেছেন । সে ক্ষেত্রে পরিযায়ী শ্রমিকদের নিরাপদ রাখার জন্যই সেন্টার কোথায় হবে এ নিয়ে চিন্তিত জেলা প্রশাসনের সকলেই। সেদিকে তাকিয়েই এগিয়ে এল নদিয়ার শান্তিপুরের গোপালপুরের পুরাতন মসজিদ কমিটি।

শান্তিপুর পৌরসভার তিন নম্বর ওয়ার্ডের এই পুরাতন মসজিদ এলাকাতে প্রায় হাজার খানেক মানুষের বসবাস। এদের অধিকাংশই মুসলিম সম্প্রদায়ের। পরিযায়ী শ্রমিকদের কথা মাথায় রেখেই এগিয়ে আসেন এই মসজিদ কমিটি। আলোচনার মাধ্যমে স্থির হয় এই মসজিদে রাখা হবে ভিন রাজ্য ফেরত শ্রমিকদের। মসজিদের এক পাশের একটি জায়গাতে সরকারি বিধি নিষেধ মেনে করা হয়েছে কোরেন্টাইন সেন্টার।

এই মসজিদের ভিতরে রয়েছেন ৬ জনের একটি দল, যারা মহারাষ্ট্র থেকে এখানে এসে রয়েছেন। সেখানে আলো, পাখা, বাথরুম সবকিছুই রয়েছে। এই মসজিদের ইমাম মহম্মদ হাকিম জানান, মসজিদ কমিটির সেক্রেটারি, সভাপতি এবং পাড়ার বিভিন্ন মানুষের সঙ্গে কথা বলে আমরা এদেরকে থাকতে দিয়েছি, তৈরি করেছি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার। এবং তার জন্য আমরা সবরকম ব্যবস্থা করেছি।

শান্তিপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান অজয় দে জানান চারটি ওয়ার্ড পিছু একটি কর্মীকে রাখা হয়েছে৷ কেউ যেন অসুবিধা না পড়েন তারই দেখভাল করার জন্য রয়েছেন এই সব কর্মী৷ পরিযায়ী যে সমস্ত শ্রমিকরা রয়েছেন তারা এখানকার ব্যবস্থাপনা যথেষ্টই খুশি।

Published by: Pooja Basu
First published: June 3, 2020, 6:00 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर