Lightning Death Update : রাজ্যে বজ্রাঘাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২৭! নিহতদের পরিবারপিছু ২ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর

আর্থিক সাহায্যের ঘোষণা মোদির

সোমবার ট্যুইট করে প্রধানমন্ত্রীর দফতর (PMO) জানিয়েছে, বজ্রাঘাতে নিহতদের পরিবারপিছু ২ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। সেই সঙ্গে আহতরা ৫০ হাজার টাকা করে আর্থিক সাহায্য পাবেন। বজ্রপাতে নিহতদের পরিবারবর্গের প্রতি শোক জ্ঞাপন করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও (Amit Shah)।

  • Share this:

    #কলকাতা :  রাজ্যে বজ্রপাতে (Lightning Death) হতাহতদের পরিজনদের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে আর্থিক ক্ষতিপূরণের ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (PM Narendra Modi)। সোমবার ট্যুইট  করে প্রধানমন্ত্রীর দফতর (PMO) জানিয়েছে, বজ্রাঘাতে নিহতদের পরিবারপিছু ২ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। সেই সঙ্গে আহতরা ৫০ হাজার টাকা করে আর্থিক সাহায্য পাবেন। বজ্রপাতে নিহতদের পরিবারবর্গের প্রতি শোক জ্ঞাপন করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও (Amit Shah)।

    সোমবার রাতেই বাংলায় ট্যুইট করে নিহতদের পরিবারের সদস্যদের প্রতি শোক জানান প্রধানমন্ত্রী ((PM Narendra Modi)। তিনি লিখেছেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন স্থানে বজ্রাঘাতে মৃতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাই। আহতরা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুন।’

    প্রধানমন্ত্রীর মতোই নিহতদের পরিজনদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন শাহ। তিনি লিখেছেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন স্থানে বজ্রপাতের জেরে জীবনহানির ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। প্রিয়জনকে হারানো সেই পরিবারবর্গে প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানাই। আহতরা যাতে দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠেন, সেই প্রার্থনা করছি।’

    সোমবার বিকেলে দক্ষিণবঙ্গে একাধিক জেলায় ঝড়-বৃষ্টির সময় বজ্রাঘাতে প্রাণ হারিয়েছেন ২৭ জন। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের জেরে একদিনে এত মানুষের মৃত্যুতে শোকপ্রকাশক করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ পাশাপাশি, মৃতদের এবং আহতদের জন্য ক্ষতিপূরণেরও ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার৷ প্রধানমন্ত্রীর দফতরের তরফে ট্যুইট করে জানানো হয়েছে, বজ্রাঘাতে মৃতদের পরিবারকে ২ লক্ষ টাকা করে আর্থিক সহায়তা করা হবে৷ আহতরা পাবেন ৫০ হাজার টাকা৷ পাশাপাশি জানা গিয়েছে, আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে মৃতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করবেন তৃণমূলের নতুন সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

    এ দিন বজ্রাঘাতে শুধুমাত্র হুগলি জেলাতেই ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ মুর্শিদাবাদে মারা যান আরও ৯ জন৷ পশ্চিম মেদিনীপুরের চন্দ্রকোণায় বাজ পড়ে মৃত্যু হয়েছে ২ জনের৷ নদিয়ার নবদ্বীপ থেকেও বজ্রাঘাতে মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে৷ নবদ্বীপে গঙ্গায় স্নান করতে গিয়ে বজ্রপাতে মৃত্যু হল এক যুবকের। যুবকের নাম মধু দাস, বয়স ৩৫ বছর। স্থানীয় সুত্রে জানা গিয়েছে, এ দিন বিকালে নবদ্বীপের রানীরচরার গঙ্গার ঘাটে স্নান করতে গিয়েছিলেন। মুর্শিদাবাদ জেলার রঘুনাথগঞ্জ থানার মির্জাপুর নওদা এলাকায় মাঠের জমিতে কাজ করার সময় বজ্রপাতে বিদ্যুতস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হয়েছে পাঁচজনের। আহত হয়েছেন আরও কয়েকজন। তাঁদেরকে জঙ্গিপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

    সোমবার দুপুরে মাঠে কাজ করার সময় বজ্রপাত হয় এবং তখন বিদ্যুতস্পৃষ্ট হয়ে গুরুতর জখম হন তাঁরা। পুলিশ জানিয়েছে মৃতের নাম দুর্যোধন দাস (৩৫), মাজাহারুল সেখ (১৬), হান্নান সেখ, সুনিল দাস ও সাদ্দাম শেখ। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জঙ্গিপুর মহকুমা হাসপাতালে মর্গে পাঠিয়েছেন। আহতদের চিকিৎসা চলছে জঙ্গিপুর মহকুমা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে। ঘটনার জেরে শোকে ছায়া নেমে এসেছে। সুতি থানার আইরনে বজ্রপাতে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। বহরমপুরের বানজেটিয়াতে বজ্রাঘাতে অভিজিৎ বিশ্বাস (৪০) এবং প্রহ্লাদ মুরারি (৪২) নামে আরও দু'জনের মৃত্যু হয়েছে। রাস্তা দিয়ে হেঁটে আসার সময় বাজ পড়ে তাঁদের মৃত্যু হয়।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: