দলিত ছাত্রের উদ্দেশ্যে ক্লাসেই অশ্লীল মন্তব্য, সাসপেন্ড খড়্গপুর আইআইটি-র শিক্ষিকা

খড়্গপুর আইআইটির শিক্ষিকাকে সাসপেন্ড করল কর্তৃপক্ষ। ফাইল চিত্র

অনলাইন ক্লাস চলাকালীন এই শিক্ষিরা দুই সপ্তাহ আগেই তফশিলি পড়ুয়াদের অবমাননাকর মন্তব্য করেন বলে অভিযোগ।

  • Share this:

#কলকাতা: অবমাননাকর মন্তব্যের জেরে খড়্গপুর আইআইটি কর্তৃপক্ষ এক অধ্যাপিকাকে সাসপেন্ড করল।  অনলাইন ক্লাস চলাকালীন এই শিক্ষিরা দুই সপ্তাহ আগেই তফশিলি পড়ুয়াদের অবমাননাকর মন্তব্য করেন বলে অভিযোগ।  সেই সময়েই তাঁর ওই অবমাননাকর মন্তব্যের ভিডিও সোশ্যাল সাইট জুড়ে ভাইরাল হয়। নড়চড়ে বসে ভারতের অন্যতম শ্রেষ্ঠ এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

কর্তৃপক্ষের নির্দেশেই তদন্তের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটি তৈরি করে কর্তৃপক্ষ। সেই ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটির রিপোর্ট জমা পড়ে আজ। পরবর্তী নির্দেশিকা জারি না হওয়া পর্যন্ত ওই অধ্যাপিকা সাসপেন্ড থাকবে এমনটাই নির্দেশিকা জারি করেছে আইআইটি কর্তৃপক্ষ। পরবর্তী তদন্তপ্রক্রিয়া ইতিমধ্যেই শুরু করা হয়েছে সংস্থার তরফে।

" আমরা এ ধরনের আচরণ সমর্থন করি না। সব দিক খতিয়ে দেখেই আমরা ওঁকে সাসপেন্ড করেছি", বলেন আইআইটি খড়গপুর এর ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার তমাল নাথ।

ঘটনার সূত্রপাত গত মঙ্গলবার। অধ্যাপিকা সীমা সিংহ  আইআইটি-র ভরা ক্লাসরুমে দলিত বিরোধী মন্তব্য করেন বলে অভিযোগ। বোম্বে আইআইটি-র পড়ুয়াদের একটি গোষ্ঠী ঘটনার ভিডিও তুলে ধরেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। অভিযোগ সীমা সিংব ক্লাসে উপস্থিত ১২৮ জন পড়ুয়াকে হুমকি দিয়ে হিউম্যানিটিজ অ্যান্ড সোশ্যাল সায়েন্স বিভাগে ২০-র মধ্যে ০ দেওয়ার কথা বলেন। পাশাপাশি তাঁর বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় নারী ও শিশুকল্যাণ মন্ত্রক এবং তফশিলি জাতি-জনজাতি ও সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রকে অভিযোগ করেও ফল হবে না বলে হুঁশিয়াকি দিতে শোনা যায় তাঁকে। অনলাইন ক্লাসেই তিনি ভারতমাতা কি জয় স্লোগান দিতে থাকেন।

রেজিস্ট্রার তমাল নাথ তখনই জানান, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করা হবে। পাশাপাশি তফশিলি জাতি জনজাতির উপর অত্যাচার প্রতিরোধ আইনে থানায় একটি অভিযোগও দায়ের করা হয়। অভিযোগটি বিশ্ববিদ্যালয়ের রিভিউ কমিটি খতিয়ে দেখা শুরু করে। এসসি এসটি ওবিসি বিষয়ক শাখাকেও বিষয়টি জানানো হয়। অবশেষে এই বিষয়ে পদক্ষেপ করল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

Published by:Arka Deb
First published: