বসন্ত এসে গেছে, গানে ঘুম ভাঙল গঙ্গা তীরের এই শহরের

বসন্ত এসে গেছে, গানে ঘুম ভাঙল গঙ্গা তীরের এই শহরের

ওরে গৃহবাসী খোল দ্বার খোল লাগলো যে দোল গাইতে গাইতে ঘুম ভাঙালেন শহরবাসীর।

  • Share this:

#কালনা: বসন্ত জাগ্রত দ্বারে। প্রভাতফেরি করে কালনায় সেই বার্তাই ছড়িয়ে দিল কিশোর কিশোরী, তরুণ তরুণীর দল। ওরে গৃহবাসী খোল দ্বার খোল লাগলো যে দোল গাইতে গাইতে ঘুম ভাঙালেন শহরবাসীর। প্রভাতফেরি নানান সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে কালনায় বসন্ত উৎসব পালন করল সাংস্কৃতিক সংস্থা উদীচি। তাদের এই উদ্যোগে খুশি বাসিন্দারা। কালনা শহরের বাসিন্দা প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ। তিনি বললেন, 'শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে এমন অনুষ্ঠান। এবার সেখানে অনুষ্ঠান বন্ধ। কালনায় যে শান্তিনিকেতনের মতোই রঙিন অনুষ্ঠান করা যায় তা কালনার ছেলেমেয়েরা দেখিয়ে দিল'। ভোর হতে না হতেই হাজির হয়েছিলেন সকলেই। ছোটরা সেজেছিল বাসন্তী রঙের শাড়িতে। অশোক পলাশের মালা গলায়। কারও কারও চুলের খোঁপায় ফুলের বাহার। ছোটরা প্রভাত ফেরি করল রবীন্দ্রনাথের বসন্তের গানে। তাদের পেছনে সার দিয়ে হাঁটলেন বাসন্তী রঙের শাড়ির শয়ে শয়ে মহিলা। এক এক করে গঙ্গা তীরের মন্দির শহর কালনার সব রাস্তা পরিক্রমা করল বর্নময় পদযাত্রা। বসন্ত এসে গেছে সেই বার্তা তাঁরা ছড়িয়ে দিলেন সুরেলা কন্ঠে নৃত্যের মাধ্যমে। অনুষ্ঠানের উদ্যোক্তা ছিল সাংস্কৃতিক সংস্থা উদিচী। তাঁদের কর্মকর্তারা বললেন, অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন শহরের সব এলাকার সব বয়সের বাসিন্দারা। আমরা তাঁদের একটি সূত্রে গেঁথেছি মাত্র। উদাচীর উদ্যোগেই রাত জেগে কালনা শহরের রাজপথে আঁকা হয়েছে রঙ্গোলি। দশটি মোড়ে আঁকা হয়েছে এই রঙিন আলপনা। এবার তারা প্রভাতফেরি সহ নানান সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে কালনায় বসন্ত উৎসব পালন করল। তা দেখে শহরের বাসিন্দারা বলছেন, এতো বড় আকারে বসন্ত উৎসব আগে এ শহরে হয়নি। যেন একটা ছোট শান্তিনিকেতন উঠে এসেছে এ শহরে। সেইসঙ্গে সুস্থ সংস্কৃতির বার্তাও দিল কালনা শহর।

Saradindu Ghosh

First published: March 9, 2020, 12:39 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर