• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • Burdwan News:তোলা না দেওয়ায় জাতীয় সড়কে ট্রাক চালককে মারধরের অভিযোগ, চাঞ্চল্য পূর্ব বর্ধমানে 

Burdwan News:তোলা না দেওয়ায় জাতীয় সড়কে ট্রাক চালককে মারধরের অভিযোগ, চাঞ্চল্য পূর্ব বর্ধমানে 

তোলা না দেওয়ায় মারধরের অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে

তোলা না দেওয়ায় মারধরের অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে

তোলা না দেওয়ায় মারধরের অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে

  • Share this:

#পূর্ব বর্ধমান: তোলা না দেওয়ায় মারধরের অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে! ২ নম্বর জাতীয় সড়কে ট্রাক চালককে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ ও মারধর করার অভিযোগ উঠেছে। পূর্ব বর্ধমানের জামালপুর থানার মশাগ্রামে দুর্গাপুর এক্সপ্রেস ওয়েতে এই ঘটনা ঘটেছে। জেলা পুলিশ সুপার ও জেলাশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই ট্রাক চালক। এই ঘটনায় ব্যাপক ক্ষুব্ধ অন্যান্য ট্রাক চালকরা। তাঁদের অভিযোগ, প্রায় প্রতিদিনই ২ নম্বর জাতীয় সড়ক তথা দুর্গাপুর এক্সপ্রেস ওয়েতে পুলিশের নানা জুলুমের শিকার হতে হচ্ছে। এসব বন্ধ করতে জেলা পুলিশের অবিলম্বে পদক্ষেপ করা প্রয়োজন।

আরও পড়ুন: হলদিয়ায় আইওসি কারখানায় বিধ্বংসী আগুনে মৃত ৩, আহত অন্তত ৪২! গুরুতর জখমদের আনা হচ্ছে কলকাতায়

ট্রাক চালক শেখ নজরুল বর্ধমান শহরের আঁজির বাগান এলাকার বাসিন্দা। তিনি ট্রাক নিয়ে কলকাতার সরস্বতী প্রেস থেকে সরকারের সরবরাহ করা স্কুল বই আনতে যাচ্ছিলেন। তখন তাঁর সঙ্গে এই ঘটনা ঘটে। তাঁর অভিযোগ, ''মশাগ্রামের কাছে ট্রাক আটকে পাঁচশো টাকা চায় পুলিশ।রাজ্য সরকারের স্কুল বই আনার কাজে এই ট্রাক যুক্ত, তাই টাকা দেওয়া সম্ভব নয় বলে জানালে আমাকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করেন কর্তব্যরত এক পুলিশ অফিসার।'' ট্এরাক চালকের আরও অভিযোগ, এরপর ট্রাক থেকে নামিয়ে তাঁকে বেদম মারধর করা হয়। তাঁর হাতে, উরুতে আঘাত লাগে।তিনি জামালপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসা করান। তাঁর অভিযোগ, '' জামালপুর থানায় সংশ্লিষ্ট পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাতে যাই। কিন্তু ডিউটি অফিসার কোনওরকম এফআইআর বা জেনারেল ডায়েরি নিতে অস্বীকার করেন।'' এরপর তিনি জেলা পুলিশ সুপার ও জেলাশাসকের কাজে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

আরও পড়ুন: প্রেম মানে না কোনও বাধা! ঘরে বউ, শাশুড়িকে নিয়ে নতুন পৃথিবী তৈরিতে ফেরার জামাই, থানা-পুলিশ, চারিদিকে তোলপাড়!

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সেই সময় দু নম্বর জাতীয় সড়কে নো এন্ট্রি চলছিল। তা উপেক্ষা করেই ওই ট্রাকটি চলে যাচ্ছে দেখে দাঁড় করানো হয়। তারপর কী হয়েছিল তা কর্তব্যরত পুলিশ কর্মীদের কাছে খোঁজ নেওয়া হবে। ওই ট্রাক চালকের অভিযোগও গুরুত্বের সঙ্গে খোঁজ নিয়ে দেখা হবে।এ'ব্যাপারে জেলা পুলিশ সুপার কামনাশিস সেন বলেন, ঠিক কী ঘটেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Published by:Rukmini Mazumder
First published: