বারাসতে বিজেপি-র মণ্ডল কমিটি ঘিরে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব, দুই শিবিরের মারপিট

বারাসতে বিজেপি-র মণ্ডল কমিটি ঘিরে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব, দুই শিবিরের মারপিট
বারাসতে বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব

দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, বিজেপির বারাসত সাংগঠনিক জেলায় মোট ৩৮টি মণ্ডল কমিটি রয়েছে। গত জুলাই মাসে জেলা সভাপতি প্রদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরিবর্তে দায়িত্ব পান শংকর চট্টোপাধ্যায়

  • Share this:

#বারাসত: বিজেপির বারাসত সাংগঠনিক জেলার বিভিন্ন মণ্ডল কমিটি গঠন ঘিরে উত্তেজনা। দলের প্রাক্তন ও বর্তমান দুই সভাপতির অনুগামীদের মধ্যে হাতাহাতি, মারপিট৷ বিজেপির দুই শিবিরের মারপিটের জেরে বারাকপুর রোডে সাময়িক যান চলাচলও স্তব্ধ হয়ে পড়ে।

দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, বিজেপির বারাসত সাংগঠনিক জেলায় মোট ৩৮টি মণ্ডল কমিটি রয়েছে। গত জুলাই মাসে জেলা সভাপতি প্রদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরিবর্তে দায়িত্ব পান শংকর চট্টোপাধ্যায়। তারপর পুরনো মণ্ডল কমিটির ১৮ জন সভাপতিকে সরিয়ে দেওয়া হয়। মঙ্গলবার বারাসত হেলা বটতলার কাছে একটি অনুষ্ঠানগৃহে দলের তরফ থেকে নতুন মণ্ডল সভাপতিদের নাম ঘোষণার বৈঠক ছিল। সেখানে শংকর ও প্রদীপ, দুই শিবরের সমর্থকরা হাজির ছিলেন। ভিতরে যখন নতুন মণ্ডল সভাপতিদের নাম ঘোষণার বৈঠক চলছে, বাইরে তখন দুই শিবিরের সমর্থকদের হাতাহাতি মারপিট বেঁধে যায়।

বেলা দুটো নাগাদ নতুন সভাপতিরা যখন একে একে বেরোতে থাকেন, বাইরে বিরুদ্ধ শিবির 'মানছি না, মানব না' স্লোগান দিতে থাকে। প্রাক্তন জেলা সভাপতি প্রদীপের অনুগামী রাজকুমার পাল বলেন, 'আমি দলের গঠনতন্ত্র মেনে নির্বাচিত মণ্ডল সভাপতি ছিলাম। নতুন জেলা সভাপতি শংকর চট্টোপাধ্যায় টাকার বিনিময়ে অন্য আরেক জনকে মণ্ডল সভাপতি পদে বসিয়েছেন। আমরা এই অনৈতিক কাজ মানব না।'

অন্য দিকে নতুন জেলা সভাপতি শংকর অনুগামী বারাসত পশ্চিম মণ্ডল সভাপতি জয় বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, 'দলের গঠনতন্ত্র মেনেই আজ মণ্ডল সভাপতি ঘোষণা করা হয়েছে। যারা বাইরে গণ্ডগোল করেছে, তারা দলের কেউ নয়। তৃণমূল থেকে আসা কিছু লোক এই গণ্ডগোল করেছে।'

First published: 10:06:07 PM Nov 26, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर