মেমারিতে তৃণমূল বিজেপির মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ, লুটপাট, পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর

তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্বের দাবি, বিজেপি বাইরে থেকে লোকজন নিয়ে এসে পরিকল্পিত ভাবে ওই গ্রামে হামলা চালায়।

তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্বের দাবি, বিজেপি বাইরে থেকে লোকজন নিয়ে এসে পরিকল্পিত ভাবে ওই গ্রামে হামলা চালায়।

  • Share this:

#বর্ধমান: নির্বাচনী প্রচারকে ঘিরে দফায় দফায় সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠল পূর্ব বর্ধমান জেলার মেমারি বিধানসভা এলাকা। মেমারির কুচুট ২ নং গ্রাম পঞ্চায়েতের নহাটি গ্রামে এই সংঘর্ষ শুরু হয়। শনিবার দিনভর দফায় দফায় সংঘর্ষ চলে। বেশ কয়েকটি বাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুর চালানো হয়েছে। ভাঙচুর চালানো হয় চারচাকা গাড়ি ও মোটর সাইকেলেও। রেহাই পাননি বাড়ির মহিলারাও। বাড়িতে ঢুকে তাদের মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। এলাকায় পুলিশ গেলে তাদের ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখায় গ্রামবাসীরা। পুলিশের গাড়িতে ভাঙচুর চালায় উত্তেজিত জনতা। ফের সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় ব্যাপক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা এলাকায় টহল দিচ্ছে। দিনভর দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনায় আতঙ্কিত এলাকার শান্তিপ্রিয় বাসিন্দারা।

এলাকায় বিজেপি ও তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে দুপক্ষের 21 জন জখম হয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে। জখমদের মধ্যে পনেরো জন তৃণমূলের কর্মী সমর্থক। তাদেরও ছ জন কর্মী-সমর্থক জখম হয়েছেন বলে বিজেপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। এই ঘটনার জন্য বিজেপি ও তৃণমূল একে অপরকে দায়ী করেছে। দুপক্ষই পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। সংঘর্ষে জড়িতদের ধরার জন্য অভিযান চালানো হবে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এদিন সকালে কর্মীদের নিয়ে নহাটি গ্রামে প্রচারে যান মেমারি বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী বিশ্বদেব ভট্টাচার্য। অভিযোগ গ্রামে তাঁকে প্রচারে বাধা দেওয়া হয়। তখনকার মত বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা সেখান থেকে চলে যায়। অভিযোগ, এরপরই বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা ওই গ্রামে ঢুকে ব্যাপকভাবে হামলা চালায়। বেশ কয়েকটি বাড়িতে ভাঙচুর চালানো হয়। তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী সমর্থকদের ব্যাপক মারধর করা হয়।  তাদের গাড়িতে ভাঙচুর চালানো হয়। বেশ কয়েকটি বাড়িতে লুটপাট চালানো হয় বলে অভিযোগ। এরপর তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ  থেকে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের বাড়িতে পাল্টা হামলা চালানো হয়। বিজেপি কর্মীদের মারধর করা হয় বলে অভিযোগ উঠেছে।

তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্বের দাবি, বিজেপি বাইরে থেকে লোকজন নিয়ে এসে পরিকল্পিত  ভাবে ওই গ্রামে হামলা চালায়। বিনা প্ররোচনায় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী সমর্থকদের মারধর করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িত বিজেপি দুষ্কৃতীদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানানো হয়েছে। অন্যদিকে, বিজেপি নেতৃত্বের দাবি, অশান্তির পরিবেশ তৈরি করার জন্য ওই গ্রামে প্রচার  করার কাজে বাধা দেওয়া হয়। তার জেরেই এলাকার পরিবেশ উত্তপ্ত হয়ে ওঠে।

Published by:Pooja Basu
First published: